corona virus btn
corona virus btn
Loading

আমফানের তাণ্ডবে 'হতশ্রী' কলকাতার  'শ্রী' ফেরাতে পুর প্রশাসনকে নির্দেশ ফিরহাদ হাকিমের

আমফানের তাণ্ডবে 'হতশ্রী' কলকাতার  'শ্রী' ফেরাতে পুর প্রশাসনকে নির্দেশ ফিরহাদ হাকিমের

এখনও শহরের যত্রতত্র পড়ে রয়েছে গাছ। বিদ্যুতের খুঁটি উপড়ে রাস্তা অবরুদ্ধ। পানীয় জলের হাহাকার।

  • Share this:

 #কলকাতা : কলকাতার পরিস্থিতি দ্রুত স্বাভাবিক করতে ভিডিও কনফারেন্স করে প্রতিটি বরোর প্রশাসকদের নির্দেশ দিলেন কলকাতা  পুরসভার প্রশাসক বোর্ডের চেয়ারম্যান ফিরহাদ হাকিম। কলকাতা পুরসভার কনফারেন্স হলে  শনিবার  পুরসভার সমস্ত জরুরি বিভাগের আধিকারিকদের নিয়ে বৈঠকে বসেন বোর্ড অফ অ্যাডমিনিস্ট্রেটরস  ফিরহাদ হাকিম। বৈঠকে শহরের  কোথায় কী অবস্থা রয়েছে, সে বিষয়ে খোঁজখবর নেন তিনি। দ্রুত বিদ্যুৎ,  পানীয় জল এবং অন্যান্য জরুরি পরিষেবা স্বাভাবিক করতে আধিকারিকদের নির্দেশ দেন ফিরহাদ হাকিম।

এ দিনই কলকাতা পুর এলাকার যে সমস্ত বরো রয়েছে তাদের আধিকারিকদের সঙ্গেও  পুরসভা থেকেই ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কথা বলেন  ফিরহাদ। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কোন এলাকার কী অবস্থা, কোথায় বিদ্যুৎ নেই, কোথায় পানীয় জলের সমস্যা  রয়েছে অথবা বেহাল পুর পরিষেবার অভিযোগে কোন এলাকায় বিক্ষোভ চলছে, এ সমস্ত বিষয়েই খোঁজখবর নেন ফিরহাদ হাকিম৷ এছাড়াও পুর পরিষেবা সংক্রান্ত আরও বেশ বেশ কিছু প্রশ্নের পরিপ্রেক্ষিতে তথ্য সংগ্রহ করেন প্রশাসক বোর্ডের চেয়ারম্যান। তার ভিত্তিতে আধিকারিকদের পরিষেবা দ্রুত স্বাভাবিক করারও নির্দেশ দেন ফিরহাদ হাকিম।

পুরসভা সূত্রে খবর, ভিডিও কনফারেন্সে বেশ কিছু বরো অ্যাডমিনিস্ট্রেটর পরিষেবা স্বাভাবিক করতে গিয়ে বাসিন্দাদের বিক্ষোভের মুখে পড়া সহ এলাকা থেকে গাছ সরানো নিয়ে  মাকড়সার জালের মতো ছড়িয়ে ছিঁটিয়ে থাকা বিদ্যুতের তার ও খুঁটির  সমস্যার  কথা বলেন। এক্ষেত্রে  সংশ্লিষ্ট থানার পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করে পরিষেবা স্বাভাবিক করতে ওই আধিকারিকদের নির্দেশ দেন ফিরহাদ। পুর পরিষেবা স্বাভাবিক করার বিষয়ে কোনও  রকম গাফিলতি , টালবাহানা বরদাস্ত করা হবে না বলেও এদিন সাফ জানিয়া দেন তিনি।

শনিহবারের ভিডিও কনফারেন্সে যে যে সমস্যার কথা উঠে আসে, সেই সমস্ত বিষয়ে পুরসভার সংশ্লিষ্ট বিভাগের আধিকারিকদের বরো  আধিকারিকদের সঙ্গে সমন্বয় রেখে অবিলম্বে নাগরিকদের দুর্বিষহ  অবস্থার অবসান ঘটাতে প্রয়োজনীয় নির্দেশ জারি করেন ফিরহাদ হাকিম৷ পরে তিনি বলেন, 'ভয়াল প্রাকৃতিক দুর্যোগে বেসামাল হয়ে পড়া কলকাতা শীঘ্রই স্বাভাবিক ছন্দে ফিরবে।'

এখনও শহরের যত্রতত্র পড়ে রয়েছে গাছ। বিদ্যুতের খুঁটি উপড়ে রাস্তা অবরুদ্ধ। পানীয় জলের হাহাকার।  স্বাভাবিক জনজীবন বিপর্যস্ত। আমফান পরবর্তী পরিস্থিতিতে রীতিমতো বিধ্বস্ত শহর কলকাতা। দ্রুত পরিষেবা স্বাভাবিক করার দাবিতে বিভিন্ন জায়গায় বিক্ষোভ দেখিয়েছেন বাসিন্দারা। রাস্তা অবরোধ হয় শহরের বিভিন্ন প্রান্তে। পরিষেবা স্বাভাবিক করার দাবিতে চেয়ারম্যান ফিরহাদ হাকিমকে পুরসভায় এসে ডেপুটেশন দেন বাম কাউন্সিলররা।

বিদ্যুৎ প্রদানকারী সংস্থা সিইএসসি-র  ভূমিকায় ক্ষুব্ধ  খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শহর জুড়ে বিভিন্ন রাস্তায় বড় বড় গাছের লাশ  পড়ে  থাকায় জনজীবন থমকে রয়েছে। তার উপর গোঁদের ওপর বিষফোঁড়ার মত শহরের বিভিন্ন প্রান্তে পানীয় জল,  বিদ্যুতের দাবিতে অবরোধ বাসিন্দাদের। আমফান ঝড়ের তাণ্ডবে লন্ডভন্ড হয়ে গিয়েছে শহর কলকাতা। বহু এলাকা এখনও বিদ্যুৎহীন।

শুক্রবারে কলকাতা পুরসভার বোর্ড অফ অ্যাডমিনিস্ট্রেটরস- এর চেয়ারম্যান ফিরহাদ হাকিম কলকাতার  নাগরিকদের কাছে হাতজোড় করে বলেছিলেন যে, আগামী সাত  দিনের মধ্যে কলকাতার পরিষেবা সম্পূর্ণ স্বাভাবিক হয়ে যাবে। কিন্তু যেভাবে অন্ধকারে ডুবে রয়েছে শহরের বিস্তীর্ন এলাকা, তাতে বাসিন্দাদের নিজেদের ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশই  দেখা গেল শনিবার। দফায় দফায় অবরোধ কর্মসূচিতে শহরের লাইফ লাইন হিসেবে পরিচিত ই এম বাইপাসেও যানবাহন আটকে পড়ে। সায়েন্স সিটি মোড়ে  কলকাতা পুলিশের তরফ থেকে চিংড়িঘাটা থেকে রুবি যাওয়ার একদিকের লেন গার্ড রেল দিয়ে সিল করে দেওয়া হয়। যান চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা হয় শহরের অন্যান্য প্রান্তেও।  আমফানের ধাক্কা সামলে কতদিনে তিলোত্তমা  পুরোপুরি স্বাভাবিক হয়, তার উত্তর দেবে সময়ই।

VENKATESWAR  LAHIRI

First published: May 24, 2020, 12:23 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर