corona virus btn
corona virus btn
Loading

একরত্তি সন্তানকে ফেরত পেতে ৪ লক্ষ টাকা দাবি বন্ধুর! পুলিশের দ্বারস্থ যৌনকর্মী

একরত্তি সন্তানকে ফেরত পেতে ৪ লক্ষ টাকা দাবি বন্ধুর! পুলিশের দ্বারস্থ যৌনকর্মী
প্রতীকী ছবি

পেটের জ্বালায় কাজ খুঁজে না পেয়ে দীর্ঘদিনের এক বন্ধুর উপর ভরসা করেছিলে। সেই বন্ধুই যে তাঁর এত বড় সর্বনাশ করবে, তা তিনি কল্পনা করতে পারেননি।

  • Share this:

#কলকাতাঃ দিনের পর দিন সংসারে অশান্তি। বনিবনা হচ্ছিল না স্বামীর সঙ্গে। তাই সংসার ছেড়ে কাজের খোঁজে কলকাতায় চলে এসেছিলেন যুবতী। পেটের জ্বালায়  কাজ খুঁজে না পেয়ে দীর্ঘদিনের এক বন্ধুর উপর ভরসা করেছিলে। সেই বন্ধুই যে তাঁর এত বড় সর্বনাশ করবে, তা তিনি কল্পনা করতে পারেননি।

যুবতীর অভিযোগ, কলকাতায় আসার পর দীর্ঘদিন কাজ না থাকায় বাধ্য হয়েই বন্ধুর ওপর নির্ভর করতে হয়েছিল তাঁকে। সেই বন্ধুই পরিচারিকার কাজ পাইয়ে দেবেন বলে একাধিকবার প্রতিশ্রুতি দেয়। কিন্তু তা মেলেনি। বদলে বন্ধুর জন্যই তাঁকে দেহ ব্যবসায় নামতে হয়। হাতে টাকা না থাকায়, মাত্র আট মাসের মেয়ের মুখের দিকে তাকিয়ে, সেই কাজ শুরু করেন তিনি।

যুবতী জানিয়েছেন, প্রথমে তিনি তাঁর সন্তানকে আয়ার কাছে রাখতেন। কিন্তু ওই বন্ধুই তাঁকে অনুরোধ করেন টাকা খরচের প্রয়োজন নেই। বরং সন্তান থাকুক তার কাছেই। বন্ধুর থেকে এহেন প্রস্তাব পেয়ে পরম নিশ্চিন্ত হয়েছিলেন তিনি। সন্তানের কোনও অবহেলা হবে না ভেবেই যখন যা রোজগার করেছেন তুলে দিয়েছেন ওই বন্ধুর হাতে। কিন্তু সমস্যা বাধে কিছু দিনের মধ্যেই।

যুবতী পুলিশকে জানিয়েছে, মেয়ের যাতে কোনও অসুবিধা না হয়, তাই প্রতি মানে প্রচুর টাকা তিনি বন্ধুর হাতে তুলে দিতেন। টাকার বিনিময়ে সন্তানকে রাখার কথা থাকলে, তা অস্বীকার করেন বন্ধু। এমনকি মেয়েকে দেখতে চাইলে, তাঁকে দেখতে পর্যন্ত দেওয়া হত না। আরও অভিযোগ, ভিডিও কলে সন্তানকে দেখানো হলে মেয়ের কাছে তিনি কোনভাবেই পৌঁছতে পারবেন না বলে সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়। জানানো হয় নবদ্বীপে রয়েছে তাঁর মেয়ে। এরপর অভিযোগকারী যৌনকর্মী বন্ধুর থেকে পাকাপাকিভাবে নিজের সন্তান ফেরত চাইতেই শুরু হয় চরম অশান্তি। অভিযোগ, মেয়েকে তাঁর কাছে দিতে অস্বীকার করে বন্ধু। বারবার বিভিন্নভাবে চাইলে টাকার দাবি বাড়তে থাকে। জানানো হয় চার লক্ষ টাকা দিলে, তবেই সন্তানকে ফেরত পাবেন তিনি। এমনকি থানায় এ বিষয়ে জানিয়ে কোনও লাভ হবে না বলে হুমকি দেওয়া  হয়।

এরপর অসহায় মা লালবাজারে অভিযোগ দায়ের করেন। পাশাপাশি, ডিসি নর্থ এবং রাজ্যের মন্ত্রী শশী পাঁজাকেও চিঠি দেন। ঘটনার কথা জানতে পেরেই তৎপর হন মন্ত্রী। তিনি পুরো ঘটনার দ্রুত তদন্তের আবেদন জানান থানাকে। অভিযুক্তদের যথাযত শান্তির কথাও বলা হয়। শশী পাঁজা বলেন, "শিশুটিকে উদ্ধার করা চেষ্টা চলছে, পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।" এদিকে, ঘটনার তদন্তে নেমে পুলিশ দু'পক্ষকেই বড়তলা থানায় ডেকে পাঠায়। অভিযুক্তদের কথায় অসঙ্গতি মেলায় ২ জনকে আটক করা হয়েছে।

Susovan Bhattacharjee

Published by: Shubhagata Dey
First published: August 9, 2020, 11:29 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर