পঞ্চায়েত আইন নিয়ে একেবারেই নাকি ওয়াকিবহল নন খোদ নির্বাচন কমিশনারই !

পঞ্চায়েত আইন নিয়ে একেবারেই নাকি ওয়াকিবহল নন খোদ নির্বাচন কমিশনারই !
Photo: News 18

তাঁর হাতেই পঞ্চায়েত নির্বাচনের দায়িত্ব। অথচ পঞ্চায়েত আইনটা ভালো করে জেনে উঠতে পারেননি অমরেন্দ্র কুমার সিং। নিজে জেরবার হচ্ছেন। মুখ পুড়ছে রাজ্য নির্বাচন কমিশনের।

  • Share this:

#কলকাতা: তাঁর হাতেই পঞ্চায়েত নির্বাচনের দায়িত্ব। অথচ পঞ্চায়েত আইনটা ভালো করে জেনে উঠতে পারেননি অমরেন্দ্র কুমার সিং। নিজে জেরবার হচ্ছেন। মুখ পুড়ছে রাজ্য নির্বাচন কমিশনের। প্রশ্ন হল, কমিশনারকে সঠিক পরামর্শটুকুও কি দিয়ে উঠতে পারেননি কমিশনের অফিসাররা ? নাকি দিলেও তা উপেক্ষাই করেন অমরেন্দ্র ?

একের পর এক ভুল। কখনও আইনটাই না জেনে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। কখনও আবার চাপের মুখে নতিস্বীকারের অভিযোগ উঠছে। ভোট শুরু হওয়ার আগেই হোয়াটসঅ্যাপে ঘুরছে অমরেন্দ্র সিং জোকস।

কোথায় ভুল হল নির্বাচন কমিশনারের ?  পঞ্চায়েতে মনোনয়ন জমার শেষদিন ছিল সোমবার ৷ বিজেপির করা মামলায় সব প্রার্থীর মনোনয়ন নিশ্চিত করতে বলে সুপ্রিম কোর্ট ৷ রায়ের তাৎপর্যই বুঝতে পারেননি নির্বাচন কমিশনার ৷ পঞ্চায়েত আইন নিয়েও যথেষ্ট ধারণা ছিল না কমিশনারের গুরুত্বপূর্ণ পদে থেকেও সিদ্ধান্ত নিতে গড়িমসি ৷

এখানেই শেষ নয়। ভোট প্রস্তুতি নিয়ে রাজ্যপালের সব প্রশ্নের জবাব দিতেও পারেননি। নানা দিক থেকে চাপে পড়ে ভেঙে পড়েন অমরেন্দ্র। গত দু-দিনের ঘটনাতেই তা স্পষ্ট।

-বিরোধীদের দাবি সত্ত্বেও প্রথমে ৯ তারিখ মনোনয়নের সিদ্ধান্ত থেকে সরেনি কমিশন ৷

-মনোনয়নপত্র পেশের সময়সীমা শেষ হওয়ার পর বিজেপি প্রতিনিধিদের সঙ্গে দেখা করেন কমিশনার ৷

-বিজেপির দাবিতেই কার্যত নতুন সিদ্ধান্ত নেন কমিশনার ৷

-মঙ্গলবারও মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া যাবে বলে বিজ্ঞপ্তি জারি হয় ৷

-২০০৩ সালের সংশোধিত পঞ্চায়েত আইনে এমনটা করা যায় না ৷

- আইন না জেনেই নির্বাচন কমিশনারের সিদ্ধান্তে জট তৈরি হয়  ৷

-বিজ্ঞপ্তি বাতিলেও আইনের তোয়াক্কা করেননি নির্বাচন কমিশনার ৷

কমিশনার না হয় অজ্ঞতার শিকার। কমিশনের বাকি অফিসাররা কি করলেন? তাঁরা আর একটু সক্রিয় হলে কী মুখরক্ষা হত না রাজ্য নির্বাচন কমিশনের?

First published: 09:27:17 AM Apr 11, 2018
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर