রোশন গিরি ছাড়া আর কারোর পদত্যাগপত্র পাওয়া যায়নি, দাবি নবান্নের– News18 Bengali

রোশন গিরি ছাড়া আর কারোর পদত্যাগপত্র পাওয়া যায়নি, দাবি নবান্নের

রোশন গিরি ছাড়া আর কারও পদত্যাগপত্র পায়নি নবান্ন ৷

Siddhartha Sarkar | News18 Bangla
Updated:Jun 24, 2017 07:44 PM IST
রোশন গিরি ছাড়া আর কারোর পদত্যাগপত্র পাওয়া যায়নি, দাবি নবান্নের
Siddhartha Sarkar | News18 Bangla
Updated:Jun 24, 2017 07:44 PM IST

#কলকাতা:  রোশন গিরি ছাড়া আর কারও পদত্যাগপত্র পায়নি নবান্ন ৷ স্বরাষ্ট্র দফতরে কোনও পদত্যাগপত্র পৌঁছয়নি বলেই আজ, শনিবার নবান্নের তরফে জানানো হয়েছে ৷

পদত্যাগ করলে স্বরাষ্ট্র দফতরকে জানাতে হবে ৷ GTA থেকে ৪৫ জন সদস্য ইতিমধ্যেই পদত্যাগ করেছেন বলে শুক্রবারই দাবি করে গোর্খা জন মুক্তি মোর্চা ৷ কিন্তু স্বরাষ্ট্র সচিবকে পদত্যাগপত্র পাঠিয়েছেন শুধু রোশন গিরি ৷ পদত্যাগপত্র যদি কেউ সরাসরি রাজ্যপালকে পাঠিয়ে থাকেন ৷ তাহলে GTA-এর সেই পদত্যাগপত্র বৈধ নয় ৷ স্বরাষ্ট্র দফতরকেই পাঠাতে হবে পদত্যাগপত্র বলে জানিয়েছে নবান্ন ৷

এদিকে এদিন একা নয়, পাহাড়ের সব রাজনৈতিক দলকে নিয়েই শক্তি জাহির করল মোর্চা। পৃথক রাজ্যের দাবিতে শনিবার মিছিল হয় দার্জিলিং, মিরিক, কার্শিয়ং এবং কালিম্পংয়ে। কর্মসূচিতে যোগ দেয় জিএনএলএফ, জাপের মতো একদা মোর্চা বিরোধী শক্তিও। পাহাড় থেকে আধাসেনা ও সেনাবাহিনী প্রত্যাহারের দাবি তোলেন বিক্ষোভকারীরা।

রাজ্যের কৌশলে চাপে পড়েছে মোর্চা। তাই একলা চলো নীতি ছেড়ে, এবার সম্মিলিত লড়াইয়ের ঘোষণা বিমল গুরুংয়ের। শনিবার, সেই ছবিই দেখল, দার্জিলিং, মিরিক, কার্শিয়ং ও কালিম্পং। গোর্খা জনজাতির ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরে চকবাজারে জমায়েত করেন মোর্চা সমর্থকরা। জেলাশাসকের দফতর হয়ে মিছিল চলে পাতলেবাস পর্যন্ত।

তৃণমূল কংগ্রেসের দখলে থাকা মিরিক পুরসভাতেও গোর্খাল্যান্ডের সমর্থনে চলে মিছিল। প্রায় কুড়ি হাজার মানুষের জমায়েত হয়। বিক্ষোভে যোগ দেন জিএনএলএফ ও জাপ সমর্থকরা। মিছিল চলে কার্শিয়ং ও কালিম্পং শহরেও। মোর্চার চাপে ভাঙন ধরেছে কালিম্পঙের তৃণমূল কংগ্রেসে। জোড়াফুল শিবির ছেড়ে মোর্চায় যোগ দিয়েছেন ৯ ও ১২ নম্বর ওয়ার্ডের দুই কাউন্সিলর। শনিবার, সমতলেও বিক্ষোভ কর্মসূচি শুরু করে মোর্চা। এদিন, শিলিগুড়িতেও মিছিল করে তারা। কিন্তু, পুলিশি বাধা সেই বিক্ষোভ আর দানা বাঁধেনি।

Loading...

গত শনিবার, মোর্চার কর্মসূচিতে হিংসার ঘটনায় ব্যাকফুটে মোর্চা। শনিবার, বিক্ষোভের সেই আঁচ কমেছে অনেকটাই। কিন্তু, সতর্ক প্রশাসন।

অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলিকে নিয়ে আন্দোলনকে সার্বিক চেহারা দেওয়ার চেষ্টা করছে মোর্চা। তাই শক্তি প্রদর্শনের চালই দিচ্ছেন বিমল গুরুংরা।

First published: 07:42:59 PM Jun 24, 2017
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर