‘সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করুক, নির্দেশ না মানলে কড়া পদক্ষেপ’, যাদবপুর ইস্যুতে রাজ্যপালের হুঁশিয়ারি

‘সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করুক, নির্দেশ না মানলে কড়া পদক্ষেপ’, যাদবপুর ইস্যুতে রাজ্যপালের হুঁশিয়ারি

যাদবপুরের সমাবর্তন নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করে ফের বিতর্কে রাজ্যপাল ধনখড় ৷

  • Share this:

#কলকাতা: যাদবপুরের সমাবর্তন নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করে ফের বিতর্কে রাজ্যপাল ধনখড় ৷ যাদব বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে চিঠি দিয়ে রীতিমতো ‘হুঁশিয়ার’ করলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় ৷ চিঠিতে ধনখড় লিখলেন, ‘ইসির সিদ্ধান্ত বেআইনি ৷ সমাবর্তনের দিন বদল নয় ৷ নির্দেশ না মানলে কড়া পদক্ষেপ নেওয়া হবে ৷’

যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন বাতিলকে কেন্দ্র করে রীতিমতো কড়া ভাষায় জবাব দিলেন রাজ্যপাল জগদীশ ধনখড় ৷ রাজ্যের শিক্ষা ব্যাবস্থায় জরুরি অবস্থা জারি হয়েছে বলে বর্ণনা করলেন তিনি। চ্যালেঞ্জ ছুড়ে তাঁর স্পষ্ট মন্তব্য, আচার্যের অনুমতি না নিয়ে এই সিদ্ধান্ত কী করে নেয় এক্সিকিউটিভ কাউন্সিল (ইসি)। তাঁর মতে, এই অবস্থা কোনও চাপে পড়েই হতে পারে।

আগামী ২৪শে ডিসেম্বর ছিল বিশেষ সমাবর্তন অনুষ্ঠান, আইন শৃঙ্খলা রক্ষার জন্য বাতিল করা হয় সেই অনুষ্ঠান। সোমবার কোর্টের বৈঠক ডাকা হয়েছে। তাঁকে না জানিয়ে কী করে সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইসি, তা নিয়ে প্রশ্ন তুললেন রাজ্যপাল। এই নিয়ে ৫ বার বিভিন্ন অনুষ্ঠানে তাঁকে বাতিল করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন জগদীশ ধনকড়। শনিবার বিকালের সাংবাদিক সম্মেলনে এ রাজ্যে শিক্ষার ডিএনএ নষ্ট করে দেওয়া হচ্ছে বলে তাঁর অভিযোগ। সেটা নষ্ট হলে জাতির মেরুদণ্ড ভেঙে যাবে। সে কাজ যে তিনি করতে দেবেন না, তাও জানালেন রাজ্যপাল ৷ তিনি বললেন চুপ থাকতে পারতেন, তবে আচার্য হিসাবে চুপ থাকা যায় না, বরং চুপ থাকলে শিক্ষার মান নষ্ট হচ্ছে তাই তিনি জবাব চাইবেন। যদিও কি ভাবে তা স্পষ্ট করে জানাননি সংবাদ মাধ্যমকে। তাঁর অভিযোগ, উপাচার্য তাঁর সঙ্গে কথা বলতে পারেন। তিনি সবার সঙ্গে কথা বলতে প্রস্তুত। সবশেষে তার মন্তব্য রাজ্যপালের ক্ষমতাকে সংবিধান অনুযায়ী অস্বীকার করা যায় না।

জল্পনা চলছিল কয়েকদিন ধরেই। শেষমেষ রাজ্যপাল তথা আচার্যকেই সমাবর্তনে এড়িয়ে গেল যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়। আগামী ২৪ ডিসেম্বর যাদবপুুরে সমাবর্তনে রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় উপস্থিত হলে ক্যাম্পাসেে অশান্তি ও বিশৃঙ্খলা তৈরি হতে পারে। কেননা এসএফআই-সহ বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়াদের প্রত্যেকটি সংগঠনই সমাবর্তনে রাজ্যপালকে বয়কটের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। শুধু তাই নয়, ক্যাম্পাসে রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় এলে তাঁকে কালো পতাকা দেখিয়ে বিক্ষোভ করা হবে। এতেই বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ অশান্তির আশঙ্কা করছেন। তাই বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সমাবর্তনের স্পেশাল কনভোকেশন অংশটি পিছিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

First published: December 22, 2019, 7:22 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर