West Bengal 7th Phase Election: 'পর্যবেক্ষদের অঙ্গুলিহেলনেই আগাম গ্রেফতারি', মমতার তত্ত্ব ওড়াল নির্বাচন কমিশন

West Bengal 7th Phase Election: 'পর্যবেক্ষদের অঙ্গুলিহেলনেই আগাম গ্রেফতারি', মমতার তত্ত্ব ওড়াল নির্বাচন কমিশন

মমতা বন্দ্যোপাধ্যয়ের দাবির জবাব ফেরাল নির্বাচন কমিশন।

২৪ ঘণ্টার মধ্যে তৃণমূল নেত্রীর এই অভিযোগের জবাব দিতে আসরে নামল কমিশনও। কমিশনের তরফে মমতার অভিযোগকে সর্বাংশে খণ্ডন করা হয়েছে।

  • Share this:

#কলকাতা: পর্যবেক্ষকদের নির্দে‌শে ভোটের আগেই তৃণমূলের কর্মীদের আটক করা হচ্ছে। কর্মীদের দুষ্কৃতী বলে দাগিয়ে দেওয়া হচ্ছে। এমনই চাঞ্চল্যকর অভিযোগ এনেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়। এর বিরুদ্ধে ভবিষ্যতে আদালতে যাওয়ার বার্তাও দিয়ে রেখেছিলেন তিনি।  ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তৃণমূল নেত্রীর এই অভিযোগের জবাব দিতে আসরে নামল কমিশনও। কমিশনের তরফে মমতার অভিযোগকে সর্বাংশে  খণ্ডন করা হয়েছে।

এ দিন একটি বিবৃতি দিয়ে নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, "মিডিয়ার একাংশে প্রকাশিত হয়েছে  মাননীয়া তৃণমূল নেত্রী অভিযোগ করেছেন নির্বাচন কমিশনের কয়েকজন আধিকারিক এবং পর্যবেক্ষকরা কয়েকজন অধস্তনকে নির্দেশ দিয়েছেন, তৃণমূলী দুষ্কৃতীদের গ্রেফতার করতে। এমন কোনও নির্দেশই নির্বাচন কমিশনের অফিসাররা দেননি। এই অভিযোগ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন, মিথ্যে। কমিশনের তরফে কোনও দলের কোনও কর্মীর বিরুদ্ধে কোনও  ব্যবস্থা নিতে বলা হয়নি।"

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বোলপুরের নির্বাচনী জনসভা থেকেই হুঁশিয়ারি দিয়ে রেখেছিলেন, এই ধরনের ঘটনার বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে যাবেন তিনি ভোটপর্ব মিটলে। সেই প্রসঙ্গটিও এসেছে কমিশনের এদিনের বিবৃতিতে। সেখান বলা হয়েছে,  মুখ্যমন্ত্রী আইনি রাস্তায় হাঁটার কথা বলেছেন। যদিও এখনও পর্যন্ত কোনও পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে জানা যায়নি। আর ভুল তথ্য বা আইনি পদক্ষেপের কথা ছেড়ে দিলেও, এখনও পর্যন্ত কোনও ভাবেই কোনও রাজনৈতিক কর্মীকে আগাম আটক করার ঘটনা কমিশনের নজরে পড়েনি।

 প্রসঙ্গত কমিশন জানিয়েছে, স্বচ্ছ নির্বাচন করতে দুর্বৃত্তদের ইতিহাসে নজর রাখতে হয়। দণ্ডসংহিতা মেনেই অনেক সময়ে আগাম ব্যবস্থা নেওয়া যেতে পারে। বিশেষত নির্বাচনী হিংসার রেকর্ড রয়েছে এমন কারও বিরুদ্ধে বেশি সতর্ক থাকে কামিশন। যারা ভোটরকে ত্রস্ত করতে পারে, তাদের বিরুদ্ধে বাহিনীর ব্যবস্থা নেওয়াই উচিত।

শনিবার, মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায় সাংবাদিক বৈঠক করে বলেন,  কমিশন ফোন করে নির্দেশ দিচ্ছে আর  তাঁর দলের নেতাদের নির্বাচনের আগে গ্রেফতার করে নেওয়া হচ্ছে। তাঁর কাছে এই দাবির সপক্ষে সমস্ত হোয়াটস অ্যাপ চ্যাট আছে বলেও জানান তৃণমূল সুপ্রিমো। তাঁর কথাায়, আমি নির্বাচন মিটলেই সুপ্রিম কোর্টে যাব। এর পরেই তিনি ঘোষণা করেন, "২০১৬ সালেও অনেক সহ্য করেছি। দেশে আগামী দিনে কী ভাবে নির্বাচন স্বচ্ছ ভাবে করা যায় তা আমরা দেখে নেবো।"

এ দিন তারই পাল্টা এল কমিশনের তরফে। সব মিলিয়ে সপ্তম দফার আগে বঙ্গ রাজনীতি সরগরম।

-Reported by Somraj Banerjee

Published by:Arka Deb
First published:

লেটেস্ট খবর