Home /News /kolkata /
চিকিৎসার গাফিলতিতেই মৃত্যু হয় আড়াই বছরের ঐত্রি দে'র: ফরেনসিক রিপোর্ট

চিকিৎসার গাফিলতিতেই মৃত্যু হয় আড়াই বছরের ঐত্রি দে'র: ফরেনসিক রিপোর্ট

File Photo

File Photo

চিকিৎসার গাফিলতিতেই মৃত্যু হয় আড়াই বছরের ঐত্রি দে'র। তা ফের স্পষ্ট হল ফরেনসিক বিশেষজ্ঞর রিপোর্টে।

  • Share this:

    #কলকাতা: চিকিৎসার গাফিলতিতেই মৃত্যু হয় আড়াই বছরের ঐত্রি দে'র। তা ফের স্পষ্ট হল ফরেনসিক বিশেষজ্ঞর রিপোর্টে। ফরেনসিক বিশেষজ্ঞর রিপোর্টে স্পষ্ট, চিকিৎসার প্রাথমিক বিধিটুকুও মানা হয়নি ঐত্রির ক্ষেত্রে। অ্যালার্জি রিপোর্ট না দেখেই ঐত্রির চিকিৎসা শুরু হয়। ইঞ্জেকশনও দেওয়া হয়। তার জেরেই মৃত্যু ছোট্ট ঐত্রির।

    মুকুন্দপুরের বেসরকারি হাসপাতালে মৃত্যু হয়েছিল ঐত্রির। ময়নাতদন্তের রিপোর্টে চিকিৎসায় গাফিলতির উল্লেখ ছিল। সেই পথে হেঁটেই প্রখ্যাত ফরেনসিক মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ও প্রাক্তন সরকারি আধিকারিক অজয় কুমার দে জানিয়ে দিলেন ছোট্ট ঐত্রির মৃত্যুর কারণ চিকিৎসায় চূড়ান্ত গাফিলতি । যাবতীয় মেডিক্যাল রিপোর্ট ও পোস্ট মর্টেম রিপোর্টের ভিত্তিতেই তৈরি হয়েছে এই রিপোর্ট। এখানে স্পষ্ট, দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসকের গাফিলতিতেই চরম পরিণতি আড়াই বছরের ঐত্রির। অ্যালার্জি পরীক্ষার রিপোর্ট ছিল না। রিপোর্ট না দেখেই ইনজেকশনও দেয় মুকুন্দপুরের বেসরকারি হাসপাতাল। চিকিৎসার প্রাথমিক শর্তটুকুও মানা হয়নি বলে স্পষ্ট হয়েছে রিপোর্টে। অ্যালার্জির লক্ষণ রয়েছে কিনা সেই পরীক্ষা আগেই করানো উচিত ছিল তার পরেই ইনজেকশন দেওয়া যায় ঐত্রির ক্ষেত্রে তা মানা হয়নি এই কারণেই ঐত্রির শরীরে হাইপার সেনসিটিভিটি তৈরি হয় ঐত্রির দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসকের গাফিলতিও স্পষ্ট রিপোর্টে। এখানে জানানো হয়েছে আমরি হাসপাতালের নথি ও পোস্ট মর্টেম রিপোর্ট খতিয়ে দেখার পর এটা পরিষ্কার অ্যান্টিবায়োটিক ইনজেকশনের বিষক্রিয়াতেই মৃত্যু হয়েছে ঐত্রি দে-র. 15 জানুয়ারি দুপুর 12.45 থেকে 16 জানুয়ারি রাত 11.45-এর মধ্যে তিনবার দেওয়া হয় এই ইনজেকশন. শুশির ফুসফুস, হৃদযন্ত্র, মস্তিষ্ক ও পেটের পোস্ট মর্টেম রিপোর্টে বিষক্রিয়ার প্রমাণ মিলেছে. ঐত্রির অ্যালার্জি রিপোর্টের জন্য অপেক্ষা না করেই অ্যান্টিবায়োটিক ইনজেকশন দেন চিকিত্সক জয়তী সেনগুপ্ত. শিশুর অবস্থা দেখে বিকল্প চিকিত্সার পরামর্শ দেওয়া উচিত ছিল তাঁর. শিশু বিভাগের ইনচার্জ হওয়া সত্ত্বেও চরম গাফিলতির নিদর্শন রেখেছেন জয়তী সেনগুপ্ত ঐত্রির মৃত্যুর পর বারবার চিকিৎসায় গাফিলতির অভিযোগ তুলেছিল পরিবার। তা নিয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের হুমকির মুখেও পড়তে হয় তাদের। ঐত্রির মৃত্যুতে রাজ্য মেডিক্যাল কমিশনে অভিযোগ দায়ের করেছেন ঐত্রির বাবা-মা। বুধবার ফরেনসিক রিপোর্টের কপিও কমিশনে জমা দেবেন তাঁরা। মেয়ের মৃত্যুর বিচারের দিকেই আপাতত তাকিয়ে ঐত্রির বাবা-মা।

    First published:

    Tags: FORENSIC REPORT, Negligence in Treatment, OITRI DEY DEATH REPORT

    পরবর্তী খবর