Home /News /kolkata /

স্বজন হারানোর বেদনা ও স্মৃতি আঁকড়েই প্রজাতন্ত্র দিবস পালন শহিদ জওয়ানদের পরিবারের

স্বজন হারানোর বেদনা ও স্মৃতি আঁকড়েই প্রজাতন্ত্র দিবস পালন শহিদ জওয়ানদের পরিবারের

File Photo

File Photo

family members of martyrs in republic day

  • Share this:

    #কলকাতা: জঙ্গি হোক, বা মাওবাদী দমন। দেশের জন্য লড়ে প্রাণ দিয়েছেন। প্রজাতন্ত্র দিবসে চোখের জলে সেই স্মৃতিই ফিরে ফিরে আসছে। স্বজন হারানোর বেদনা বুকে নিয়ে স্মৃতিটুকুই আঁকড়েই বেঁচে রয়েছেন শহিদ জওয়ানদের পরিজনরা। নদিয়ার তেহট্টের রাধাপদ হাজরা, দক্ষিণ দিনাজপুরের তপনের পলাশ মণ্ডল বা বাঁকুড়া রাজগ্রামের সঞ্জিব কুণ্ডু। স্বজন হারিয়ে, স্মৃতিটুকু বুকে নিয়ে বেঁচে রয়েছেন তাঁদের পরিজনরা। নতুন বছরের আনন্দকে ম্লান করে বাড়িতে দুঃসংবাদটা এসেছিল। দিনটা ছিল তেসরা জানুয়ারি। কাশ্মীরের সাম্বা সেক্টরে পাক রেঞ্জারদের গুলিতে মৃত্যু হয় বিএসএফ জওয়ান রাধাপদ হাজরার। গর্বের সঙ্গে আজও স্বামীর বীরত্বের কথা বলেন সুজাতা। চোখের কোনটা ভিজে ওঠে। স্বজন হারানোর বেদনা শহিদ জওয়ানের স্ত্রীর গলায়।

    বাবার মতই দেশের কাজে সেনাবাহিনীতে যোগ দিতে চায় নিহত জওয়ানের ছেলেও। কিন্তু চিন্তা হয় পরিবারের।

    একমাত্র সম্বল। সেই ছেলেকে হারিয়ে দিশেহারা দক্ষিণ দিনাজপুরে তপনের পলাশ মণ্ডলের মা।

    ২৮ বছরের ছেলেকে হারিয়ে শোকে দিশেহারা বৃদ্ধা। আঠারোই জুলাই দু'হাজার ষোলো। গয়ার ডুমরি নালায় মাওবাদীদের দমন করতে গিয়ে মৃতু হয় পলাশ মণ্ডলের। ছেলেকে হারানোর স্মৃতি নিয়ে বেঁচে পরিবার।

    জঙ্গিদের সঙ্গে গুলির লড়াইতে মৃত্যু হয় বাঁকুড়া রাজগ্রামের সঞ্জিব কুণ্ডুর। ছেলে হারানোর স্মৃতি বুকে নিয়ে বেঁচে বাবা-মা। ছেলের আত্মবলিদানের গর্ব। তার মাঝেই স্বজন হারানোর বেদনাটাও ফিরে আসে।

    First published:

    Tags: 26 january 2018, Republic Day, Republic Day 2018

    পরবর্তী খবর