চিকিৎসায় গাফিলতিতে মৃত্য়ুর অভিযোগ, সিএমআরআই হাসপাতালকে ১০ লক্ষ টাকা জরিমানা

চিকিৎসায় গাফিলতিতে মৃত্য়ুর অভিযোগ, সিএমআরআই হাসপাতালকে ১০ লক্ষ টাকা জরিমানা

প্রতীকী ছবি৷

  • Share this:

#কলকাতা: সন্তান প্রসবের পর চিকিৎসায় গাফিলতিতে এক তরুণীর মৃত্যুর অভিযোগে শহরের নামী বেসরকারি হাসপাতালকে ১০ লক্ষ টাকা জরিমানা করল রাজ্য় স্বাস্থ্য কমিশন৷ ক্ষতিপূরণ বাবদ ওই অর্থ রোগীর পরিবারকে দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে৷

গত বছরের ১৭ ফেব্রুয়ারি প্রসব যন্ত্রণা নিয়ে একবালপুরের সিএমআরআই হাসপাতালে ভর্তি হন হাওড়ার বাসিন্দা পিংকি ভট্টাচার্য। পরের দিন অস্ত্রোপচার করে এক কন্যাসন্তানের জন্ম দেন পিংকিদেবী। ওই তরুণীর পরিবারের সদস্য়দের দাবি, মা এবং মেয়েকে সুস্থ অবস্থায় হাসপাতালে দেখে বাড়ি ফিরেছিলেন তাঁরা। অভিযোগ, ১৯ ফেব্রুয়ারি ভোর রাতের দিকে পিংকি দেবীর স্বামীকে হাসপাতাল থেকে ফোন করে বলা হয়,তাঁর স্ত্রীর শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়েছে,অবিলম্বে তাঁরা যেন হাসপাতালে আসেন।

পিংকি দেবীর স্বামী তপেন ভট্টাচার্য সহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা দ্রুত হাসপাতালে পৌঁছন৷ তাঁদের অভিযোগ, তাঁরা যখন পিংকিদেবীর বেডে পৌঁছন,তখন সেখানে কোনও হাসপাতাল কর্মী উপস্থিত ছিলেন না,আর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষও কোনওভাবেই তাঁদেরকে পিংকি দেবীর মৃত্যু সংবাদ দেয়নি। এর পরেই ক্ষোভে ফেটে পড়ে পিংকি দেবীর আত্মীয় পরিজনরা। তাঁদের অভিযোগ,একপ্রকার বিনা চিকিৎসায় মৃত্যু হয়েছে তাঁদের প্রিয়জনের।

একই সঙ্গে পিংকিদেবীর পাশের বেডে চিকিৎসাধীন থাকা এক রোগীর পরিবারও গলা মিলিয়ে জানান, ওইদিন অস্ত্রোপচারের পর রাতে পিংকি দেবীর তীব্র যন্ত্রণা হচ্ছিল, সেই সময় বারবার ডেকেও কোন চিকিৎসক,নার্স বা ওয়ার্ড বয়ের দেখা মেলেনি বলে অভিযোগ।

এর পরই উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে গোটা হাসপাতাল জুড়ে। চিকিৎসায় গাফিলতির অভিযোগ তুলে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন মৃতের আত্মীয় পরিজন। ঘটনাস্থলে ছুটে আসে আলিপুর থানার পুলিশ। দীর্ঘক্ষণ বাদে পরিস্থিতি শান্ত হয়। মৃতের পরিবারের তরফ থেকে আলিপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয় এবং রাজ্য স্বাস্থ্য কমিশনেও সিএমআরআই হাসপাতালের বিরুদ্ধে চিকিৎসায় গাফিলতির অভিযোগ আনা হয়। পাল্টা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ মৃতের পরিবারের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করে। সিসিটিভি ফুুুুটেজ দেখিয়ে অভিযোগ করা হয়, কর্তব্যরত চিকিৎসককে চড় মেরেছেন মৃতের স্বামী।

দু' পক্ষকে বেশ কয়েকবার আলাদাভাবে এবং মুখোমুখি বসিয়ে কথা বলার পর রাজ্য স্বাস্থ্য কমিশন হাসপাতালের গাফিলতিতেই সিলমোহর দেয়।  তদন্তে জানা যায়, অস্ত্রোপচারের পর পেটের ভিতরে রক্ত জমাট বেঁধে গিয়েই মৃত্যু হয়েছিল ওই প্রসূতির। চিকিৎসায় গাফিলতির কারণে ১০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণের নির্দেশ দেন রাজ্য স্বাস্থ্য কমিশনের চেয়ারম্যান অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি  অসীম কুমার বন্দ্যোপাধ্যায়।

Avijit Chanda

Published by:Debamoy Ghosh
First published:

লেটেস্ট খবর