চিনা দ্রব্য বয়কটের ডাক!‌ এদিকে বাজার ছেয়ে আছে চিনা থার্মাল গানে

চিত্তরঞ্জন অ্যাভিনিউয়ের এক দোকানদার জানান, বাজারে খুঁজলেও মিলবে না ভারতের তৈরি কোন থার্মাল গান।

চিত্তরঞ্জন অ্যাভিনিউয়ের এক দোকানদার জানান, বাজারে খুঁজলেও মিলবে না ভারতের তৈরি কোন থার্মাল গান।

  • Share this:

করোনা ভাইরাসের জন্য অনেকেই চিনের ভূমিকা নজরে আনছেন। এবার করোনা ঠেকাতেও চিনের ভূমিকা নজরে এল। ভারতীয় সেনাদের মৃত্যুর দেশজুড়ে ক্ষোভ বাড়ছে চিনের বিরুদ্ধে। চিনা দ্রব্য বর্জন করার ডাক উঠেছিল অনেক আগেই। এই পরিস্থিতিতে আরও জোরালো হচ্ছে চিনা পন্য বর্জনের ডাক। চিনা পন্য বর্জনের কথা মুখে বললেও তা যে সহজ নয় বারবার স্পষ্ট হচ্ছে।

চিনা মোবাইল বা টিভি তো ছিলই, এবার সেই তালিকায় নয়া সংযোজন থার্মাল গান। শহরের বিভিন্ন সার্জিক্যাল দোকানে মিলল চিনা পণ্যের রমরমা। সদ্য বাজারে এসেছে থার্মাল গান। বেশকিছু দিন আগেও যার দাম ছিল প্রায় দশ হাজার ছুঁই ছুঁই। এখন চাহিদা বাড়লেও যোগান পর্যাপ্ত থাকায় পাওয়া যাচ্ছে তিনহাজার টাকার মধ্যেই। বাজারে সবগুলি থার্মাল গানের প্রস্তুতকারক হল চিন। সবগুলির উপরে লেখা ‘‌made in China’‌। যারা এই সমস্ত জিনিস বিক্রি করেন তাঁরাই স্পষ্ট করছেন চিনের তৈরী জিনিস ছাড়া অন্য কোন প্রস্তুতকারক সংস্থার জিনিস মিলবে না বাজারে। ভারতের তৈরি কোন থার্মাল গান আছে কিনা তাও জানা নেই কোন দোকানদারের। যদিও মেলে তার দাম অনেকটাই বেশি হবে চিনে তৈরি করা পণ্যের তুলনায়।

চিত্তরঞ্জন অ্যাভিনিউয়ের এক দোকানদার জানান, বাজারে খুঁজলেও মিলবে না ভারতের তৈরি কোন থার্মাল গান। যদি মিলেও যায় তাহলে দাম হবে অনেক বেশি। একই কথা জানাচ্ছেন আরও এক দোকানদার। তিনি জানালেন চিনের পন্য বর্জন করতে গেলে ভারতের তৈরি পন্যের দামও কমাতে হবে। সব মিলিয়ে দাম ও যোগানের ভারসাম্যে চিন এগিয়ে অনেকটাই।

Susovan Bhattacharjee

Published by:Uddalak Bhattacharya
First published: