Home /News /kolkata /
Firhad Hakim || মুড়িতে জিএসটি! কেন্দ্রীয় সরকারকে তীব্র ভর্ৎসনা রাজ্যের মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমের

Firhad Hakim || মুড়িতে জিএসটি! কেন্দ্রীয় সরকারকে তীব্র ভর্ৎসনা রাজ্যের মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমের

Firhad Hakim || সাম্প্রতিক উপনির্বাচনের ফলাফলকে হাতিয়ার করে বিরোধীদের বিরুদ্ধে তোপদাগলেন রাজ্যের মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। তিনি এদিন বললেন, এই ফলাফল থেকে মানতে হবে বাংলায় গণতন্ত্র আছে। নিরপেক্ষ নির্বাচন হয়। কেন্দ্রের পুলিশ না থাকলেও। ত্রিপুরায় কেন্দ্রের পুলিশ, রাজ্য সরকার মিলে নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে দেয় না।

আরও পড়ুন...
  • Share this:

#কলকাতা: মুড়িতেও জিএসটির কালো হাত, এভাবেই কেন্দ্রীয় সরকারকে তীব্র ভর্ৎসনা রাজ্যের মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমের। তাঁর কথায়, "গরিব মানুষ একটু মুড়ি তেলেভাজা ও খেতে পারবে না এই সরকারের আমলে। আসলে ওরা ভোট নিতে আসে গরিবের কাছে আর ভোট শেষ হলেই বড়লোকের পাশে। বাংলায় গণতন্ত্র আছে। তাই নিরপেক্ষ নির্বাচন হয়।"

উপনির্বাচনের ফল নিয়েও সরব ফিরহাদ হাকিম। রাজনীতিবিদদের মতে, রাজ্যের বেশ কয়েকটি পুরসভার ওয়ার্ডে উপনির্বাচনে শাসক দলের হারানোর কিছু ছিল না। বিরোধীদের কাছে ছিল এটা একটা আত্মমর্যাদার লড়াই। চন্দননগরে একটি ওয়ার্ডে সিপিআই(এম) জয় পেয়েছে। টানা ৩২ বছর এই ওয়ার্ডে জিততে পারেনি সিপিএম। সেখানে শাসক দলকে এড়িয়ে আর বিজেপিকে হারিয়ে এই জয় নিঃসন্দেহে উল্লেখযোগ্য টার্নিং পয়েন্ট। ওদিকে কংগ্রেস নিজেদের আসন ধরে রাখল এই বাজারেও। ঝালদা পুরসভায় উপনির্বাচনে একটি ওয়ার্ডে কংগ্রেস জিতেছে। আর এই ফলাফলকে হাতিয়ার করেই বিরোধীদের বিরুদ্ধে তোপ দাগলেন রাজ্যের মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম।

তিনি এদিন জানান, এই ফলাফল থেকে মানতে হবে বাংলায় গণতন্ত্র আছে। নিরপেক্ষ নির্বাচন হয়। ত্রিপুরায় কেন্দ্রের পুলিশ, রাজ্য সরকার মিলে নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে দেয় না।

আরও পড়ুন- ২০২৪-এ তৃণমূলের নজর উত্তরপূর্বে! মেঘালয়ে সদস্য সংগ্রহের সূচনা করলেন অভিষেক

সম্প্রতি একের পর এক হওয়া নির্বাচন ও আজকের উপনির্বাচনের ফল অনুসারে বামেরা ক্রমশ দ্বিতীয় স্থানে উঠে আসছে। অন্যদিকে বিজেপির ভোটব্যাঙ্ক এবং সমর্থন দুটোই কমছে। ফলে পুরসভার একটি ওয়ার্ড বাম ও একটি ওয়ার্ড কংগ্রেস পেলেও কোথাও বিজেপি কোনও আসন পায়নি। এই প্রসঙ্গে ফিরহাদ বলেন, "আমি এক নম্বরে আছি কিনা সেটা আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ। ক্লাসে প্রথম হচ্ছি আমি। দ্বিতীয় তৃতীয় কে হচ্ছে সেটা নিয়ে লড়াই হতে পারে কিন্তু তাতে আমার কি বলার আছে?"

এছাড়াও এদিন রেশন কার্ড দুর্নীতি নিয়ে দীলিপ ঘোষের মন্তব্যের বিরোধিতা করেন তিনি। বলেন, কারও নির্দিষ্ট সুবিধার জন্য সরকারি টাকা অপব্যবহার করা হয়নি। কেন্দ্রের নিজের নয়, বাংলার টাকা। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এসে রেশন বণ্টন ব্যবস্থা মজবুত করেছে।

মুড়ির উপর জিএসটি বসানোর বিষয়ে বিজেপিকে কটাক্ষ করেন হাকিম। তাঁর কথায়, "পাঁচ তারায় খেলে ছাড়। মুড়ি তেলে ভাজায় কর বসবে। গরিবের ভোটে ক্ষমতায় আসে আর থাকে বড়লোকের পাশে। শুধু মুড়ি নয়, চালডাল বিভিন্ন খাদ্যদ্রব্যের উপর প্যাকেটজাত করা খাবারে ৫ শতাংশ জিএসটি বসানো সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্র। এছাড়াও ব্যাঙ্কের চেক বইয়ের জন্য যে মূল্য দিতে হয় তার উপর জিএসটির নামে ১৮ শতাংশ কর ধার্য করছে কেন্দ্রীয় সরকার। এই সমস্ত কেন্দ্রীয় সরকারের সিদ্ধান্তের তীব্র বিরোধিতা করেন ফিরহাদ হাকিম।"

Published by:Rachana Majumder
First published:

Tags: Firhad Hakim

পরবর্তী খবর