কলকাতা

?>
corona virus btn
corona virus btn
Loading

২৭ মে থেকেই খুলতে চলেছে গড়িয়াহাট হকার্স মার্কেট, শুরু হয়ে গেল তোড়জোড়

২৭ মে থেকেই খুলতে চলেছে গড়িয়াহাট হকার্স মার্কেট, শুরু হয়ে গেল তোড়জোড়

সোমবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় ঘোষণা করেন চলতি মাসের ২৭ তারিখ থেকে খুলবে হকার্স মার্কেট। তবে জোড় বিজোড় ভিত্তিতে একদিন অন্তর দোকান খুলতে পারবেন হকাররা।

  • Share this:

SOUJAN MONDAL

#কলকাতা:  মার্কেট খুললে কেমন হবে তার নতুন রূপ?

২৭ মে থেকে খুলবে হকার্স মার্কেট। কিন্তু করোনা ভাইরাস পরবর্তী সময় কী ভাবে করা যাবে ব্যবসা? অবশ্যই পড়তে হবে মাস্ক, হাতে গ্লভস, আর দোকানে রাখতে হবে স্যানিটাইজার। মঙ্গলবার গড়িয়াহাট হকার্স মার্কেটের সব কটি ইউনিয়ন মিলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে, এই ভাবেই খুলতে হবে দোকান।

মার্চ মাসে ২২ তারিখ প্রধানমন্ত্রীর ডাকে দেশজুড়ে পালিত হয়েছিল জনতা কার্ফু। তারপরের দিন থেকে শুরু হয়েছিল লকডাউন। তখন থেকেই বন্ধ শহরের সব হকার্স মার্কেট। চৈত্র সেলে যে বিরাট অঙ্কের ব্যবসা শহর জুড়ে হকাররা করে থাকেন তা এবার করোনা ভাইরাসের জন্য সম্ভব হয়নি। লকডাউনের জন্য অনেকেই পয়লা বৈশাখ বা অক্ষয় তৃতীয়াতে হালখাতাও করে উঠতে পারেননি। দীর্ঘ দু’মাস ব্যবসা বন্ধ থাকায় অনেক হকার চরম আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছেন। এখন চতুর্থ দফার লকডাউন চলছে। তার মধ্যেই খুলতে চলেছে হকার্স মার্কেট। সোমবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় ঘোষণা করেন চলতি মাসের ২৭ তারিখ থেকে খুলবে হকার্স মার্কেট। তবে জোড় বিজোড় ভিত্তিতে একদিন অন্তর দোকান খুলতে পারবেন হকাররা।

বিশ্বজুড়ে বিশেষজ্ঞরা বলছেন করোনা ভাইরাস পরবর্তী পৃথিবী আর আগের ছন্দে চলবে না। তাই কেমন করে ভবিষ্যতে দোকান চালাতে হবে তা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করল গড়িয়াহাটের হকার্স ইউনিয়নের সদস্যরা। সেখানে ঠিক হয়, মুখ্যমন্ত্রীর কথা মতোই জোড় বিজোড় পদ্ধতিতেই একদিন অন্তর দোকান খুলতে পারবেন হকাররা। প্রত্যেক হকারকে মুখে মাস্ক অবশ্যই পড়তে হবে, সঙ্গে পড়তে হবে গ্লাভসও। আর দোকানে রাখতে হবে স্যানিটাইজার। গড়িয়াহাটের তিনটি হকার্স ইউনিয়নের পক্ষ থেকে দেবরাজ ঘোষ বলেন, 'দোকানগুলোর ক্রমিক সংখ্যা গড়িয়াহাট হকার্স মার্কেটে আগে থেকেই রয়েছে। ফলে জোড় বিজোড় নিয়ে আমাদের বেশি ভাবতে হবে না। কিন্তু সমস্যা হচ্ছে ২ মিটার সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা। অনেক দোকানের সামনে ২ মিটার জায়গা নেই। এইসব বিষয়গুলো নিয়ে আরও বিস্তারিত আলোচনা প্রয়োজন। তবে মুখ্যমন্ত্রীর অনুমোদন পাওয়ার পর আমরা আর দোকান বন্ধ রাখতে চাই না।'

হকার্স মার্কেট খোলার পর আর যেন কোনও রকম জটিলতা না হয় তার জন্য হকার্স ইউনিয়ন, পুরসভা এবং পুলিশ একসঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে কিভাবে দোকান খুললে সবকিছু বজায় সম্ভব তা ঠিক করা হবে বলে জানান দেবরাজ ঘোষ।

Published by: Simli Raha
First published: May 19, 2020, 7:25 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर