পার্ক সার্কাসে চলন্ত ট্রেনে মহিলা যাত্রীর ওপর ছোড়া হল প্যাকেট ভর্তি মূত্র!

পার্ক সার্কাসে চলন্ত ট্রেনে মহিলা যাত্রীর ওপর ছোড়া হল প্যাকেট ভর্তি মূত্র!
প্রতীকী ছবি

সোমবার রং খেলা উপলক্ষে বেশিরভাগ অফিসে ছুটি থাকায় এদিন ট্রেন যথেষ্টই খালি ছিল মহিলা কামরা অন্য কামরা তুলনায় ছিল খালি। সেই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে এই ঘটনা ঘটেছে বলে মনে করছেন যাত্রীরা।

  • Share this:

#কলকাতা: আন্তর্জাতিক নারী দিবসের ঠিক পরদিনই চলন্ত ট্রেনে নোংরা এক ঘটনার সাক্ষী হতে হল এক মহিলা যাত্রীকে। ঘটনাস্থল পার্ক সার্কাস স্টেশন। সোমবার সন্ধ্যায় ডায়মন্ড হারবার লোকাল পার্ক সার্কাস স্টেশন ছাড়ার পর মহিলা কামরায় ছোড়া হয় প্যাকেট ভর্তি মূত্র। একই সঙ্গে চলন্ত ট্রেনে ছোড়া হয়েছিল পাথরও। প্যাকেট ভর্তি মূত্র এক মহিলা যাত্রীর গায়ে লাগে। কার্যত তাতে স্নান করে যান তিনি। যদিও কপাল জোরে পাথরটি তার মাথার ওপর দিয়ে বেরিয়ে যাওয়ায় তিনি বেঁচে গিয়েছেন।

পেশায় মহিলা সাংবাদিক ওই তরুণী জানান, ডায়মন্ড হারবার লোকালে করে সন্ধ্যায় অফিস থেকে বাড়ি ফিরছিলেন তিনি। অন্য দিনের তুলনায় ট্রেন ছিল বেশ ফাঁকা। ট্রেনটি পার্ক সার্কাস স্টেশন ছাড়ার মুহূর্তেই যখন গতি কম ছিল তখন বাইরে থেকে কেউ বা কারা মহিলা কামরা লক্ষ্য করে প্যাকেট ভর্তি সেই মূত্র ছুড়ে মারে। জানালার পাশে বসে থাকায় প্যাকেটটি এসে তাঁর গায়ে লাগে। প্যাকেটটি ফেটে গিয়ে সেই মূত্র তাঁর সারা শরীরে লেগে যায়। সেই সময় ট্রেনের গতি থাকায় তিনি অবশ্য দেখতে পাননি কে ছুড়েছিল প্যাকেট। মূত্রভর্তি প্যাকেটের সঙ্গেই ছোড়া হয়েছিল বড় একটি পাথরও। ঘটনায় রীতিমতো আতঙ্কিত তিনি।

এই পোস্টটি লেখা হয়েছে এই পোস্টটি লেখা হয়েছে

ওই তরুণী বলেন, "পার্ক সার্কাস স্টেশনের আশেপাশে এটি প্রায় নিত্যদিনের ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রায়শই চলন্ত ট্রেনে পাথর ছোড়ার ঘটনা ঘটে। রীতিমত বিপদের যাত্রা হয়ে উঠছে ।তবে এদিন আমার সঙ্গে যে ঘটনা ঘটলো সেই নোংরা ঘটনা ভাষায় প্রকাশ করা যায় না। প্যাকেট ভর্তি মূত্রের জায়গায় অ্যাসিড থাকতে পারত। যদি সেই অ্যাসিড আমার উপর পড়ত তাহলে আমার জীবনটা শেষ হয়ে যেত। জিআরপি, আরপিএফ থাকতেও এরকম ঘটনা কিভাবে ঘটল? রেল পুলিশ যাতে দ্রুত ব্যবস্থা নেয় সেই আশা রাখছি।" জিআরপিতে তিনি এ বিষয়ে অভিযোগ করার ব্যাপারেও ভাবছেন।

সোমবার রং খেলা উপলক্ষে বেশিরভাগ অফিসে ছুটি থাকায় এদিন ট্রেন যথেষ্টই খালি ছিল মহিলা কামরা অন্য কামরা তুলনায় ছিল খালি। সেই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে এই ঘটনা ঘটেছে বলে মনে করছেন যাত্রীরা। কিন্তু এসব কারণের জন্যই মহিলা কামরাতেই আরপিএফ থাকার কথা। এক্ষেত্রে তাও ছিল না বলে অভিযোগ। শিয়ালদহ দক্ষিণ শাখায় যে সমস্ত যাত্রীরা নিয়মিত যাতায়াত করেন তাদের বেশীরভাগেরই অভিযোগ পার্ক সার্কাস স্টেশনকে কেন্দ্র করে। চুরি-ছিনতাই পকেটমারি এখানকার নিত্য ঘটনা। অথচ সবকিছুর পরেও রেল সুরক্ষা বাহিনী কিংবা জিআরপি কেন কোনও ব্যবস্থা নেয় না তা নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন যাত্রীরা।

তবে শিয়ালদহ দক্ষিণ শাখা ছাড়াও উত্তর শাখায় মেইন লাইন এবং বনগাঁ লাইনেও চলন্ত ট্রেনে পাথর ছোড়ার মতো ঘটনা প্রায়ই ঘটে। বেশ কয়েকজন যাত্রী জখমও হয়েছেন। তারপরেও টনক নড়েনি প্রশাসনের। আন্তর্জাতিক নারী দিবসের ঠিক আগেরদিনে শ্যামবাজার এলাকায় একটি প্রেক্ষাগৃহে হেনস্তার শিকার হতে হয় এক মহিলাকে। পিরিয়ড চলতে থাকা এক মহিলা অন্যদের থেকে আগে বাথরুমে যেতে চাইলেও তাকে যেতে দেওয়া হয়নি। হেনস্থা করা হয় বলেও অভিযোগ। নিজের সমস্যার কথা বলার পরেও মেলেনি কোন সাহায্য।

Sujoy Pal 

First published: March 9, 2020, 11:59 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर