• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • আমার কোনও বিশ্বেশ্বর স্যর ছিল না, তাই পারিনি: জয়দীপ কর্মকার

আমার কোনও বিশ্বেশ্বর স্যর ছিল না, তাই পারিনি: জয়দীপ কর্মকার

‘‘ সংবর্ধনা, উচ্ছ্বাস এ সব মাথা থেকে সরিয়ে রেখে নেমে পড়ো। ফের শূন্য থেকে শুরু করতে হবে। ’’

‘‘ সংবর্ধনা, উচ্ছ্বাস এ সব মাথা থেকে সরিয়ে রেখে নেমে পড়ো। ফের শূন্য থেকে শুরু করতে হবে। ’’

‘‘ সংবর্ধনা, উচ্ছ্বাস এ সব মাথা থেকে সরিয়ে রেখে নেমে পড়ো। ফের শূন্য থেকে শুরু করতে হবে। ’’

  • Share this:

    #কলকাতা:  কলকাতা তাঁর জেদ বাড়িয়ে দিয়ে গেল। আগরতলা ফিরে যাওয়ার আগে এই শহরকে জানিয়ে দিয়ে গেলেন অলিম্পিয়ান দীপা কর্মকার। দু’দিনের সফরে শহরের বিভিন্ন জায়গায় সংবর্ধনায় ভরিয়ে দেওয়া হল রিও অলিম্পিকে জিমন্যাস্টিক্সে চতুর্থ হয়ে সাড়া জাগানো অ্যাথলিট দীপা কর্মকারকে ৷

    দীপ জ্বালালেন দীপা। পুজোর আগে ময়দানের ভবানীপুর তাঁবু থেকে বণিক সভার মঞ্চ এক হয়ে গেল শুধুমাত্র দীপা কর্মকারে। সোমবার সকালে ভবানীপুর ক্লাবের তরফে অলিম্পিয়ানকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়। ছিলেন ক্লাব কর্তা সৃঞ্জয় বসু ও মোহনবাগান কর্তা দেবাশিস দত্ত। দীপার সঙ্গে হাজির ছিলেন তাঁর কোচ বিশ্বেশ্বর নন্দী। ভবানীপুর থেকে দীপাদের পরের গন্তব্য ছিল শহরের একটি বণিকসভা ৷ পাখির চোখ যে তাঁর টোকিও অলিম্পিক, সেই বার্তাটি এই দু’দিনের সফরে প্রায় প্রত্যেক জায়গাতেই একবার করে তুলে ধরেছেন দীপা ৷ সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন লন্ডন অলিম্পিকে চতুর্থ হওয়া আরেক বাঙালি শ্যুটার জয়দীপ কর্মকারও ৷ দীপাকে তাঁর একটাই বার্তা, ‘‘ সংবর্ধনা, উচ্ছ্বাস এ সব মাথা থেকে সরিয়ে রেখে নেমে পড়ো। ফের শূন্য থেকে শুরু করতে হবে। অনুশীলনও দ্বিগুণ করতে হবে। কারণ বিশ্বের সব জায়গায় অন্যরাও কিন্তু দীপার মতোই তৈরি হবে পদকের জন্য।’’

    বণিকসভা বেঙ্গল চেম্বার অফ কমার্স আয়োজিত একটি সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অলিম্পিয়ান দীপা কর্মকার এবং তাঁর কোচ বিশ্বেশ্বর নন্দী ৷ বণিকসভা বেঙ্গল চেম্বার অফ কমার্স আয়োজিত একটি সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অলিম্পিয়ান দীপা কর্মকার এবং তাঁর কোচ বিশ্বেশ্বর নন্দী ৷

    দীপার পাখির চোখ যেমন টোকিও অলিম্পিকে দেশকে পদক এনে দেওয়া ৷ চার বছর আগে কিন্তু বাঙালি শ্যুটার জয়দীপ কর্মকারকে নিয়েও স্বপ্ন দেখা হয়েছিল যে এবার হয়তো পারেননি তিনি, কিন্তু পরের অলিম্পিকেই পারবেন ৷ বাঙালি শ্যুটার কিন্তু দেশবাসীর প্রত্যাশা রাখতে ব্যর্থ ৷  জয়দীপ পারেননি ৷ কেন পারেননি, তাঁর ব্যাখাও দিয়েছেন ৷ লন্ডন অলিম্পিকে চতুর্থ হওয়া শ্যুটারের মতে, ‘‘ আমার কোনও বিশ্বেশ্বর স্যার ছিল না। একাই লড়তে হত। তাই পারিনি।’’

    ত্রিপুরারা এক অ্যাথলিটকে ঘিরে বণিক সভার উৎসাহ সাম্প্রতিক অতীতে বেশ নজির বিহীন। তাই বাড়ি ফেরার আগে দীপার দাবি, কলকাতা সফরের পর অলিম্পিকে পদক পাওয়ার জেদ আরও বেড়ে গেল তাঁর ।

    ঠাসা কর্মসূচির মধ্যেই এদিন তিনি হাজির হয়েছিলেন ডানলপের অমৃতনগরে। দেবীপক্ষের আগেই দীপ জ্বালালেন। আর ভরসা হিসেবে কাছে রাখলেন আদ্যা মা’র ছবি।

    First published: