• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • মুখ্যমন্ত্রীর হুঁশিয়ারিতেও ফিরল না হুঁশ, বিল না মেটায় রোগীকে ছাড়ল না হাসপাতাল

মুখ্যমন্ত্রীর হুঁশিয়ারিতেও ফিরল না হুঁশ, বিল না মেটায় রোগীকে ছাড়ল না হাসপাতাল

বুধবার বেসরকারি হাসপাতালগুলির সঙ্গে বৈঠকে কড়া বার্তা মুখ্যমন্ত্রীর। তারই পরপরই সামনে এল আরও এক বেসরকারি হাসপাতালের অনৈতিক ব্যবসার ছবি।

বুধবার বেসরকারি হাসপাতালগুলির সঙ্গে বৈঠকে কড়া বার্তা মুখ্যমন্ত্রীর। তারই পরপরই সামনে এল আরও এক বেসরকারি হাসপাতালের অনৈতিক ব্যবসার ছবি।

বুধবার বেসরকারি হাসপাতালগুলির সঙ্গে বৈঠকে কড়া বার্তা মুখ্যমন্ত্রীর। তারই পরপরই সামনে এল আরও এক বেসরকারি হাসপাতালের অনৈতিক ব্যবসার ছবি।

  • Share this:

    #কলকাতা: মুখ্যমন্ত্রীর ধমকের পরেও হুঁশ ফিরল না অ্যাপোলো হাসপাতালের। বুধবারই হাসপাতালের অতিরিক্ত বিল, রোগী পরিষেবা নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে ধমক খেয়েছিল অ্যাপোলো কর্তৃপক্ষ। ২৪ ঘণ্টা পার হতে না হতেই ফের অমানবিক সেই অ্যাপোলো হাসপাতাল। বিল না মেটানোয় পরিবারের কাছে রোগীকে ফেরাতেও চায়নি। পরে অবশ্য ঘটি বাটি বিক্রি করে হাসপাতালের লক্ষাধিক টাকা মেটান ডানকুনির রায় পরিবার।তবুও শেষরক্ষা হল না। এসএসকেএম হাসপাতালে মৃত্যু হল সঞ্জয় রায়ের। আমতা আমতা করে অ্যাপোলো হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ নিজেদের পক্ষে সাফাই দিলেও, বৃহস্পতিবারও একই অমানবিক মুখ দেখল ডানকুনির রায় পরিবার। বিলের চাপে এখন মাথায় হাত ডানকুনির রায় পরিবারের। কিন্তু এতো কিছুর পরেও নির্বিকার অ্যাপোলো হাসপাতাল। ডানকুনির বাসিন্দা সঞ্জয় রায় পথ দুর্ঘটনায় আহত হয়ে চলতি মাসের ১৬ তারিখে ভর্তি হন অ্যাপোলো হাসপাতালে। হাসপাতাল প্রথমে জানায় তার লিভার ক্ষতিগ্রস্ত। সেই মতো তাকে ভেন্টিলেশনে রাখাও হয়। কিন্তু পরিবারের অভিযোগ, সাতদিন কেটে যাওয়ার পরেও কোনও উন্নতি হয়নি সঞ্জয়ের। আর এর মধ্যেই বিলের অঙ্ক দাঁড়িয়েছে ৮ লক্ষ টাকায়। যা যোগাড় করতে রায় পরিবারের এখন ঘটি বাটি বিক্রি করার অবস্থা। ফলে বাধ্য হয়েই সরকারি সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল এসএসকেএমে সঞ্জয় রায়কে স্থানান্তরিত করার সিদ্ধান্ত নেয় তার পরিবার। কিন্তু বাধ সাধে অ্যাপোলো হাসপাতাল। পুরো টাকা না মেটালে রোগীকে ছাড়া যাবে না বলে জানিয়ে দেওয়া হয়। যদিও সাড়ে তিনলক্ষ টাকা মিটিয়ে দেওয়া হয় বলে জানান রায় পরিবার। হাসপাতালেই এই ব্যবহারে হতবাক সঞ্জয়ের পরিবার। সেবাকে যখন কোনওভাবেই ব্যবসা করা যাবে না বলে বার্তা দিচ্ছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী, সেখানে বিলের টাকা না মেটানোয় প্রথম সারির বেসরকারি হাসপাতালের এই ব্যবহারে বিধ্বস্থ রোগীর পরিবার।এত কিছুর পরেও আশার আলো দেখেছিলেন সঞ্জয়ের পরিবার। কিন্তু এসএসকেএমে -ই মৃত্যু হল সঞ্জয় রায়ের।

    First published: