বাসস্ট্যান্ড না বিমানবন্দর! রেস্তোঁয়া-লাউঞ্জ নিয়ে শহরের এই বাসস্ট্যান্ড উদ্বোধনের অপেক্ষায়

বাসস্ট্যান্ড না বিমানবন্দর! রেস্তোঁয়া-লাউঞ্জ নিয়ে শহরের এই বাসস্ট্যান্ড উদ্বোধনের অপেক্ষায়
প্রতীকী ছবি: সংগৃহীত

৬ নম্বর বাসস্ট্যান্ড চেনা দায়। চালু হয়ে যেতে পারে আগামীকালই।

  • Share this:

ABIR GHOSHAL

#কলকাতা: বাস স্ট্যান্ড না বিমানবন্দর!

আজকাল পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় যে কেউই চমকে উঠছেন গড়িয়া নতুন বাসস্ট্যান্ড দেখে। দেড় বছর আগে শুরু হওয়া গড়িয়া বাস টার্মিনাসের আধুনিকীকরণের কাজ প্রায় শেষ। বিমানবন্দরের আদলে তৈরি আধুনিক ওই বাস টার্মিনাস আগামিকাল চালু হতে পারে। পরিবহণ দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, দক্ষিণ কলকাতার যাদবপুর, গড়িয়া এবং করুণাময়ী বাস টার্মিনাসকে ঢেলে সাজানোর পরিকল্পনা করা হয়েছিল। যাদবপুর টার্মিনাস আগেই চালু হয়েছে। এবার গড়িয়ার বাস টার্মিনাসটি চালু করে দেওয়া হচ্ছে।

নতুন এই বাস স্ট্যান্ডে কি কি থাকছে?

আধুনিক মানের পার্কিং লট, প্রতীক্ষালয়, রেস্তোরাঁ, ডিজিটাল ডিসপ্লে বোর্ড, শৌচালয় সবই রয়েছে অত্যাধুনিক এই বাস স্ট্যান্ডে। গড়িয়ার এই বাস স্ট্যান্ড থেকে একাধিক রুটের বাতানুকূল বাস পরিষেবা চালু হয়েছে। বিমানবন্দর ছাড়াও সল্টলেক সেক্টর ফাইভ, নিউটাউন, রাজারহাট, ইকো স্পেস, বারাসত, বেলুড় মঠ, হাওড়া স্টেশন-সহ একাধিক রুটের বাতানুকূল বাস ছাড়ে এখান থেকে। দক্ষিণবঙ্গ পরিবহণ নিগমের দূরপাল্লার বাসও ছাড়ে এই টার্মিনাস থেকে।

পরিবহণ দফতরের মতে, গুরুত্বপূর্ণ বাসস্ট্যান্ড হিসেবে গড়িয়ার গুরুত্ব গত কয়েক বছরে অনেকটাই বেড়েছে। কাছাকাছি বেসরকারি বাসস্টপও রয়েছে। প্রতিদিন প্রায় এক লক্ষ যাত্রী গড়িয়া থেকে বিভিন্ন গন্তব্যে যাতায়াত করেন। হাওড়া-সহ বেশ কয়েকটি রুটের নাইট সার্ভিস বাস পাওয়া যায় এখান থেকে। বাস স্ট্যান্ডের কাছেই আছে মেট্রো স্টেশন। ফলে সকলের পরিচিত ৬ নম্বর বাসস্ট্যান্ডকে টার্মিনাসে বদলের প্রয়োজন ছিল বলেই মনে করছেন পরিবহণ দফতরের আধিকারিকরা।

ওয়েস্ট বেঙ্গল ট্রান্সপোর্ট ইনফ্রাস্ট্রাকচার কমিটি সূত্রে খবর, যাত্রীদের প্রয়োজনের কথা মাথায় রেখেই বিমানবন্দরের ধাঁচে ডিজাইন করা হয় এই টার্মিনাসটির। ঝাঁ চকচকে লাউঞ্জে রয়েছে ডিজিটাল ডিসপ্লে বোর্ড। হাল্কা গান বাজানো হবে লাউঞ্জের সর্বত্র। দোতলা টার্মিনাসের উপরের তলায় থাকছে গাড়ি এবং মোটরবাইক রাখার জায়গা অর্থাৎ পার্কিং লট। বিমানবন্দরের মতো উপরের টার্মিনাসের পার্কিং লটে যেতে হবে লম্বা র‌্যাম্প পেরিয়ে। এছাড়া যাত্রী সুরক্ষার কথা মাথায় রেখে, আধুনিক অগ্নি-নির্বাপণ ব্যবস্থা, ইলেকট্রিক বাসের চার্জিং স্টেশন, রক্ষণাবেক্ষণ এবং মেরামতির জন্য থাকছে আধুনিক সার্ভিস স্টেশন। পুরো প্রক্রিয়াটিকে পরিবেশ বান্ধব করতে টার্মিনাসে বসানো হয়েছে সৌর বিদ্যুতের প্যানেলও। যেখান থেকে সরাসরি গ্রিডে বিদ্যুৎ জোগান দেওয়া যাবে। ফলে সমগ্র বাস টার্মিনাসের বিদ্যুৎ খরচও অনেকটা কমে যাবে। পরিবহণ দফতর সূত্রে খবর ধাপে ধাপে রাজ্যের একাধিক গুরুত্বপূর্ণ বাস স্ট্যান্ডগুলি এভাবেই বদলে ফেলা হবে।

First published: March 5, 2020, 9:16 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर