• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • নিম্নচাপের কারণে দিনভর চলবে বৃষ্টি, জলমগ্ন বিভিন্ন অঞ্চল

নিম্নচাপের কারণে দিনভর চলবে বৃষ্টি, জলমগ্ন বিভিন্ন অঞ্চল

নিম্নচাপের কারণে দিনভর চলবে বৃষ্টি, জলমগ্ন বিভিন্ন অঞ্চল

নিম্নচাপের কারণে দিনভর চলবে বৃষ্টি, জলমগ্ন বিভিন্ন অঞ্চল

নিম্নচাপের কারণে দিনভর চলবে বৃষ্টি, জলমগ্ন বিভিন্ন অঞ্চল

  • Share this:

    #কলকাতা: শনিবার দিনভর ভারী বৃষ্টির পর রবিবারও অব্যাহত রাজ্য জুড়ে ভারী বৃষ্টি ৷ কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গে আগামী তিনদিনে আরও বৃষ্টি হবে । নিম্নচাপ অক্ষরেখার জেরে ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। সকাল থেকে কলকাতায় ভারী বৃষ্টিতে জল জমে গিয়েছে কলকাতার বিভিন্ন অংশে। এমাসে কলকাতায় শুক্রবার পর্যন্ত বৃষ্টির হার ৫২ শতাংশ, জানিয়েছে হাওয়া অফিস।

    বর্ষণের ভ্রূকুটি এখনই কাটছে না। গুজরাত থেকে বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত নিম্নচাপ অক্ষরেখা। আগামী তিনদিনে কলকাতা ও সংলগ্ন অঞ্চলে আরও বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। শনিবার রাতভর বৃষ্টির পর রবিবার সকালেও ভারী বৃষ্টিতে ভাসল কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন এলাকা। নিম্নচাপ অক্ষরেখার জন্যই গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গে বৃষ্টি বলে জানিয়েছে হাওয়া অফিস।

    ২৪ ঘণ্টায় নিম্নচাপে পরিণত হতে পারে ঘূর্ণাবর্ত ৷ আগামী ২ দিন হালকা থেকে ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা ৷ বাঁকুড়া,বীরভূম,পশ্চিম বর্ধমানে, দঃ চব্বিশ পরগনা ও পূর্ব মেদিনীপুরে অতি ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা ৷ দার্জিলিং,জলপাইগুড়ি, মালদহ ও দুই দিনাজপুরেও ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা ৷ সব জেলায় আগামী ২ দিন বাড়বে বৃষ্টি ৷ মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে ৷

    রবিবার সকাল ৬.৩০ পর্যন্ত বৃষ্টি হয়েছে ৩৯ মিমি ৷ আজ দিনভর ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছে জানাল আলিপুর আবহাওয়া দফতর ৷ টানা তিন দিনের অব্যাহত বর্ষণের পূর্বাভাসে বন্যার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে ৷ নবান্নে খোলা হয়েছে কন্ট্রোল রুম ৷ ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত সেচ দফতরের সমস্ত কর্মীদের ছুটি বাতিল ৷

    আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে এমাসে শুক্রবার পর্যন্ত কলকাতায় বৃষ্টির হার ৫২%। কালীঘাটে বৃষ্টি হয়েছে ৫৩ মিলিমিটার, তপসিয়ায় বৃষ্টি হয়েছে ৫৭ মিলিমিটার, বেহালা ফ্লাইং ক্লাব এলাকায় বৃষ্টি হয়েছে ৭৪ মিলিমিটার, বালিগঞ্জে বৃষ্টি হয়েছে ৪৬ মিলিমিটার, চেতলায় বৃষ্টি হয়েছে ৪৭ মিলিমিটার, যোধপুরে বৃষ্টি হয়েছে ৪৪ মিলিমিটার, বেলগাছিয়ায় বৃষ্টি হয়েছে ৩৪ মিলিমিটার, উলটোডাঙায় বৃষ্টি হয়েছে ৩৫.৬ মিলিমিটার, মোমিনপুরে ৮০ মিলিমিটার ও জিঞ্জিরাবাজারে ৭১ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।

    শনিবারের ভারী বৃষ্টিতে কলকাতার বিভিন্ন অংশে জল জমে যায়। রাস্তায় বেরিয়ে ভোগান্তিতে পড়েন মানুষ। মহেশতলা, একবালপুর, মোমিনপুর, খিদিরপুর, বেহালা, আলিপুর, আউট্রাম ঘাটের মতো এলাকায় জল জমে যাওয়ায় দুর্ভোগ বাড়ে। সকাল থেকে বৃষ্টির পারফরমেন্স বলছে আজও দিনভর জল জমার কারণে চলবে দুর্ভোগ ৷

    First published: