• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • ভয় পাওয়ার কিছু নেই, কাকে বলছে কলকাতা !

ভয় পাওয়ার কিছু নেই, কাকে বলছে কলকাতা !

Photo- File

Photo- File

পেপ টক তপন কুমার নাথের

  • Share this:

# কলকাতা :  লক্ষ্মীবারে প্রথম ছুট। ঠিক তিন দশক পর নতুন সাজে।সল্টলেক সেক্টর ফাইভ থেকে সল্টলেক স্টেডিয়াম পর্যন্ত  দৌড়বে ইস্ট ওয়েস্ট মেট্রো।

৩৬ বছর আগে, ১৯৮৪ সালের ২৪ অক্টোবর কলকাতা প্রথম ছুটেছিল মেট্রো। সেইসময় রেলের এই প্রজেক্টের নাম ছিল উত্তর-দক্ষিণ মেট্রো। এবার পালা পূর্ব-পশ্চিমের। শুরুর আগের দিন সবচেয়ে বেশি টেনশনে আছেন মেট্রোর চালক ও গাড। আর তাঁদের জন্যই পেপ টক নিয়ে হাজির তপন কুমার নাথ।

কে তপন কুমার নাথ ? তাঁর সঙ্গে মেট্রোর সম্পর্ক কী ভাবে ?  ৩৬ বছর আগে তাঁর হাতেই  শুরু হয়েছিল পাতাল রেল। আর তাঁকে সাহায্য করেছিলেন সঞ্জয় শীল। তাঁদের ট্রেনিং হয়েছিল মস্কোয়। টানা চার মাস। শীতকালে মাইনাস ২০ ডিগ্রি  তাপমাত্রায়।

মাটির উপরে ও নীচে রেক চালানোর প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। পাভলোভিচ নামে এক মস্কো মেট্রোরেলের ইঞ্জিনিয়রের তত্ত্বাবধানেই চলেছিল ট্রেনিং। শেখানো হয়েছিল, সমস্ত ধরণের পরিস্থিতি মোকাবিলা করার অভ্যাস। ব্যস্ত শাখায় রেক চালানোর প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছিল। যার ফলে ভয় ও টেনশন কেটে গিয়ে দক্ষ মেট্রো চালক হয়ে উঠেছিলেন তপনকুমার নাথ।

ইস্ট ওয়েস্ট মেট্রো পুরোটাই স্বয়ংক্রিয়। আধুনিক সমস্ত প্রযুক্তির ব্যবহার হয়েছে এখানে। তবে প্ল্যাটফর্ম স্ক্রিন ডোর আর রেকের দরজা সমান্তরাল ভাবে খোলার ক্ষেত্রে বেশ সমস্যা হয়েছে ইস্ট ওয়েস্ট মেট্রো চালানোর জন্য নিযুক্ত মোটরম্যানদের। গোটা প্ল্যাটফর্ম ও ট্রেন সিসিটিভি'র মাধ্যমে নজরদারি করতে পারা যায়।

'১৯৮৪ সালের কলকাতার পাতাল রেলে অবশ্য সেই সুযোগ ছিল না। ছ'কামরার রেক আমরা চালাতাম। তখন অবশ্য মোটরম্যানের জন্য আলাদা কোনও কেবিন ছিল না। আয়না দেখে গোটা প্ল্যাটফর্ম সম্পর্কে যাচাই করে নিতে হত', এমনটাই জানাচ্ছেন তপনকুমার নাথ।

প্রসঙ্গত, এখন সব মেট্রো স্টেশনের প্ল্যাটফর্মের দুটি প্রান্তে বসানো হয়েছে আয়না। ইস্ট ওয়েস্ট মেট্রো প্ল্যাটফর্মেও বসানো আছে আয়না। বৃহস্পতিবার বিকেল ৫ নাগাদ শুরু  হবে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল সেক্টর ফাইভ মেট্রো স্টেশন থেকে যাবেন সিটি সেন্টার পর্যন্ত।

ভ্য়ালেন্টাইন্স ডে-র  সকাল থেকে শুরু হবে প্রথম যাত্রী পরিষেবা।  ফলে মেট্রোর মোটরম্যানরা সবটাই জেনে গেছেন। তপনবাবুকে অবশ্য বিনা নোটিশেই এসপ্ল্যানেড থেকে ময়দান মেট্রো ছোটাতে হয়েছিল। তপনবাবু স্মৃতি হাতড়ে বলছেন, "৩৬ বছর আগের সেই ২৪ অক্টোবর সকাল ৮টা থেকে অন্যান্য দিনের মতোই মেট্রোর ট্রায়াল রান শুরু হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সকাল ৭টা নাগাদ মেট্রোর এক আধিকারিক আমাদের নিয়ে যান এসপ্ল্যানেড মেট্রো স্টেশনে।"

আর তারপর ?

ভারতের প্রথম মেট্রো দৌড় শুরু করল। ফলে ইস্ট ওয়েস্টের চালকদের ঘাবড়াতে বারণ করছেন তপনবাবু। তাঁর সাজেশন মুল নিয়ম মেনে চালালেই হল। কারণ যাত্রীদের দায়িত্ব তাঁদের হাতে।

আর যাঁরা দৌড় শুরু করছেন। তাঁদের তো সামনেই আসবে অন্য সুযোগ। দেশের প্রথম মেট্রো চলবে হুগলি নদীর নিচে দিয়ে। তপনবাবুর কথা কতটা পালন করবেন তার অনুজরা। তা অবশ্য বোঝা যাবে শুক্রবার থেকে। তবে নতুন দৌড় শুরু করার জন্য সমস্ত ধরণের প্রশিক্ষণ নিয়ে প্রস্তুত ইস্ট ওয়েস্ট মেট্রো। হোক না স্বল্প দুরত্ব। তবুও ৩৬ বছর পরে নতুন পথে মেট্রো।

আবির ঘোষাল

Published by:Debalina Datta
First published: