‘আপনার আচরণের নিন্দা করি’, রাজ্যপালের ট্যুইটের উত্তর শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের

‘আপনার আচরণের নিন্দা করি’, রাজ্যপালের ট্যুইটের উত্তর শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের

রাজ্য রাজ্যপাল সংঘাত আরও জোরালো৷ যাদবপুরের সমাবর্তনের সামগ্রিক পরিস্থিতি নিয়ে গত দুদিন ধরে মুখ না খুললেও এদিন ট্যুইট করে শিক্ষা মন্ত্রী বুঝিয়ে দিলেন তিনি বিশ্ববিদ্যালয়় কর্তৃপক্ষ ও ছাত্র-ছাত্রীদের পাশেই রয়েছেন।

  • Share this:

SOMRAJ BANDOPADHYAY #কলকাতা: রাজ্য রাজ্যপাল সংঘাত আরও জোরালো। বৃহস্পতিবার সকালেই ট্যুইট করে নিজের ক্ষোভ প্রকাশ করেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় বলেন, ‘আচার্যকে দায়িত্ব পালনে বাধা দেওয়া হচ্ছে। রাজ্যের দায়িত্বপ্রাপ্তরা হাত গুটিয়ে বসে আছেন।’ অবশেষে তার কড়া জবাব দিলেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। রাজ্যপালকে ট্যাগ করেই শিক্ষামন্ত্রীর উত্তর ‘আপনার আচরণের নিন্দা করি’। ট্যুইট করে পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন ‘আপনি প্রত্যেকদিন নির্দিষ্ট উদ্দেশ্য নিয়ে রাজ্য সরকারকে যেভাবে অপমানিত ও সমালোচিত করছেন তা নিয়ে আমি একজন তৃণমূল কর্মী হিসেবে অবাকই হচ্ছি। আপনি শুধু সরকারকে নন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়াদের ও নিন্দা করার হাত থেকে রেহাই দিচ্ছেন না। আমাদের সমবেদনা আছে পড়ুয়াদের সঙ্গে, কিন্তু আপনার আচরণে নিন্দা করি’। শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের এই কড়া উত্তর দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই রাজ্য রাজ্যপাল সংঘাত আরও বাড়ল।

বৃহস্পতিবার অবশ্য রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের ট্যুইট শুধুমাত্র দুটি লাইন এই থেমে থাকেনি। আবারও তিনি ট্যুইট করে বলেন, ‘কম সংখ্যক মানুষ বিশৃঙ্খলা তৈরি করছেন। যারা সংখ্যাগরিষ্ঠ তারা নীরব ও নিষ্ক্রিয়। সংখ্যাগরিষ্ঠকে সরব হতে বলছি। প্রতিবাদ গণতন্ত্রের দামি উপহার। অসহিষ্ণুতা অশান্তিতে প্রতিবাদ দূষিত। দু’দিন যাদবপুরে ঢুকতে বাধা। বিক্ষোভকারীরা আত্মদর্শন করুন। গান্ধীজির জন্মের সার্ধশতবর্ষে এটাই অনুরোধ।’ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রাজ্যপালের এই ট্যুইটের প্রশ্ন উত্তর ট্যুইট করেই দিলেন শিক্ষামন্ত্রী। প্রসঙ্গত, গত মঙ্গলবার যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের বার্ষিক সমাবর্তন অনুষ্ঠান ঘিরে বিক্ষোভের মুখে পড়েন রাজ্যপাল। বার্ষিক সমাবর্তনে যোগ না দিয়েই ফিরে যেতে হয় তাকে। শুধু তাই নয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কোট বৈঠকেও ঢুকতে বাধা বাধা দেন কর্মচারীদের একাংশ। তার জেরে কোট বৈঠকেও ঢুকতে না পেরে পড়ুয়াদের সঙ্গে কথা বলেই রাজভবনে ফিরে যেতে হয় রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়কে। তারপর কোর্ট বৈঠক নিয়েও যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের সঙ্গে রীতিমত টানাপোড়েন চলে রাজ্যপালের। কোর্ট বৈঠক রাজভবনে করার নির্দেশ দিলেও উপাচার্য গত সোমবার কোর্ট বৈঠকের সদস্যদের সম্মতি নিয়েই বিশ্ববিদ্যালয়ে তা শেষ করেন। তা নিয়ে অবশ্য ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন রাজ্যপাল। যাদবপুরের সমাবর্তনের সামগ্রিক পরিস্থিতি নিয়ে গত দুদিন ধরে মুখ না খুললেও এদিন ট্যুইট করে শিক্ষা মন্ত্রী বুঝিয়ে দিলেন তিনি বিশ্ববিদ্যালয়় কর্তৃপক্ষ ও ছাত্র-ছাত্রীদের পাশেই রয়েছেন।

First published: December 26, 2019, 11:12 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर