কলকাতা

corona virus btn
corona virus btn
Loading

‘মমতাকেই ফের মুখ্যমন্ত্রী দেখতে চাই’, প্রকাশ্যে এসেই এনডিএ ছাড়ার ঘোষণা ফেরার বিমল গুরুঙের

‘মমতাকেই ফের মুখ্যমন্ত্রী দেখতে চাই’, প্রকাশ্যে এসেই এনডিএ ছাড়ার ঘোষণা ফেরার বিমল গুরুঙের

প্রায় ৩ বছর ধরে পুলিশের খাতায় ফেরারের তালিকায় নাম বিমল গুরুংয়ের ৷ সাংবাদিক সম্মেলন করে সরাসরি এনডিএ ছাড়ার ঘোষণা গোর্খা জনমুক্তি মোর্চা ‘সুপ্রিমো’র ৷

  • Share this:

#কলকাতা: উৎসবের মরশুমেই জোর ধাক্কা রাজ্যের গেরুয়া শিবিরে ৷ ২১- এর আগে পাহাড়ের রাজনীতিতে জোর চমক৷ তিন বছর অজ্ঞাতবাসে থাকার পর বুধবার প্রকাশ্যে এসেই চমক ‘ফেরার’ বিমল গুরুঙের ৷ সাংবাদিক সম্মেলন করে সরাসরি এনডিএ ছাড়ার ঘোষণা গোর্খা জনমুক্তি মোর্চা ‘সুপ্রিমো’র ৷

পাহাড়ের নেতা বিমল গুরুংয়ের সাংবাদিক সম্মেলনে এদিন চমকে দেওয়া ঘোষণা ৷ তিনি বলেন,‘প্রতিশ্রুতি পূরণ করেননি মোদি-শাহ ৷ গোর্খাল্যান্ডের জন্য কিছু করেনি বিজেপি ৷এনডিএ ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিলাম ৷’ এখানেই শেষ নয়, আরও এক পা এগিয়ে গুরুং এও বলেন, ‘২০২১-এ তৃণমূলের সঙ্গে জোট বেঁধে লড়ব ৷ মমতাকেই ফের মুখ্যমন্ত্রী দেখতে চাই ৷’

একইসঙ্গে নিজের দাবিও স্পষ্ট করেছেন গুরুং, ‘পাহাড়ের স্থায়ী সমাধান গোর্খাল্যান্ড ৷গোর্খাল্যান্ডের দাবি থেকে সরছি না ৷ আমি দেশদ্রোহী নই, রাজনীতিবিদ ৷’ তৃণমূল সরকারের সঙ্গে দূরত্ব-বিরোধিতা নিয়ে প্রশ্ন করা হলে তাঁর সাফ জবাব, ‘রাজনীতিতে কেউ স্থায়ী শত্রু বা বন্ধু নয়। স্থায়ী সমাধান যে করবে, সেই পার্টিকেই সমর্থন করব। ২০২৪-এ গোর্খাল্যান্ডের দাবি যে মানবে,তাকেই সমর্থন করব ৷’

রাজনৈতিক ময়দান তো নয়, যেন সিরিয়ালের মোড় ঘোরানো এপিসোড ৷ এক ঝটকায় বদলে গেল পাহাড়ের সমীকরণ ৷প্রায় ৩ বছর ধরে পুলিশের খাতায় ফেরারের তালিকায় নাম বিমল গুরুংয়ের ৷  ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বর মাসের পর থেকে বিমল গুরুংকে আর দেখা যায়নি ৷ অবশেষে ২০২০ সালের পঞ্চমীর সন্ধ্যায় সল্টলেকের গোর্খা ভবনের সামনে আচমকাই উদয় মোর্চা সভাপতি বিমল গুরুংয়ের ৷ দুপুরেই শোনা গিয়েছিল তার ঘোষণা, সাংবাদিক সম্মেলন করতে চান মোর্চা সুপ্রিমো ৷

‘গোর্খাল্যান্ড’ আন্দোলনের নামে পাহাড়ের পরিস্থিতি অশান্ত হওয়ার পর থেকেই দূরত্ব বেড়েছিল তৃণমূল সরকারের সঙ্গে গুরুংয়ের ৷ ২০১৭ সালের ৮ জুন। দার্জিলিঙে মন্ত্রিসভার বৈঠক ঘিরে উত্তাল হয় পাহাড়। শুরু হয় অনির্দিষ্টকালের বনধ। জিজেএম সভাপতিকে গ্রেফতার করতে পুলিশের অভিযান। সেই অভিযানে গিয়ে মৃত্য়ু হয় পুলিশকর্মী অমিতাভ মালিকের। খুন-রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র - দাঙ্গা- রাষ্ট্রদ্রোহিতা --গুরুংয়ের বিরুদ্ধে কমবেশি ১৩০টি মামলা ঝুলছে।

গুরুং গা ঢাকা দেওয়ার পর থেকেই বিজেপি নেতৃত্বের সঙ্গে তাঁর যোগাযোগ রয়ে গিয়েছিল বলে খবর ৷ অজ্ঞাতবাসের এই সময়ে কখনও দিল্লিতে, কখনও বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নড্ডার ছেলের বিয়ের অনুষ্ঠান, প্রকাশ্যে হাতেগোনা এই কয়েকবারই দেখা গিয়েছে বিমল গুরুংকে ৷ অন্যদিকে, লোকসভা ভোটের পর থেকে উত্তরবঙ্গে শক্তি বেড়েছে বিজেপির।২০১৯ সালে গুরুংয়ে বাছাই রাজু বিস্তাই হন বিজেপি প্রার্থী। সেই গুরুংয়েরই বিজেপির হাত ছেড়ে ২১-এর ভোটের আগে শিবির বদলের ঘোষণায় পাহাড়ের রাজনীতিতে বড়সড় ট্যুইস্ট ৷ উল্লেখ্য, বিমল গুরুং ফেরার হওয়ার পরেই গোর্খাল্যান্ড আন্দোলন স্তিমিত হয়ে যায় ৷ তৃণমূল সরকারের সঙ্গে বৈরিতা ত্যাগ করায় গোর্খাল্যান্ড টেরিটরিয়াল অ্যাডমনিস্ট্রেশন (জিটিএ)-র প্রধানের দায়িত্ব পান বিনয় তামাং। এমতাবস্থায় তিন বছর পর আচমকা ফেরার গুরুংয়ের আগমনে নতুন করে চমক রাজ্য রাজনীতিতে ৷

Published by: Elina Datta
First published: October 21, 2020, 8:22 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर