Home /News /kolkata /
Firhad Hakim: বউবাজারে ফাটল-আতঙ্ক! পরিদর্শনে মহানাগরিক ফিরহাদ হাকিম

Firhad Hakim: বউবাজারে ফাটল-আতঙ্ক! পরিদর্শনে মহানাগরিক ফিরহাদ হাকিম

Firhad Hakim: ২০১৯ সালের ৩১ অগস্ট, বউবাজারের বি বি গাঙ্গুলী স্ট্রিট, বউবাজার স্ট্রিট, দুর্গা পিতুরি লেন, স্যাঁকরা পাড়া লেনের বাসিন্দারা উদ্বাস্তু বা ঘরছাড়া হয়েছিলেন।

  • Share this:

#কলকাতা: বউবাজারের ঘটনাস্থল পরিদর্শনে এলেন  মেয়র ফিরহাদ হাকিম (Firhad Hakim)৷ মহানাগরিকের বক্তব্য, বাড়িগুলি পুরনো ভিত দেওয়া বাড়ি৷  এই পরিস্থিতিতে এই বাড়িগুলি রাখা কতটা নিরাপদ তা ইঞ্জিনিয়ার টিম নিয়ে এসে খতিয়ে দেখবেন। তারপর তথ্য পেশ করা হবে।  পরিদর্শনে আসেন বিধায়ক নয়না বন্দ্যোপাধ্যায়৷ তাঁর কথায়, দোষ মেট্রোর৷

আরও পড়ুন : শুধু 'Expiry Date' নয়, ওষুধ কেনার আগে পাতার গায়ে দেখুন 'এই' দাগ, নাহলে কিন্তু চরম  ঠকতে হতে পারে! 

প্রায় তিন বছর আগেকার স্মৃতি ফিরে এল বউবাজারে। একের পর এক বাড়িতে বড়সড় ফাটল, যে কোনও সময় বাড়ি পুরো ভেঙে পড়ার আশঙ্কায় আবারও ঘরছাড়া অনেকেই। হাতের সামনে যেটুকু দামী জিনিস, প্রয়োজনীয় জিনিস নিয়ে পড়িমরি পালাতে বাধ্য হন অনেকেই। অনেকেরই আশ্রয় হয়েছে আবারও হোটেলে। ২০১৯ সালের ৩১ অগস্ট, বউবাজারের বি বি গাঙ্গুলী স্ট্রিট, বউবাজার স্ট্রিট, দুর্গা পিতুরি লেন, স্যাঁকরা পাড়া লেনের বাসিন্দারা উদ্বাস্তু বা ঘরছাড়া হয়েছিলেন।

মেট্রো সূত্রে খবর এই কাজ সম্পূর্ণ করা গেলেই সম্পূর্ণ হত শিয়ালদা-ধর্মতলা মেট্রোর টানেলের কাজ। মাটি কেটে সিমেন্টের দেওয়াল ও মেঝে বানানোর কাজও চলছিল সমানভাবে। কিন্তু তাল কাটলো কলকাতায় ভারী বৃষ্টিপাত। যার ফলে (প্রাথমিক অনুমান), মাটির নিচের জলস্তর হঠাৎ বেড়ে যাওয়ায়, জল উঠতে শুরু করে নীচ থেকে। ফাটল ধরে যায় সংলগ্ন ৫টি বাড়িতে। আশঙ্কাজনক অবস্থা থাকায় ফাঁকা করানো হয় আরও তিন চারটি বাড়িকে। ঘরছাড়া হন প্রায় ৮০-৯০ জন মানুষ।

Published by:Rachana Majumder
First published:

Tags: Bowbazar, Firhad Hakim

পরবর্তী খবর