কন্যা সন্তানকে জন্ম থেকেই দিন ফলিক অ্যাসিড, ভবিষ্যৎ প্রজন্মে ঠেকানো যাবে ডাউন সিনড্রোম

কন্যা সন্তানকে জন্ম থেকেই দিন ফলিক অ্যাসিড, ভবিষ্যৎ প্রজন্মে ঠেকানো যাবে ডাউন সিনড্রোম
Photo: News 18 Bangla

সম্প্রতি একটি মার্কিন জার্নালে এই গবেষণা স্বীকৃতি পেয়েছে। চিকিৎসা বিজ্ঞানে যা এক ধরনের জটিল জেনেটিক ডিসঅর্ডার হিসেবে পরিচিত।

  • Share this:

#কলকাতা: শুধু গর্ভবতী মহিলাদের নয়, কন্যা সন্তানকে জন্ম থেকেই খাওয়াতে হবে ফলিক অ্যাসিড। তাহলেই ভবিষ্যৎ প্রজন্মের মধ্যে ঠেকানো যাবে ডাউন সিনড্রোমের মতো জিনগত সমস্যা। ডাউন সিনড্রোম মোকাবিলায় পথ দেখাল কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের জুলজি বিভাগের গবেষণা। সম্প্রতি একটি মার্কিন জার্নালে এই গবেষণা স্বীকৃতি পেয়েছে। চিকিৎসা বিজ্ঞানে যা এক ধরনের জটিল জেনেটিক ডিসঅর্ডার হিসেবে পরিচিত। জিনগত এই সমস্যায়,

- শিশুর স্বাভাবিক মানসিক বিকাশ হয় না

- জন্ম থেকেই হৃদযন্ত্র ও কিডনিতে সমস্যা থাকে

- শিশুর দৃষ্টিশক্তিও অস্বচ্ছ থাকে

- এমনকি কম বয়সেই দেখা দিতে পারে অ্য়ালঝাইমারের উপসর্গ

এতো গেল শারীরিক সমস্যা। অনেকক্ষেত্রে সামাজিকভাবেও অচ্ছূত থেকে যান ডাউন সিনড্রোম আক্রান্তরা। এই জেনেটিক ডিসঅর্ডার বা জিনগত সমস্যা ঠেকাতে ফলিক অ্যাসিড বা ভিটামিন B-9 এর উপর নির্ভরশীল চিকিৎসকরা।

- গর্ভবতী মহিলাদের ফলিক অ্যাসিড খাওয়ানো হয়

- ভ্রুণের মস্তিস্ক ও স্নায়ুতন্ত্রের গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নেয় ফলিক অ্যাসিড

কিন্তু এরপরও পুরোপুরি ঠেকানো যাচ্ছে যা ডাউন সিনড্রোমের প্রকোপ। ভারত-সহ গোটা বিশ্বেই জিনগত এই সমস্য়া নিয়েই জন্মাচ্ছে লক্ষ লক্ষ শিশু। এই পরিস্থিতিতে ডাউন সিনড্রোম ঠেকাতে পথ দেখাল কলকাতা বিশ্ববিদ্য়ালয়ের জুলজি বিভাগের যুগান্তকারী গবেষণা। সম্প্রতি একটি মার্কিন গবেষণাপত্রে স্বীকৃতি পেয়েছে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের জুলজি বিভাগের এই গবেষণা। পরিসংখ্যান বলছে, গোটা বিশ্বে প্রতি ৬০০ শিশুর মধ্যে একজন ডাউন সিনড্রোমে আক্রান্ত। এই মুহূর্তে ভারতেই ডাউন সিনড্রোমের শিকার চল্লিশ হাজারেরও বেশি শিশু। এই পরিস্থিতিতে জিনগত এই সমস্যা মোকাবিলায় বড় হাতিয়ার হয়ে উঠতে পারে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের জুলজি বিভাগের এই গবেষণা।

First published: 05:47:05 PM Aug 15, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर