‘‘এ রাজ্যে একটাও আসন পাবে না বিজেপি...’’ News18 বাংলাকে EXCLUSIVE সাক্ষাৎকার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের

Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Apr 08, 2019 10:20 PM IST
‘‘এ রাজ্যে একটাও আসন পাবে না বিজেপি...’’ News18 বাংলাকে EXCLUSIVE সাক্ষাৎকার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের
Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Apr 08, 2019 10:20 PM IST

১. নিউজ18 বাংলা: ২০১৯-এর নির্বাচনের মহা সংগ্রাম শুরু হয়ে গিয়েছে ৷ পথে-প্রচারে এইমুহূর্তে উত্তরবঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷ প্রচারে ঝড় তুলছেন তিনি ৷ তারই মাঝে নিউজ18 বাংলার মুখোমুখি তৃণমূলনেত্রী তথা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় ৷ মমতাদি এবারের লড়াই কতটা কঠিন ?

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: কেন কঠিন হতে যাবে কেন ?  আমি কখনই মনে করি না, কোনও লড়াই কঠিন ৷ আপনার যদি আত্মবিশ্বাস থাকে ৷ লড়াই করার মানসিকতা থাকে এবং আপনার যদি মানুষের প্রতি বিশ্বাস থাকে, আমি কখনই মনে করি না কোনও লড়াই কঠিন ৷ আমি এখনও মনে করি, ঝড় আমি তুলি না ৷ আমার লড়াইয়ে ঝড় তোলে মানুষ ৷ থ্যাঙ্কস টু আমার ‘মা মাটি মানুষ’ ৷ মা মাটি মানুষকে যে ব্যঙ্গ করে করুক গিয়ে ৷ আমার থিম মা মাটি মানুষ ৷ কোনও জায়গায় পুজো দিলে আমায় গোত্র জিজ্ঞেস করলে আমি আমার গোত্র বলি না ৷ আমি মা মাটি মানুষ গোত্র বলি ৷ কারণ মা মাটি মানুষ ভাল থাকলে আমি ভাল থাকি ৷ সুতরাং এটা মানুষের ঝড় ৷ মানুষই বিচার করবে ৷ মানুষই ভোট দেবে ৷

২. নিউজ18 বাংলা: আপনি আত্মবিশ্বাসের কথা বলছেন ৷ এই আত্মবিশ্বাস কোথা থেকে পাচ্ছেন ?

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: মানুষকে দেখেই আমার আত্মবিশ্বাস ৷ মানুষই আমার শক্তি ৷ আমি মা বোনেদের মুখ দেখে বলতে পারি মা বোনেরা কী বলতে চাইছেন ৷ আমি ছাত্র যৌবনের প্রাণের স্পন্দন দেখে বুঝতে পারি ওরা কী চাইছে ৷ আমি শ্রমিক কৃষকের মুখে হাসি দেখলে ওদের আসল কথাটা বুঝতে পারি ৷ আমি আমার সাধারণ মানুষজন, তফশিলী ভাইবোনরা খুব সিম্পল হন, কিন্তু দে আর ভেরি গুড ৷ আদিবাসী ভাইবোনেরা ওদের মুখের হাসি দেখে বুঝতে পারি ৷ তাই দেখুন আমাদের এখানে তো সব ধরমের কমিউনিটিই আছে ৷ রাজবংশী বলুন, রাভা বলুন, কামতাপুরী বলুন, গোর্খা বলুন, শিডুল কাস্ট বলুন, শিডুল ট্রাইব বলুন, বুদ্ধিস্ট বলুন, জৈন বলুন, পার্সি বলুন, হিন্দু বলুন, মুসলিম বলুন, খ্রীষ্টান বলুন আমাদের রাজ্যে আছে ৷ এবং সব দেশের মানুষই আমাদের রাজ্যে থাকেন ৷ সবাইকে নিয়ে চলতেই আমরা অভ্যস্ত ৷ একজায়গায় যদি পাহাড় থাকতে পারে ৷ একই জায়গায় দেখুন আলিপুরদুয়ার, দার্জিলিং, জলপাইগুড়িকে ঘিরে যদি পাহাড় থাকে, জঙ্গল থাকে, যদি প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য থাকে, তাহলে একই জায়গায় সব মানুষ কেন থাকবে না ৷ সুতরাং আমার তো খুব ভাল লাগে ৷ আমি প্রতি মাসেই একবার করে উত্তরবঙ্গে আসি ৷ কারণ উত্তরবঙ্গে উত্তরকন্যা আমরা করেছি ৷ পশ্চিমবঙ্গের মানুষের সেক্রেটারিয়াটের অনেক দিনের দাবি ছিল ৷ জলপাইগুড়ির সার্কিট বেঞ্চ, বেঙ্গল সাফারি শিলিগুড়িতে ৷ ভোরের আলো থেকে শুরু করে নতুন জেলা-আলিপুরদুয়ার, কালিম্পং ৷ দার্জিলিংয়ে হিল ইউনিভার্সিটি থেকে শুরু করে, আলিপুরদুয়ার থেকে নতুন হিল ইউনিভার্সিটি, হিন্দি ইউনিভার্সিটির ক্যাম্পাস, মেডিক্যাল কলেজ, পিটিটিআই, পলিটেকনিক, আইটিআই, হাসপাতাল, কলেজ, হিন্দি কলেজ, কিষাণমাণ্ডি কৃষকবাজার, হাসপাতাল, কলেজ ৷ প্রত্যেকটা ভাষা যেমন কামতাপুরী ভাষা, নেপালি ভাষা, বুদ্ধিস্ট ৷ ওদিকে গুরুমুখী ভাষা, কুর্মালি ভাষা পুরুলিয়ার, আদিবাসীদের কুরুক ভাষা, সমস্ত ভাষাকে আমরা মর্যাদা দিয়েছি ৷ তরাই-ডুয়ার্স, দার্জিলিং আমরা কোনও বিভেদ বুঝি না ৷ আমরা মনে করি জলপাইগুড়ি ভাল থাক, পাহাড় ভাল থাক, কোচবিহার ভাল থাক ৷ দক্ষিণ ও উত্তর দিনাজপুর, মালদহ-সহ উত্তরবঙ্গের প্রত্যেকটা জেলা ভাল থাক ৷ এটা আমার কামনা ৷ আমি এভাবেই চলি ৷

৩. নিউজ18 বাংলা: আপনি তো অনেক কিছু করেছেন ৷ উত্তরবঙ্গের জন্য আলিপুরদুয়ার, কালিম্পং নতুন জেলা করেছেন ৷ নতুন সেক্রেটারিয়াট করেছেন ৷ চা শ্রমিকদের জন্য অনেক করেছেন ৷ তবু ধরুন এই কোচবিহার, আলিপুরদুয়ার, দার্জিলিংয়ে আপনাদের পরিস্থিতি এখন কেমন ? দার্জিলিংয়ে তো গতবার আপনারা হেরেছিলেন ৷

Loading...

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: সো ওয়াট ! এবার আমরা জিতব ৷ হেরেছিলেন মানেটা কী ! তখন একটা অন্য অঙ্ক ছিল ৷ আমি তো আর পাহাড় আর সমতলকে ভাগ করে দিয়ে ভোট চাই না কখনও ৷ আমি চাই সবাই ভাল থাকুক, ঐক্য বজায় থাক ৷ বিজেপি বাংলা ভাগ করে দেব বলে ভোট চেয়েছিল ৷ আরও অনেক রাজনৈতিক দল চেয়েছিল ৷ আমি পাহাড়কে ভালোবাসি ৷ পাহাড়-সমতলকে জুড়ি ৷ সেতুবন্ধন করি ৷ পাহাড়-সমতল একসঙ্গে কাজ করবে ৷ দার্জিলিংয়ের সমস্যার স্থায়ী সমাধান হোক ৷ সেটা আমরা করবও ৷ সেটা আমাদের ইস্তাহারেও আছে ৷ আমি চাই সবাইকে নিয়ে চলতে ৷ সবাইকে ভাল থাকতে হবে ৷

৩. নিউজ18 বাংলা: কিন্তু লড়াইটা আলিপুরদুয়ার, কোচবিহার, দার্জিলিং, এই তিনটে জায়গায় কিছুটা কঠিন নয় কি ?

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: একেবারেই নয় ৷ কোচবিহার এক নম্বর থেকে শুরু ৷ কোচবিহারে এমন কোনও কাজ হয়নি ৷ আগে তো আসতই না কেউ ৷ যারা আজকে বড় বড় কথা বলছেন, তারা প্রচারটা বেশি করছে ৷ একটা মিটিং করতে কোটি কোটি টাকা খরচ করছে ৷ এই টাকাটা তো জনগনের জন্য কাজে লাগালে হয় ৷ এত টাকা কোথা থেকে আসে ৷ একটা মিটিং করতে হ্যাঙার লাগিয়েছে কয়েক কোটি টাকার ৷ লোক নিয়ে আসে, সেটাও টাকা দিয়ে ৷ আমি বুঝে পাই না, এত টাকা এদের কাছে এল কোত্থেকে এই পাঁচ বছরে ? নোটবন্দী থেকে ? নাকি রাফায়েল থেকে ? না আরও অন্যান্য কায়দা থেকে ?

আমি তো দেখেছি একটা ব্যাঙ্কের সমীক্ষা রিপোর্টে, অমিতদা ( অমিত মিত্র) সেদিন আমায় বলছিলেন অন্যান্য অনেক অ্যাকাউন্টে সন্দেহজনক লেনদেন হয়েছে ৷ প্রায় ১৪ লক্ষ টাকা ‘সাসপিশিয়াস ট্র্যানস্যাকশন’ ৷ তার মানে কী ! নোটবন্দি তাহলে একটা বড় কেলেঙ্কারি ৷ এই নির্বাচনে যেভাবে মুড়িমুড়কির মতো টাকা খরচ করছে বিজেপি ৷ এটা তাহলে একটা বড় কলঙ্ক ৷ আমি মনে করি না টাকা দিয়ে মানুষ কেনা যায় ৷ টাকা দিয়ে, স্কুটার দিয়ে, বাইক দিয়ে, স্মার্টফোন কিনে দিয়ে ৷ এমনকী, মিটিংয়ে আসতে গেলেও টাকা দিচ্ছে ৷ আপনি আমায় বলুন, রাজনৈতিক দল মানে কী ? রাজনীতি হল সোশ্যাল ওয়ার্ক ৷ অথচ আজকে আমার লজ্জা হচ্ছে বলতে যে প্রতিদিন এক হাজার টাকা করে দেওয়া হচ্ছে অনেক জায়গায় বিজেপি ক্যাডারদের সেদিনের খরচ ৷ এতে কর্মী তৈরি হয় না, ডাকাত তৈরি হয় ৷ চরিত্র নষ্ট হয় ৷ নেতাজী সুভাষচন্দ্র বসু, মাহাত্মা গান্ধি, দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন , বিনয়-বাদল-দীনেশ, মাতঙ্গিনী হাজরা, বাবা সাহেব আম্বেদকর প্রমুখদের থেকে এটাই শিখেছি রাজনীতি কতটা ত্যাগ, তিতিক্ষার জিনিস ৷ আমি কলেজ রাজনীতি করতাম টিউশনি করে চালাতাম ৷ সিপিএম এবং কংগ্রেসের সমর্থনে বিজেপি দলটা আজ এই নিম্নমানের পরিচয় দেয় ৷ যেভাবে কুৎসা ছড়ায়, অসৌজন্যমূলক কথাবার্তা বলে, এটাই ওদের পরিচয় ৷ নির্বাচনে টাকার কেলেঙ্কারি চলছে ৷ এর জবাব দিক মানুষই ওদেরকে একটাও ভোট না দিয়ে ৷

৫. নিউজ18 বাংলা: এই যে দার্জিলিং একটা প্রেস্টিজ ফাইট আপনাদের কাছে ৷ তার কারণ দার্জিলিং সাম্প্রতিক কালে অশান্ত হয়েছিল ৷ তারপর আবার ঠিক হয়েছে ৷ এই দার্জিলিং কেন্দ্রে এবার যিনি বিজেপি প্রার্থী, তাঁকে নিয়ে তীব্র বিতর্ক হচ্ছে ৷ তিনি বাইরে থেকে এসেছেন ৷

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: আপনারা যে এই কথাগুলো বলেন না, আমার খুব খারাপ লাগে ৷ নিজেরাই তর্ক বিতর্ক করেন ৷ আপনাদের সাংবাদিকদের কি এসব বলে দেওয়া হয়েছে যে কোনটা তর্ক এবং কোনটা বিতর্ক ? অমর সিং রায় ৷ উনি ভূমিপুত্র ৷ উনি দার্জিলিংয়ের মানুষ ৷ উনি নিজে নেপালি৷ ভদ্রলোক ৷ বউ বাঙালি ৷ উনি দীর্ঘদিন ধরে এখানে বিধায়ক থেকেছেন ৷ আমি বিনয় তামাংদের বলেছি যে তোমরা একটা কাজ কর, তোমরা নাম বল ৷ তৃণমূল কংগ্রেসের চিহ্ন যেহেতু জাতীয় দলের ৷ আমাদের একটা অ্যাডভান্টেজ আছে ৷ বিধানসভায় তোমরা লড়াই কর, লোকসভায় আমরা করি ৷ তাই অমর সিং রায় আজ পর্যন্ত যতজন সাংসদ এবং বিধায়ক হয়েছেন দার্জিলিং থেকে, তিনি সবার সেরা ৷ তাই তর্ক বিতর্ক করে আপনারা মিডিয়ারা আর বিজেপি-র কথায় আর কুৎসা রটাবেন না ৷

৬. নিউজ18 বাংলা: জিএনএলএফ সঙ্গে এলে কি ভাল হত ?

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: ওদেরকে তো আগে দার্জিলিংয়ে ঢুকতেও দেওয়া হত না ৷ ঘিসিং সাহেব মারা যাওয়ার পর তার মরদেহ সসম্মানে আমি পাহাড়ে তুলতে দিয়েছিলাম ৷ এবং আপনাদের আরও বলি ওদের সংগঠনে এখন আর কিছু নেই ৷ যারা আছেন, তারাও টাকায় বিকিয়ে যায় ৷ তাই জিএনএলএফ থাকল কী থাকল না, আমার দেখার দরকার নেই ৷ আমি ওদেরকে ডেকে কথা বলেছিলাম ভদ্রতার খাতিরে ৷ বলেছিলাম একটা নাম দাও ৷ ওরা বলেছিল ওদের মতো করে একজন প্রার্থী দেবে ৷ কিন্তু সেটা তো হয়নি ৷ কংগ্রেস, বাম, হড়কা বাহাদুররা সবাই নিজের মতো করেই লড়ছে ৷ আমি কারোর বিরুদ্ধে নই ৷ কিন্তু আমি আমার দলের প্রার্থীর পক্ষে ৷ পাহাড় এবং সমতল মিলিয়ে আমরা একসঙ্গে চলতে চাই ৷ ভোটটা একসঙ্গে হলে তৃণমূলই জিতবে ৷

৭. নিউজ18 বাংলা: রাজ্যে নরেন্দ্র মোদি, অমিত শাহরা প্রচারে অনেক সময়েই আসছেন ৷ প্রত্যেকেরই একটাই বক্তব্য, তাঁরা এবার ২৩টা আসন পাবেন ৷

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: ওদের প্রচার করাটা বন্ধ করুন তো ! আপনাদের কত টাকা দেয়, জানি না ৷ সব টিভি মিডিয়াকেই তো কিনে নিয়েছে ৷ অনেক ন্যাশনাল মিডিয়া এমনকী আপনাদের সারা দেশে অনেক চ্যানেল রয়েছে ৷ যারা নরেন্দ্র মোদি, অমিত শাহকে ভয় পান ৷ এবং মিডিয়ার এত অধঃপতন এবং অবক্ষয় আগে কখনও দেখিনি ৷ ওরা অপপ্রচার করছে , এবং তার কাছে মিডিয়া মাথা নত করছে ৷ ৪২-এর একটা আসনও ওরা এরাজ্যে পাবে না ৷ আগে অনেক কিছু করে মাত্র ২টো পেয়েছিল ৷ এবার সেই সংখ্যাটা শূন্য হয়ে যাবে ৷ আর সারা ভারতে নরেন্দ্র মোদি এমন গো হারান হারবে, যে সংখ্যাটা বলতেও আপনারা লজ্জা পাবেন ৷ কাজেই মিথ্যে কথা বলে লজ্জা

দেবেন না ৷

৮. নিউজ18 বাংলা: এই যে বিভিন্ন সমীক্ষা গুলি হচ্ছে , পশ্চিমবঙ্গের সমীক্ষাগুলি নিয়ে কী বলবেন ?

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: আরে ছাড়ুন তো ! এই সব সার্ভে সব টাকা দিয়ে হয় ৷ মানুষের কাছে পৌঁছনোর জন্য এই সব ঘরে বসে সার্ভে করে লাভ নেই ৷ একটা উদাহরণ দিয়ে, আমি যখন রেলমন্ত্রী ছিলাম তখন ডেডিকেটেড থ্রেট করিডর তৈরির জন্য সার্ভে রিপোর্ট করে ওরা বলল যে এর জন্য প্রায় ১৫ হাজার একর জমি লাগবে ৷ তাহলে এর জন্য অনেক জমি হারাবেন সাধারণ মানুষ ৷ আমি তখন ওদের বললাম এই সমীক্ষাটা তোমরা কী ঘরে বসে করেছ ? নাকি ইচ্ছা করে করেছ ? প্রথমে স্বীকার না করলেও পরে স্বীকার করতে বাধ্য হয়েছিল ওরা ৷ আপনাদের শুনতে ভাল লাগবে যে এর জন্য কয়েক হাজার একর জমি আমি বাঁচিয়েছিলাম ৷ আমার দল যখন মাঠেই নামিনি তখন সার্ভে করলে কী করে হবে ৷ ২০১৬-তে বিধানসভা ভোটের আগে জোটের সরকার আসবে বলে সমীক্ষার রিপোর্ট বলেছিল ৷ শেষপর্যন্ত কী হল ? লবডঙ্কা ! একটা দুটো মিলতে পারে ৷ কিন্তু সব সমীক্ষা ঠিক নয় ৷

৯. নিউজ18 বাংলা:  নরেন্দ্র মোদি এরাজ্যে ভোট প্রচারে এসে নতুন শব্দ ব্যবহার করছেন ‘স্পিডব্রেকার’দিদি ৷ আর আপনার হাতিয়ার উন্নয়ন ৷

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: উনি স্পিড ব্রেকার মানে জানেন ? আগে জিজ্ঞেস করুন, স্পিডব্রেকার মানে কী ৷ আমার ক্ষুদ্র বুদ্ধি যা বলে, স্পিডব্রেকার  দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা করে ৷ তাই কোনও বিপদ থেকে যদি আমি বাঁচাতে পারি এর থেকে ভাল আর কী হতে পারে ৷ উনি কী করেন, নমো টিভি, নমো কোর্ট, নমো ফ্যাশন ! উনি বলেছিলেন ১৫ লক্ষ টাকা মানুষের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে ঢুকিয়ে দেবেন ৷ বন্ধ চা বাগান খুলে দেবেন ৷ দার্জিলিং দিয়ে দেবেন ৷ সব মিথ্যে কথা ৷ দেশে বেকার সংখ্যা বাড়ছে ৷ বেকার সংখ্যা এবছর সবচেয়ে বেশি ৷ ওনার যখন যা খুশি তাই করেন ৷ উনি ‘মিত্রোঁ’ বললেই মানুষ চমকে ওঠেন ৷ গণতন্ত্রের পিলার হচ্ছে নির্বাচন, মিডিয়া ৷ সেটাই ছিনিয়ে নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার ৷ আপনাকে আমি যদি অঙ্কটা বলে দিই তাহলেই বুঝবেন কী অবস্থা হবে ওদের এবারের নির্বাচনে ৷

১০. নিউজ18 বাংলা: কী অঙ্ক ? এই যে সার্জিক্যাল স্ট্রাইক হল, তার তো একটা প্রভাব পড়বে ভোটে ?

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: এবার ভোটাররা স্ট্রাইক করবে ওনার বিরুদ্ধে ৷ ‘চোকিদার চোর হ্যায়’ স্লোগানটা অন্যের ৷ আমি বলি ‘চৌকিদার ঝুটা হ্যায়’ ৷ উনি এতদিন অনেক মিথ্যে কথা বলেছেন ৷ যখন যা ইচ্ছে হয়েছে করেছেন ৷ যিনি বছরের অধিকাংশ সময় বিদেশে ঘুরে বেড়ান, তিনি কী করে দেশের চৌকিদার হবেন ? উনি জমিদার ৷ চৌকিদারের কাজ করবেন কীভাবে ৷

১১. নিউজ18 বাংলা: তার মানে পুলওয়ামা, সার্জিক্যাল স্ট্রাইক, এগুলো কোনও প্রভাব পড়বে না ?

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: আমরা জওয়ানদের শ্রদ্ধা করি ৷ জওয়ানরা আমাদের সম্পদ ৷ ওরা কোনও রাজনৈতিক দলের অংশ নয় ৷ কিন্তু ওনার হেরে যাওয়ার এত ভয়, যে জওয়ানদের নির্বাচনে ব্যবহার করছেন ৷ এত অহঙ্কারের পতন ওদের হবেই ৷

১২. নিউজ18 বাংলা:  বিজেপি সভাপতি এরাজ্যকে সিন্ডিকেটের রাজ্য এবং তোলাবাজির সরকার বলছেন ৷

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: উনি মা মাটি মানুষের সরকারকে অপমান করছেন ৷ তোলাবাজ বলছেন তৃণমূলকে ৷ উনি কী ? হাজার হাজার কোটি টাকা ওরা চুরি করেছে ৷ ফাইলও সব নাকি চুরি হয়ে যাচ্ছে ৷ এত ক্ষমতা থাকলে সামনা সামনি বসুক ৷ কে তোলাবাজ আর কে ধোকাবাজ সেটা স্পষ্ট হয়ে যাবে ৷

১৩. নিউজ18 বাংলা: বিজেপি-র দাবি, বিরোধীদের মধ্যে কোনও প্রধানমন্ত্রী হওয়ার যোগ্য মুখ নেই ৷ এব্যাপারে আপনি কী বলবেন ?

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: ধুর ওদের কথা ছাড়ুন তো ! আপনাদের এই নিয়ে চিন্তা করার কিছু নেই ৷ রবীন্দ্রনাথের একটা গান মনে করিয়ে দিই, আমরা সবাই রাজা আমাদের এই রাজার রাজত্বে... ৷ ওদের একা দাম্ভিক মোদি থাকলেও আমাদের মধ্যে জনগনের নেতা অনেকে রয়েছেন ৷ ভোটের পরে সব ঠিক করে নেব আমরা, কে প্রধানমন্ত্রী হবেন ৷

১৪. নিউজ18 বাংলা: বিরোধী জোটের সম্ভাবনা কতদূর ?

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: একশো-তে একশো শতাংশ ৷ দেখছেনই তো কত রাজ্যে বিরোধী জোট ইতিমধ্যেই তৈরি হয়ে গিয়েছে ৷ এছাড়া বিজেপি-র সঙ্গে অনেক জায়গায় অনেক পার্টির জোট হয়েছে ৷ আমি বিশ্বাস করি না পরে তারা বিজেপি-কে সমর্থন করবে ৷ সব আঞ্চলিক দলগুলিই একজোট হয়ে যাবে ৷ এবং একটা জাতীয় দলকে এদের সমর্থন দিতে হবে ৷

১৫. নিউজ18 বাংলা: সেই দল কী কংগ্রেস ?

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: আমি কারোর নাম নিচ্ছি না ৷ কংগ্রেসের করা উচিৎ ৷ যারা ধর্মনিরপেক্ষতায় বিশ্বাসী ৷ সারে জাহা সে অচ্ছা, হিন্দুস্তান হমারা -তে বিশ্বাস করে তাদের এগিয়ে আসা উচিৎ ৷

১৬. নিউজ18 বাংলা: কিন্তু কংগ্রেসও এরাজ্যে আপনার সঙ্গে লড়াই করছে ৷ রাহুল গান্ধিও কিন্তু মালদহে এসে বলেছেন মোদি এবং দিদি মুদ্রার এপিঠ আর ওপিঠ ৷

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: ওনারা কী বলল তাতে আমার কিছু এসে যায় না ৷ কেউ ভুল করলে আমাকেও ভুল করতে হবে, সেটা আমি বিশ্বাস করি না ৷ তারা দু’টো আসন পাওয়ার জন্য যা খুশি বলতে পারে ৷ আমি কিন্তু এটা করি না ৷ কারণ এটাই আমার সঙ্গে ওদের পার্থক্য ৷ কারণ আমি বৃহৎ স্বার্থটা দেখি এরা ক্ষুদ্র স্বার্থটা দেখে ৷

সিপিএম, কংগ্রেস, বিজেপি বাংলায় সবাই জানে জগাই-মাধাই-গদাই ৷ তৃণমূল কংগ্রেসই একমাত্র মোদিকে হঠাতে পারে ৷ ভারতবর্ষের গতিপথ ঠিক করবে বাংলার মানুষই ৷ বাংলাই আগামী দিনে ভারতবর্ষ তৈরি করবে ৷

১৭. নিউজ18 বাংলা: তাহলে আপনি Key ফ্যাক্টর ভারতবর্ষের ভবিষ্যত রাজনীতিতে ?

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: আমি Key ফ্যাক্টর কী না জানি না ৷ কিন্তু আমি কী করব, সেটা জানি ৷ আমরা জানি ভারতকে কীভাবে ঐক্যবদ্ধ রাখতে হবে ৷ সব ধর্মের মানুষকে নিয়ে একসঙ্গে চলতে আমরা জানি ৷ আমার সঙ্গে অন্যান্য রাজ্যের অনেক নেতারাই আছেন ৷ বাংলাই পথপ্রদর্শক ৷ বাংলাই আগামী দিনে পথ দেখাবে দেশের রাজনীতিতে ৷

১৮. নিউজ18 বাংলা: আপনি তো সিপিআইএম-এর সঙ্গে অনেক লড়াই করেছেন ৷ যতো সময় যাচ্ছে এরাজ্যে বামেদের অবনতি ঘটছে ৷ বামেদের ভোট রামেদের দিকেই যাচ্ছে ৷

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: সিপিআইএম-এর কিছু স্বার্থপর নেতা রয়েছে ৷ যাঁরা নিজেদের স্বার্থের জন্য বিজেপি-র সঙ্গে এক হয়েছে ৷ বিভিন্ন জায়গায় তাদের সাহায্য করছে বামেরা ৷ বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের মতো অনেক নেতারাই রয়েছেন, যাদের নিজস্ব মতাদর্শ রয়েছে ৷ কিন্তু অধিকাংশ নেতাদেরই নেই ৷

১৯. নিউজ18 বাংলা: আপনার দলেরও তো অনেক নেতারা রয়েছেন যারা দল ছেড়ে বিজেপি-তে যাচ্ছেন ৷

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: আরে ধুর ধুর ! এরকম দু’একজন তো থাকবেই ৷ আপনি মাছ ধরতে নেমেছেন ৷ সব মাছ কী ধরা সম্ভব না কী ৷ যারা জানেন টিকিট পাবেন না, তারাই যাবেন অন্য দলে ৷ সারাবছর কাজ করবে না ৷ আর ভোটের সময় টিকিট পাবে বলে মনে করেন ৷ তাদের দল রাখতে বাধ্যও নয় ৷

২০. নিউজ18 বাংলা:  ব্যারাকপুর জিতবেন ?

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: অবশ্যই জিতব ! জামানত বাজেয়াপ্ত করে দেব ৷ ভাবেন দুটো গদ্দার মিলে টাকা খরচ করলেই হবে ৷ টাকা দিয়ে ভোট কেনা যাবে না ৷ সবসময় ত্রিপুরা দেখায় আমায় ৷ ওটা একটা মিউনিসিপ্যালিটির মতো ছোট রাজ্য ৷ বাংলার সঙ্গে কী করে তুলনা করা হয় !

২১. নিউজ18 বাংলা:  আপনি সমীক্ষায় বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন না ৷ তাও বলছি যে পুরুলিয়া, বাঁকুড়া, রায়গঞ্জের মতো অনেক আসনেই এবার তৃণমূলের জেতা কঠিন বলে সার্ভে রিপোর্টে দেখা যাচ্ছে ৷

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: ওরা কান্নাকাটি করছে ৷ করতে দিন ৷ অনেক অফিসারের বদলি চাইছেন ৷ ওরাই ভয় পাচ্ছে ৷ আমাদের চমকে ধমকে কোনও লাভ নেই ৷ আমরা বিজেপি সরকার বদলে দেব ৷

২২. নিউজ18 বাংলা:   বেশ কয়েকটি জেলা রয়েছে ৷ আপনার গোল্ডেন সময়ও সেভাবে ভাল ফল করতে পারেননি ৷ সেটা হল মালদহ, মুর্শিদাবাদ এবং উত্তর দিনাজপুর ৷ এবারে কী এখানে ঘাস-ফুল ফুটবে ?

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: মালদহ উত্তরে মৌসম নুর জিতবেন ৷ মালদহ দক্ষিণে ডা: মোয়াজ্জেম হোসেন জিতবেন ৷ রায়গঞ্জে কানহাইয়া আগরওয়াল জিতবেন ৷ মুর্শিদাবাদে আবু তাহের জিতবেন ৷ জঙ্গিপুরে খলিলুর রহমান জিতবেন এবং বহরমপুরে অপূর্ব জিতবেন ৷ লিখে নিন ৷ এই কারণে কংগ্রেস ভয় পেয়ে গিয়েছে ৷ বিজেপি-কে ফোন করে বলছে অফিসার বদলে দিন ৷ ওদের ক্ষমতা থাকলে বলুন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীই বদলে দিতে ৷

২৩. নিউজ18 বাংলা: বিজেপি, কংগ্রেসের পর তৃণমূলই কি দেশের তৃতীয় বৃহত্তম রাজনৈতিক দল বলে মনে করেন আপনি ?

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: আমি তো একনম্বরও হতে পারি ৷ আপনি এত ভাবছেন কেন ৷ আমি তো অনেক জায়গায় লড়িনি ৷ কিন্তু আমার বন্ধুবান্ধব অনেকে রয়েছেন বিভিন্ন রাজ্যে ৷ তাঁদের সঙ্গেও তো আমার একটা ফ্রন্ট রয়েছে ৷ এবার আমরা আন্দামান, অসমে, ওড়িশাতেও লড়ছি ৷ এভাবেই আমরা ধীরে ধীরে এগোচ্ছি ৷ অখিলেশ উত্তরপ্রদেশে লড়ছে, ও আমার বন্ধু ৷ মায়াবতী লড়ছেন, উনি আমার বন্ধু ৷ মহারাষ্ট্রে এনসিপি লড়ছে, ওরা আমার বন্ধু ৷ বিহারে লালু-প্রসাদের ছেলেরা লড়ছেন ওরা আমার বন্ধু ৷ তামিলনাডুতে স্তালিনরা রয়েছেন ৷ দিল্লিতে অরবিন্দ কেজরিওয়াল রয়েছেন ৷ ওরা সবাই আমার বন্ধু ৷ আমাদের অবজ্ঞা করবেন না ৷

২৪. নিউজ18 বাংলা: লালকৃষ্ণ আডবাণী কিছুদিন আগে জানিয়েছিলেন, বিরুদ্ধ মত মানেই দেশদ্রোহী নয় ৷ মুরলী মনোহর যোশীও অনেক কিছু বলেছেন ৷ এব্যাপারে আপনি কী বলবেন ?

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: দেখুন আমি অটলবিহারী বাজপেয়ী, লালকৃষ্ণ আডবাণী, রাজীব গান্ধি, আইকে গুজরালের সঙ্গে কাজ করার সুযোগ পেয়েছি ৷ সাতবার সাংসদ হয়েছি ৷ দু’বার বিধায়ক হয়েছি ৷ আমি এরকম ঔদ্ধত্যপূর্ণ প্রধানমন্ত্রী কখনও দেখিনি ৷ লালকৃষ্ণ আডবাণী ডেপুটি প্রধানমন্ত্রী ছিলেন ৷ তিনি অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা বিজেপি-র ৷ আজকে এই আডবাণীজী-কে এরা চেনে না ৷ অটলজী আজ বেঁচে নেই ৷ এদের সম্পর্কে কী ধারণা ছিল অটলজী-র আপনারা সবাই জানেন ৷ তাই বিজেপি-র সবাই যে খারাপ তা তো বলব না ৷ কিন্তু আজ যাঁরা দলটিকে এমন নিম্ন পর্যায় নামিয়েছেন ৷ তাঁরা দাঙ্গা করা ছাড়া আর কিছু জানেন না ৷ ধার্মিকতার রাজনীতি করছেন ৷ আধার কার্ডের নামে জালিয়াতি করছে ৷ ফোন, এসএমএস, ইন্টারনেট, সোশ্যাল মিডিয়া সব কিছুই দখল করে রেখেছে ৷

২৫. নিউজ18 বাংলা:  অমিত শাহ-কে নিয়ে আপনার কী ধারণা ?

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: প্লিজ আমাকে ওঁর সম্পর্কে জিজ্ঞেস করবেন না ৷ ওঁকে আমি চিনিও না ৷ দাঙ্গাবাজ ছাড়া আর কিছুই বলা যাবে না ৷ আপনি আমাকে সুষমাজী, রাজনাথ সিং সম্পর্কে জিজ্ঞেস করুন ৷ রাজনাথ যদিও ভীতুর ডিম ৷ এমনকী, বিজেপি-র কোনও স্থানীয় নেতাকে নিয়ে জিজ্ঞেস করুন ৷ আমি বলে দেব ৷ কিন্তু অমিত শাহ-কে নিয়ে আমার কিছুই বলার নেই ৷ নীতিন গডকরির মতো অনেক ভাল মানুষও রয়েছেন ৷ হয়তো আমার ইন্টারভিউ দেখে মোদি ওঁকে আমার বিরুদ্ধে ১০টা বিবৃতি দিতে বলবেন ৷ ওরাঁ চাপের মুখে সেটা করেনও ৷ আমাকে অনেক সময় বলেও নেন যে আপনার সম্পর্কে খারাপ কথা বলার জন্য পার্টি বাধ্য করছে আমাকে ৷

২৬.নিউজ18 বাংলা: যাদবপুরে মিমি চক্রবর্তীকে প্রার্থী করা নিয়ে অনেকেই প্রশ্ন তুলছেন ?

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: মিমি খুব ভাল মেয়ে ৷ ও খুব ভাল কাজ করবে ৷ কাজ তো কর্মীরা করেন ৷ আমি করি ৷ ওঁর বিরুদ্ধে যাঁকে সিপিআইএম প্রার্থী করেছে, তিনি কে ? তিনি একসময় কলকাতার মেয়র ছিলেন ৷ যখন শহরে কোমর পর্যন্ত জল জমে যেত ৷ তখন উনি ঘুরে বেড়াতেন ৷ আর কী কী করতেন, সবই জানা আছে ৷ আমাকে সেগুলো বলার জন্য বাধ্য করবেন না ৷

First published: 09:40:30 PM Apr 08, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर