corona virus btn
corona virus btn
Loading

রেশন নিয়ে ফের সরব রাজ্যপাল, কেন্দ্রের দেওয়া চাল-ডালের হিসেব দিলেন ট্যুইটারে

রেশন নিয়ে ফের সরব রাজ্যপাল, কেন্দ্রের দেওয়া চাল-ডালের হিসেব দিলেন ট্যুইটারে
রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়

রাজ্যকে এখনও কত পরিমাণ চাল ও ডাল পাঠানো হয়েছে এবং আগামী দিনে কত পাঠানো হবে তার পরিসংখ্যান তুলে ধরেছেন রাজ্যপাল।

  • Share this:

#কলকাতা: রেশনের কালোবাজারি নিয়ে সরব হওয়ার পর এবার কেন্দ্রের তরফে কত পরিমাণে চাল-ডাল দেওয়া হয়েছে তার পরিসংখ্যান তুলে ধরে টুইট করলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখর। মূলত রাজ্যকে এখনও কত পরিমাণ চাল ও ডাল পাঠানো হয়েছে এবং আগামী দিনে কত পাঠানো হবে তার পরিসংখ্যান তুলে ধরেছেন রাজ্যপাল। তার পাশাপাশি এদিন টুইট করে আবারও মনে করিয়ে দিয়েছেন যাতে সরকারি বণ্টন ব্যবস্থার মাধ্যমে গরিব মানুষরা সঠিক পরিমাণ রেশন পান।

বুধবার পরপর দুটি টুইট করে তিনি বলেন,  "প্রধানমন্ত্রী গরিব কল্যাণ যোজনার মাধ্যমে বিনামূল্যে রেশন মাসিক জনপ্রতি ৫ কেজি চাল এবং পরিবার পিছু১ কেজি ডাল। ইতিমধ্যেই ফুড কর্পোরেশন অফ ইন্ডিয়া ৫৭০২৭৭.৩৪০ মেট্রিক টন চাল এবং নাফেড ১৪৫২৯ মেট্রিক টন ডাল সরবরাহ করে দিয়েছে রাজ্যকে। আগামী মাসগুলোতেও সরবরাহব্যবস্থা যথাযথভাবে চালু থাকবে। জুন মাসে কোন ধরনের ডাল রাজ্যের চাই তা নাফেডকে জানাতে হবে। সবাইকে সুনিশ্চিত করতে হবে যাতে একমাত্র সরকারি বণ্টন ব্যবস্থার মাধ্যমে সঠিক মাত্রা এবং  গুনমানের রেশন গরিব মানুষের হাতে পৌঁছয়।"

রেশন ব্যবস্থা দুর্নীতি থেকে শুরু করে রেশনের কালোবাজারি, বিভিন্ন বিষয় নিয়ে রাজ্যের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন রাজ্যপাল। শুধু তাই নয় রেশনের কালোবাজারির আটকাতে সরকারি আধিকারিকদের রাজনীতির ঊর্ধ্বে উঠে কাজ করার আবেদন রেখেছিলেন রাজ্যপাল। সম্প্রতি রেশন নিয়ে রাজ্যের বিরুদ্ধে কড়া ভাষায় আক্রমণ করেছেন। রেশন ব্যবস্থাকে রাজনীতিকীকরণ করা উচিত নয় বলেও টুইট করে ও চিঠি লিখেও মন্তব্য করেন রাজ্যপাল।

মুখ্যমন্ত্রীর কাছে পাঠানো প্রত্যেকটি চিঠিতেই কার্যত রেশন ব্যবস্থা নিয়ে সরব হয়েছিলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখর।

বুধবার পরপর দুটি টুইট করে এবার রাজ্যকে দেওয়া রেশন ব্যবস্থার মাধ্যমে চাল ও ডালের পরিমাণ উল্লেখ করলেন রাজ্যপাল। তবে আগামী মাসে ও এই রেশন ব্যবস্থা যে জারি থাকবে তাও এদিন টুইট করে কেন্দ্রের মনোভাব স্পষ্ট করে দিয়েছেন রাজ্যপাল।

SOMRAJ BANDOPADHYAY

Published by: Arindam Gupta
First published: May 13, 2020, 11:54 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर