ওজন বাড়াতে খড়িমাটিও মেশানো হয় ভেজাল পোস্তয় !

ওজন বাড়াতে খড়িমাটিও মেশানো হয় ভেজাল পোস্তয় !

বাজেয়াপ্ত হওয়া পোস্তর ল্যাব টেস্ট রিপোর্ট তা নিশ্চিত করেছে যে পোস্তর মধ্যে মিশে থাকা সাদা ধুলোর মতো পদার্থ আসলে খড়িমাটি।

  • Share this:

#কলকাতা: শুধুই পাখির খাবার আর ভাজা সুজি নয়, ভেজাল পোস্তর মধ্যে মেশানো হয় আরও মারাত্বক জিনিস। পোস্তর মধ্যে পাখির খাবারের দানা ও ভাজা সুজি মেশানোর পর সেই বস্তায় মেশানো হয় খড়িমাটির গুড়োও। একটু আধটু নয়, ওজন বাড়াতে মেশানো হয় কয়েক কেজি খড়িমাটি।

সম্প্রতি পোস্তায় ভেজাল পোস্ত কারখানায় হানা দেয় কলকাতা পুলিশের এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চ (ইবি)। সূত্রের খবর, বাজেয়াপ্ত হওয়া পোস্ত দেখে প্রথম থেকেই তাদের সন্দেহ ছিল। এবার বাজেয়াপ্ত হওয়া পোস্তর ল্যাব টেস্ট রিপোর্ট তা নিশ্চিত করেছে যে পোস্তর মধ্যে মিশে থাকা সাদা ধুলোর মতো পদার্থ আসলে খড়িমাটি। যে কারখানায় হানা দিয়ে এই ভেজাল পোস্তর কারবার সামনে এসেছে, সেই কারখানার কর্মীরাও জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছে ওজন বাড়াতেই মেশানো হত খড়িমাটি।

ভেজাল ঘিয়ের পর সম্প্রতি পোস্তায় ভেজাল পোস্ত কারখানায় হানা দেয় ইবি। পোস্তার ৮বি বরোদা ঠাকুর লেনে ওই কারখানায় হানা দিয়ে প্রচুর ভেজাল পোস্ত ও তা তৈরির সামগ্রী বাজেয়াপ্ত করা হয়। ইবি সূত্রে খবর, পোস্ত ভেজাল করার পর বিভিন্ন ব্র্যান্ডের ছোট ছোট প্যাকেটে ভরে পাইকারি ও খুচরো বাজারে বিক্রি করা হত।

তদন্তে জানা গিয়েছে, কমদামি পোস্ত কিনে তা ভেজাল করা হত। প্রথমে সুজি ভেজে নিয়ে আসল পোস্তর মতো রং আনা হত। তারপর পাখির খাবারের দানা ভাঙিয়ে পোস্তর মত আকারে নিয়ে আসা হত। এরপর সমপরিমাণ পোস্তর মধ্যে মেশানো হত ভাজা সুজি ও পাখির খাবারের গুঁড়ো। এখানেই শেষ নয়। সব উপকরণ মেশিনে ভালো করে মিশিয়ে নিয়ে ভরা হত বস্তায়। তারপর তাতেই মেশানো হত খড়িমাটি।

ইবির এক অফিসার বলেন, "ভেজাল পোস্তর বস্তার নিচে সাদা ধুলোর মতো পদার্থ দেখে সন্দেহ হয়েছিল। সেই নমুনা আমরা পরীক্ষা করে জানতে পারি সাদা গুড়ো আসে খড়িমাটি।" কিন্তু কতটা ক্ষতিকারক এই খড়িমাটি মেশানো পোস্ত?

উদ্ধার হওয়া ভেজাল পোস্ত উদ্ধার হওয়া ভেজাল পোস্ত

যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ফুড টেকনোলজি বিভাগের অধ্যাপক প্রশান্ত বিশ্বাস বলেন, "পোস্তর খড়িমাটি মেশানো হলে তা যদি দীর্ঘদিন খাওয়া হয় তাহলে স্নায়ুর সমস্যা হতে পারে, শিশুদের ক্ষেত্রে মস্তিষ্ক বিকাশে বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে। খড়িমাটিতে এমন কিছু ক্ষতিকারক খনিজ থাকে যা ক্যানসারের কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। হতে পারে ফুড পয়জন। তাই পোস্ত ভালো করে একাধিকবার ধুয়ে খাওয়া উচিত।"

পোস্তার যে কারখানায় হানা দিয়ে বড়সড় এই ভেজাল চক্রের বিষয়টি সামনে এসেছে সেই কারখানার মালিককে এখনও গ্রেফতার করেনি এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চ। ইবির বক্তব্য, ফুড সেফটি ল্যাবের রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পরই তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। গ্রেফতার করাও হতে পারে বলে জানানো হয়েছে। আপাতত কোথায় কোথায় এই চক্রের জাল ছড়িয়ে রয়েছে তার খোঁজ চালাচ্ছে ইবি।

Sujoy Pal

First published: February 22, 2020, 7:18 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर