আগের ক্লাসের পড়া শেষ করার পরেই পরবর্তী ক্লাসের পড়া! বড় সিদ্ধান্ত নিতে পারে শিক্ষা দফতর

আগের ক্লাসের পড়া শেষ করার পরেই পরবর্তী ক্লাসের পড়া! বড় সিদ্ধান্ত নিতে পারে শিক্ষা দফতর

প্রতীকী চিত্র।

এক্ষেত্রে যারা অষ্টম থেকে নবম শ্রেণিতে উঠেছেন এবং নবম থেকে দশম শ্রেণিতে উঠেছেন তাদের ক্ষেত্রে এই নিয়ম প্রযোজ্য করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে বলেই সূত্রের খবর।

  • Share this:

#কলকাতা: আগামী শুক্রবার থেকে রাজ্যজুড়ে খুলছে স্কুল। কিন্তু সব ক্লাসের নয়, নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত ছাত্র-ছাত্রীদের ক্লাস হবে ১২ ই ফেব্রুয়ারি থেকে। অন্তত এমনটাই নির্দেশ রাজ্য স্কুল শিক্ষা দপ্তরের। কিন্তু স্কুল খুললেও ক্লাস কি উপায় হবে? এখনো পর্যন্ত তার কোনো বিস্তারিত গাইড লাইন দেয়নি রাজ্য স্কুল শিক্ষা দপ্তরের আধিকারিকরা। করোনা পরিস্থিতিতে কীভাবে স্কুল খুলবে তা নিয়ে ২২ পাতার গাইডলাইন ইতিমধ্যেই জারি করেছে রাজ্য স্কুল শিক্ষা দপ্তর। কিন্তু সেই গাইডলাইনে পঠন-পাঠন কিভাবে হবে তা নিয়ে অবশ্য বিস্তারিত বলা ছিল না। সূত্রের খবর সে ক্ষেত্রে পরিকল্পনা নেওয়া হচ্ছে পুরনো ক্লাসের সিলেবাস শেষ করানো হবে। তারপরেই নতুন ক্লাসের সিলেবাস শুরু হবে। এক্ষেত্রে যারা অষ্টম থেকে নবম শ্রেণিতে উঠেছেন এবং নবম থেকে দশম শ্রেণিতে উঠেছেন তাদের ক্ষেত্রে এই নিয়ম প্রযোজ্য করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে বলেই সূত্রের খবর।

করোনা পরিস্থিতির জেরে গত বছরের মার্চ মাসের শেষ দিক থেকে স্কুল বন্ধ থাকার কারণে সব ছাত্রছাত্রী এবার পরবর্তী ক্লাসে তুলে দেওয়া হয়েছে। অনলাইনে ক্লাস হলেও সেভাবে সাফল্য আসেনি অনলাইন ক্লাসের। বলতো প্রত্যেকটি ক্লাসের ৩০ থেকে ৩৫ শতাংশ সিলেবাস শেষ করা গেলেও পুরো সিলেবাস ক্লাস রুমে শেষ করা যায়নি। সে ক্ষেত্রে নবম ও দশম শ্রেণীর মতো গুরুত্বপূর্ণ ক্লাস গুলিতে ছাত্র ছাত্রীদের আগের ক্লাসের সিলেবাস সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা না দিলে পরবর্তী ক্লাস এর ক্ষেত্রে তাদের সমস্যা হতে পারে বলে মনে করছেন শিক্ষকদের একাংশ। বিশেষত যারা এ বছর নবম শ্রেণীতে উঠেছেন তাদের অষ্টম শ্রেণীর বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে ধারণা নেওয়া দেওয়া হয় তাহলে নবম শ্রেণীর পঠন-পাঠনের দিকে ক্ষতি হতে পারে বলেই শিক্ষকদের একাংশের মত। আর সে কারণেই কী ভাবে এই সামগ্রিক পরিকল্পনায় রূপরেখা তৈরি করা যায় তা নিয়ে ইতিমধ্যেই ভাবনাচিন্তা শুরু করেছে সিলেবাস কমিটি বলেই সূত্রের খবর।

তবে এখনো পর্যন্ত এই ধাঁচে পড়ানো হবে নাকি তা চূড়ান্ত হয়নি। সূত্রের খবর ইতিমধ্যেই অনেকটাই পরিকল্পনা তৈরি করে ফেলেছে সিলেবাস কমিটির সদস্যরা। স্কুল শিক্ষা দপ্তরের তরফে সবুজ সঙ্কেত এলেই এই কাজে আরো গতি আসবে বলেই মনে করা হচ্ছে। তবে পুরনো ক্লাসের সিলেবাস পুরোটা ধরে ধরে পড়ানো সম্ভব নয় বলেই মনে করছেন শিক্ষকদের একাংশ। সে ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট কিছু অংশ বাছাই করে যা সেই ছাত্র ছাত্রীর পরবর্তী ক্লাসের সঙ্গে সামঞ্জস্য বা পঠন-পাঠনের ক্ষেত্রে কাজে লাগবে সেই বিষয় গুলি পড়ানো যেতে পারে এমন অংশগুলি রাখা যেতে পারে বলেই মত শিক্ষকদের একাংশের। তবে শুক্রবার থেকে নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণির ক্লাস শুরু হলেও আপাতত যারা এ বছরের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা দেবেন সেই ছাত্র ছাত্রীদের সিলেবাস শেষ করার আগেই সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করছেন শিক্ষকদের একাংশ।

 সোমরাজ বন্দ্যোপাধ্যায়

Published by:Arka Deb
First published: