বাবুলের চুলের মুঠি ধরেছি কিনা মনে নেই, আমি অনুতপ্ত নই, বললেন দেবাঞ্জন

বাবুল সুপ্রিয়কে হেনস্তার ঘটনায় পরোক্ষে ক্ষমা চেয়ে নিয়েছেন সংস্কৃত কলেজের ভাষা বিজ্ঞানের ছাত্র দেবাঞ্জন৷ এই খবরটি ছড়িয়ে পড়ে মুহূর্তে৷

Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Sep 23, 2019 12:45 PM IST
বাবুলের চুলের মুঠি ধরেছি কিনা মনে নেই, আমি অনুতপ্ত নই, বললেন দেবাঞ্জন
দেবাঞ্জন বল্লভ
Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Sep 23, 2019 12:45 PM IST

#কলকাতা: যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়র চুলের মুঠি ধরে টানার অভিযোগ রয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে৷ সোমবার ইউএসডিএফ-এর সদস্য সেই ছাত্র দেবাঞ্জন বল্লভ বললেন, 'আমি একেবারেই অনুতপ্ত নই৷ আত্মরক্ষার জন্যই হাত তুলেছিলাম৷'

তিনি বলেন, 'চুল ধরে টেনেছি কি না, মনে নেই৷ মারধর, গালিগালাজ করেন বাবুল৷ ছবি বিকৃত করছে বিজেপি-র আইটি সেল৷ আমার বাড়িতে চড়াও হয় এবিভিপি-র গুন্ডারা৷ আমার বাড়িতে হুমকি দেওয়া হচ্ছে৷ মায়ের অসুস্থতা নিয়ে রাজনীতি করা হচ্ছে৷ আমি একেবারেই হার মানিনি৷ আমার নামে ফেসবুকে ফেক প্রোফাইল খোলা হয়েছিল৷'

বাবুল সুপ্রিয়কে হেনস্তার ঘটনায় পরোক্ষে ক্ষমা চেয়ে নিয়েছেন সংস্কৃত কলেজের ভাষা বিজ্ঞানের ছাত্র দেবাঞ্জন৷ এই খবরটি ছড়িয়ে পড়ে মুহূর্তে৷ সোশ্যাল মিডিয়ায় 'অপরোধবোধে ভুগছি' বলে দেবাঞ্জন করেছে বলে পোস্ট করে সে। দেবাঞ্জনের দাবি, তাঁর নামে ফেক প্রোফাইল খুলে ওই পোস্ট করা হয়৷ কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় ওই পোস্টের স্ক্রিনশট শেয়ার করেন তাঁর টুইটারে। পোস্টটির সত্যতা নিয়ে প্রশ্ন তোলে ছাত্র সংগঠনগুলি।

ঘটনার সূত্রপাত গত বৃহস্পতিবার। ওই দিন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে গিয়ে প্রায় সাড়ে ৬ ঘণ্টা ধরে ঘেরাও হয়ে থাকতে হয় বাবুল সুপ্রিয়কে। নিগৃহীতও হন তিনি। শেষে রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় গিয়ে তাঁকে উদ্ধার করে রাজভবনে নিয়ে আসেন। রাজ্যের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর হেনস্থার ছবি যখন গোটা দেশ জুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে, তখনই সংবাদমাধ্যমে উঠে আসে একটি অন্য ছবি। তাতে দেখা যায়, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়র সামনে মারমুখী এক যুবক।

First published: 12:45:41 PM Sep 23, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर