নন্দীগ্রাম-নেতাই নিয়ে বছরের প্রথম দিন থেকেই সরগরম রাজ্য রাজনীতি 

নন্দীগ্রাম-নেতাই নিয়ে বছরের প্রথম দিন থেকেই সরগরম রাজ্য রাজনীতি 

Photo-File

৭ জানুয়ারি সেখানে সভা করবেন সদ্য তৃণমুল ত্যাগী, অধুনা বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারী। তৃণমুলের তরফ থেকে হাজির থাকবেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়। এছাড়া মদন মিত্র হাজির থাকবেন।

  • Share this:

#নন্দীগ্রাম: নন্দীগ্রামের পড়ে এবার রাজনৈতিক লড়াই শুরু নেতাই নিয়ে। ২০১১ সালে ৭ জানুয়ারি জঙ্গলমহলের নেতাই গ্রামে গুলি চালানোর ঘটনা ঘটে। সিপিএম নেতা রথীন দন্ডপাটের বাড়ি থেকে গুলি চালানোর অভিযোগ ওঠে। তাতে বেশ কয়েকজন গ্রামবাসীর মৃত্যু হয়। বাম আমলের শেষ দিকে এই ঘটনায় রাজনৈতিক মহলে ব্যাপক চাপানউতোর শুরু হয়। তৃণমুল ক্ষমতায় আসার পরে প্রতি বছর ওই দিনটি নেতাইয়ের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে অনুষ্ঠান আয়োজন করে৷ দলের তরফ থেকে এই অনুষ্ঠানে হাজির থাকতেন প্রতি বছর শুভেন্দু অধিকারী। কখনও কখনও তৃণমুল সুপ্রিমো মমতা বন্দোপাধ্যায়, দলের মহাসচিব  পার্থ চট্টোপাধ্যায় হাজির থেকেছেন। এবার সেই অনুষ্ঠান নিয়েও শুরু রাজনৈতিক লড়াই।

৭ জানুয়ারি সেখানে সভা করবেন সদ্য তৃণমুল ত্যাগী, অধুনা বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারী। তৃণমুলের তরফ থেকে হাজির থাকবেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়। এছাড়া মদন মিত্র হাজির থাকবেন। শুভেন্দু অধিকারী জানিয়েছেন, তিনি সারাবছর যোগাযোগ রাখেন নেতাইয়ের মানুষের সাথে। বিপদে তিনি পাশে ছিলেন। অন্যদিকে তৃণমুলের ব্যাখ্যা লড়াই চালিয়েছে দল। সেই বার্তা দেওয়া হবে সেদিনের শহীদ স্মরণ অনুষ্ঠান থেকে। নন্দীগ্রামের পরে নেতাই নিয়ে একই দিনে তৃণমুল বনাম বিজেপির হাই ভোল্টেজ সভা ঘিরে সরগরম অবিভক্ত মেদিনীপুর।একই রাজনৈতিক লড়াই শুরু নন্দীগ্রাম ঘিরেও। আগামী ৭ জানুয়ারি সভা করবে শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস। ওই দিন ভোর বেলা নন্দীগ্রামে শহীদদের শ্রদ্ধা জানাবেন সুব্রত বক্সী ও পার্থ চট্টোপাধ্যায়। পাল্টা সভা করবে বিজেপিও।

শুভেন্দু অধিকারী জানিয়েছেন, "আগামী ৮ তারিখ শক্তি দেখাব। লাখো মানুষের ভিড় হবে ওখানে।" বিজেপির নন্দীগ্রামের সভায় দিলীপ ঘোষ, মুকুল রায়, কৈলাশ বিজয়বর্গী উপস্থিত থাকবেন বলে জানা গিয়েছে। শুভেন্দু অধিকারী এদিন নন্দীগ্রামের মানুষের উদ্দেশ্যে জানিয়েছেন, "আমাদের সভায় আপনারা সবাই আসবেন। যদি কেউ আপনাদের আটকায় তাহলে আমাকে ফোন করবেন। আমি পৌছে যাব।" বিজেপি লাখো মানুষের সমাবেশের কথা বললেও, তাকে টিপ্পন শুনিয়েছেন নন্দীগ্রামের তৃণমুল নেতা আবু সুফিয়ান। তিনি জানিয়েছেন, "নন্দীগ্রামের কোনও মানুষ ওই দিন যাবে না। বাঁকুড়া, পুরুলিয়া, মালদা, মুর্শিদাবাদ থেকে লোক নিয়ে আসবে ওরা।" ফলে নেতাই ও নন্দীগ্রাম নিয়ে রাজনৈতিক চাপানউতোর শুরু বছরের প্রথম দিন থেকেই।

ABIR GHOSHAL

Published by:Debalina Datta
First published:

লেটেস্ট খবর