corona virus btn
corona virus btn
Loading

নমো নমো করে ঘটেও পুজো হতে পারে, দুর্গাপুজোর বাজেটে বিপুল কাটছাঁট, জানালেন কর্মকর্তারা

নমো নমো করে ঘটেও পুজো হতে পারে, দুর্গাপুজোর বাজেটে বিপুল কাটছাঁট, জানালেন কর্মকর্তারা
  • Share this:

SOURAV GUHA 

#কলকাতা: একডালিয়ার আলো,  সুরুচির ভীড়,  উদয়ন সংঘের লম্বা লাইন কিম্বা শ্রীভুমি স্পোর্টিং এর য়ানজট। এবার পূজায় কি এ সবই উধাও  হতে চলেছে?  প্রস্নটা উঠছেই কারন  বাজেট পঞ্চাশ শতাংশ নামিয়ে ফেলার পর ও কেউ ভাবছেন,  সে টুকুও রাখা যাবে  কিনা। কলকাতার নামী,  বেনামী পূজা কমিটি গুলোর এখন এমনই মনোভাব। দিন কয়েক আগে ত্রিধারা সম্মেলনীর তরফে ফোন এলো শিল্পী গৌরাঙ্গ কুইলার কাছে। ক্লাবের তরফে স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, এবছরের বায়না তাঁরা ক্যান্সেল করছেন। কারণ বড় পূজো করা এক প্রকার অসম্ভব । ক্লাব কর্তা দেবাশিষ কুমার জানাচ্ছেন "পরিস্থিতির ওপর সব নির্ভর। মা যদি ঘট পূজা চান, তবে তাই হবে"। করোনার জেরে কর্পোরেটদের তরফে স্পনসরশিপে ব্যাপক ঘাটতির আশংকা যেমন  রয়েছে,  তেমনি প্রস্ন রয়েছে স্যোশাল ডিস্টান্সিং তখন কি অবস্থায় থাকবে। মানুষ কে ভীড় করতে দেওয়া হবে কিনা। এই সব মিলিয়ে পূজার বাজেট ছেটে ফেলেছেন পুজাকর্তারা। এক নজরে দেখে নেওয়া যাক এবছরে কার বাজেট কতটা ছাঁটা হল।

একডালিয়া এভারগ্রীন ৫০ শতাংশ ছাটতে চলেছেন । চেতলা অগ্রনী ৮০ শতাংশ ছাটতে চলেছেন। বালিগঞ্জ কালচারাল ৬০ শতাংশ ছাঁটতে চলেছেন । ত্রিধারা সম্মেলনী ৭০ শতাংশ ছাঁটতে চলেছেন। শ্রীভুমি স্পোর্টিং বাজেট নিয়ে মিটিং হয়নি। নাকতলা উদয়ন সংঘ ৫০ শতাংশ ছাঁটতে চলেছেন । পঁচানব্বই পল্লী ৭৫ শতাংশ ছেঁটেছেন । যোধপুর পার্ক সার্বজনীন পূজা নিয়ে মিটিং হয়নি । কলেজ স্কোয়ার  ৯০ শতাংশ ছাঁটতে চলেছেন । পূজা কমিটি গুলির অনেকেরই অভিভাবক সুব্রত মুখার্জির দাবি, "পূজা হবে,  তবে নমো নমো করে। ঝারবাতি, জাঁকজমক কিছুই থাকবে না।" এমনকী একডালিয়ায় এবছর মূর্তি ছোট হওয়ারও সমূহ সম্ভাবনা বলেই মনে করছেন ক্লাবের অনেকেই। কলকাতার পূজার অন্যতম আকর্ষণ শ্রীভুমি স্পোর্টিং এবছর ও নিয়ম মেনে পয়লা বৈশাখে মূর্তি তৈরীর জন্য বায়নার টাকা পাঠিয়েছেন কুমারটুলিতে। তবে ওই অবধিই। "এখনো পূজা নিয়ে মিটিং হয়নি,  পূজা হবে,  এটুকুই। এখন আমরা ত্রাণ নিয়ে ব্যস্ত," বলছেন ক্লাবকর্তা সুজিত বসু।

কলেজ স্কোয়ারের পূজা কমিটির কোষাধ্যক্ষ এ বছর মারা গিয়েছেন। নিয়ম রক্ষার্থে পূজা হবে। মূর্তি,  প্যান্ডেল। "ব্যাস ওটুকুই " বলছেন বাদল ভট্টাচার্য। আর চেতলা অগ্রনী তো ইতিমধ্যেই ৮০ শতাংশ বাজেট কমিয়েছে। "বাকী টাকা আমরা মানুষের ত্রাণে খরচ করবো," বলছেন ক্লাবের উপদেষ্টা মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। একই অবস্থা নাকতলা উদয়ন সংঘের। ক্লাবের কর্তা বাপ্পাদিত্য দাশগুপ্ত র দাবি "পরিস্থিতির ওপর সব নির্ভরশীল,  পূজো হবে, না ঘট পূজা হবে এখনই বলতে পারছি না "। করোনা লকডাউন অর্থনীতিতে যে সম্ভাব্য আঘাত হানতে চলেছে তাতেই পূজোর বাজেট এক ধাক্কায় নামিয়ে দিয়েছেন পূজা কর্তা রা। বিজ্ঞাপন ঘিরে অনিশ্চয়তা আর আদৌ মানুষ কতটা রাস্তায় বেড়োতে, ভিড় করতে পারবেন তা নিয়ে প্রস্ন দেখা দিতেই বাঙালির শ্রেষ্ঠ উতসব ঘিরেও দেখা দিয়েছে সংশয়। পূজা হবে,  তবে উৎসব  আর হুল্লোর কতটা হবে, তা নিয়ে গভীর চিন্তায় পূজাকর্তারা।

First published: April 25, 2020, 1:59 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर