বিপ্লবী সন্ত্রাসবাদী তকমা নয় ক্ষুদিরামকে

বিপ্লবী সন্ত্রাসবাদী তকমা নয় ক্ষুদিরামকে

ক্ষুদিরামকে কেন বিপ্লবী সন্ত্রাসবাদী বলা হবে তা নিয়ে গত কয়েক বছর ধরেই চলছিল বিতর্ক। অবশেষে সেই বিতর্কের অবসান হল।

  • Share this:

Somraj Banerjee

#কলকাতা: পাঠ্যবই থেকে ক্ষুদিরামের বিপ্লবী সন্ত্রাসবাদী তকমা উঠল । রাজ্যের অষ্টম শ্রেণির ইতিহাস বইতে ক্ষুদিরামকে বিপ্লবী সন্ত্রাসবাদীর বদলে স্বাধীনতা সংগ্রামের বিপ্লবী ক্ষুদিরাম বলা হবে। এমনই সিদ্ধান্ত নিল রাজ্য স্কুল শিক্ষা দফতর । দ্রুত অষ্টম শ্রেণীর ইতিহাস বই সংশোধন করে পড়ুয়াদের নতুন বই দিতে হবে বলে মধ্যশিক্ষা পর্ষদ ও সিলেবাস কমিটিকে নির্দেশ দিল রাজ্য স্কুল শিক্ষা দফতর । ক্ষুদিরামকে কেন বিপ্লবী সন্ত্রাসবাদী বলা হবে তা নিয়ে গত কয়েক বছর ধরেই চলছিল বিতর্ক। অবশেষে সেই বিতর্কের অবসান হল।

২০১২-১৩ শিক্ষাবর্ষ থেকেই রাজ্য সিলেবাস কমিটি অষ্টম শ্রেণীর অতীত ও ঐতিহ্য নামে ইতিহাস বই তৈরি করে। বই তৈরীর পর পরই শুরু হয় বিতর্ক। ক্ষুদিরামকে  সন্ত্রাসবাদী কেন বলা হয়েছে তা নিয়ে প্রশ্ন তোলে বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি। সেই অভিযোগের জেরে প্রথম দফায় রাজ্য স্কুল শিক্ষা দফতর ইতিহাসবিদদের নিয়ে একটি কমিটি তৈরি করে। সেই কমিটি অবশ্য সিলেবাস কমিটির কাজকে সঠিকই বলেছিল।

সম্প্রতি ফের বিধানসভার গ্রীষ্মকালীন অধিবেশনে ক্ষুদিরামকে বিপ্লবী সন্ত্রাসবাদী বলা নিয়ে ফের সরব হয় রাজনৈতিক দলগুলি ৷ বিশেষত বাম ও বিজেপি এ ব্যাপারে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। বিধানসভায় দাঁড়িয়েই বিধায়ক তথা শিক্ষাবিদ জীবন মুখোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে মুখ্যমন্ত্রী অষ্টম শ্রেণির পাশাপাশি স্কুল পাঠ্য বই নিয়ে একটি রিভিউ কমিটি তৈরি করে দেন । চার সদস্যের সেই রিভিউ কমিটি গত ২৭ নভেম্বর মুখ্যমন্ত্রী ও স্কুল শিক্ষা সচিবের কাছে রিপোর্ট জমা দেন।

রিপোর্টে বলা হয়েছে,

1)পড়ুয়াদের মধ্যে সন্ত্রাসবাদী শব্দটি আঘাত করতে পারে।

2) শুধু পড়ুয়া নয় মানুষের মনের মধ্যে অন্যরকম প্রতিক্রিয়া তৈরি করতে পারে

3)পড়ুয়াদের কাছে অনেক সময় আছে আগামী দিনে এ নিয়ে চর্চা করার কারা সন্ত্রাসবাদী কারা বিপ্লবী।

4) তাই সন্ত্রাসবাদী শব্দটি অষ্টম শ্রেণির ইতিহাস বইতে দেওয়াটা অনেকটা তাড়াতাড়ি হয়ে যাচ্ছে।

5) তাই সন্ত্রাসবাদী শব্দটি তুলে দেওয়া দরকার।

এই রিপোর্ট রিভিউ কমিটি জমা দেওয়ার পরপরই শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করেন। তারপর এই সন্ত্রাসবাদী শব্দটি তুলে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় রাজ্য স্কুল শিক্ষা দফতর। ইতিমধ্যেই সর্বশিক্ষা মিশনের তরফে অধিকর্তা দেবাঞ্জন দাস নির্দেশিকা জারি করে মধ্যশিক্ষা পর্ষদ সিলেবাস কমিটিকে এই সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে দিয়েছেন। এর পাশাপাশি বলা হয়েছে দ্রুত বই সংশোধন করে নতুন বই পড়ুয়াদের হাতে তুলে দিতে। এ বিষয়ে অবশ্য সিলেবাস কমিটির চেয়ারম্যান অভীক মজুমদার কোনো মন্তব্য করতে চাননি।

First published: 09:33:50 PM Dec 05, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर