• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ নির্বাচন কমিশনের! জেলায় জেলায় কড়া নজরদারি চালানোর বার্তা

রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ নির্বাচন কমিশনের! জেলায় জেলায় কড়া নজরদারি চালানোর বার্তা

File Photo

File Photo

‘‘জানুয়ারি মাসের মাঝামাঝি নির্বাচন কমিশনের ফুল বেঞ্চ আসতে পারে রাজ্যে ৷ তার আগেই যাবতীয় প্রস্তুতি নিয়ে রাখুন ৷’’ এমনটাই বার্তা ডেপুটি ইলেকশন কমিশনারের ৷

  • Share this:

#কলকাতা: বিধানসভা ভোটের দামামা অনেকদিন আগেই বেজে গিয়েছে এ রাজ্যে। ভোট প্রস্তুতি নিয়ে মোট দু’বার ইতিমধ্যেই মুখ্য নির্বাচন আধিকারিক জেলাশাসকদের সঙ্গে বৈঠকও সেরে ফেলেছেন। কিন্তু এবার পাঁচদিনের বঙ্গ সফরে এসেছেন ডেপুটি ইলেকশন কমিশনার সুদীপ জৈন।আর এই পাঁচদিনের বঙ্গ সফরের প্রথম দিনেই নির্বাচন কমিশনের নজরে আগামী বিধানসভা ভোটে রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি গুরুত্বপূর্ণ যে হতে চলেছে সেই বিষয়ে কার্যত বার্তা দিয়ে দিয়েছেন বৃহস্পতিবারের ডিএম-এসপিদের সঙ্গে হওয়া বৈঠকেই। জানুয়ারি মাসের মাঝামাঝি নির্বাচন কমিশনের ফুল বেঞ্চ আসতে পারে রাজ্যে ৷ তার আগেই যাবতীয় প্রস্তুতি নিয়ে রাখতে হবে ৷  বার্তা ডেপুটি ইলেকশন কমিশনারের ৷

বৃহস্পতিবার ডেপুটি চিফ ইলেকশন কমিশনারের সঙ্গে বৈঠকে বিহারের চিফ ইলেকশন অফিসার ছিলেন ভিডিও কনফারেন্স মারফত। করোনা পরিস্থিতিতে কী ভাবে বিহার নির্বাচন পরিচালনা করেছে সেই বিষয়ে বিহারের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগানোর কথা এই দিনের বৈঠকে ডিএম- এসপি-দের জানানো হয় বলেই সূত্রের খবর। করোনা পরিস্থিতির পাশাপাশি রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির ওপর বিশেষ নজর দেওয়া হয় এই দিনের বৈঠকে। সূত্রের খবর, বৃহস্পতিবারের বৈঠকে রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে নির্বাচন কমিশন।

বৈঠক থেকে জেলায় জেলায় আইন-শৃঙ্খলা উপর কড়া নজরদারি চালানোর জন্য বলা হয়। শুধু তাই নয় কোনও রাজনৈতিক দলের প্রার্থীদের প্রচার যেন কোন অসুবিধা না হয় সেটাও গুরুত্ব দিয়ে দেখার কথা বলা হয় এই দিনের বৈঠকে।পাশাপাশি প্রতিটি জেলায় যাবতীয় ঘটনা এবং তার পরিপ্রেক্ষিতে কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে এখন থেকে নির্বাচন কমিশনকে জানানোর কথা বলা হয়েছে ডিএম এসপি দের। বর্তমানে প্রত্যেকটি জেলায় ভোটার তালিকা সংশোধনের কাজ চলছে। সেই ভোটার তালিকা সংশোধনে যাতে কোনো সমস্যা না হয় সেটাও দেখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে এই দিনের বৈঠকে বলেই সূত্রের খবর। তবে জেলাশাসক পুলিশ সুপারদের মধ্যে হওয়া বৈঠকে পুরোটাই উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের স্বাস্থ্য সচিবও।

বৃহস্পতিবার সকাল ১১টা থেকে দুপুর ২টো পর্যন্ত ১৪টি জেলার পুলিশ সুপার ও জেলা শাসক দলের সঙ্গে বৈঠক করেন ডেপুটি ইলেকশন কমিশনার। দ্বিতীয় দফায় রাজ্যের মুখ্য সচিব, স্বরাষ্ট্র সচিব, ডিজির সঙ্গেও একপ্রস্থ বৈঠক করেন ডেপুটি চিফ ইলেকশন কমিশনার। তাদের সঙ্গে বৈঠক শেষ করে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিদের সঙ্গেও বৈঠক করেন ডেপুটি ইলেকশন কমিশনার। তৃণমূল কংগ্রেস, সিপিআইএম, বিজেপি-সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের পক্ষ থেকে বিভিন্ন অভিযোগের কথা জানানো হয় ডেপুটি ইলেকশন কমিশনারের কাছে।

সূত্রের খবর, শুক্রবার হেলিকপ্টারে করে মালদহ গিয়ে মালদহ ডিভিশনের জেলাশাসক ও পুলিশ সুপারদের সঙ্গে প্রথম দফায় বৈঠক করবেন। তারপর ওই দিনই দ্বিতীয় দফায় শিলিগুড়ি গিয়ে জলপাইগুড়ি ডিভিশনের জেলাশাসক ও পুলিশ সুপারদের সঙ্গে বৈঠক করার কথা ডেপুটি ইলেকশন কমিশনার এর। শুক্রবার বৈঠক করার পাশাপাশি শনি ও রবিবার উত্তরবঙ্গেই থাকবেন ডেপুটি ইলেকশন কমিশনার সুদীপ জৈন বলেই সূত্রের খবর। শুক্রবারের বৈঠকের পর শনিবার শিলিগুড়ি থেকে আলিপুরদুয়ার যেতে পারেন বলে জানা গিয়েছে। যদিও আলিপুরদুয়ারে গিয়ে কোনও বৈঠক করবেন কী না, সে বিষয়ে অবশ্য চূড়ান্তভাবে জানা যায়নি। তবে সার্বিকভাবে পাঁচ দিনের সফরে রাজ্যের আইন শৃঙ্খলা যে পাখির চোখ নির্বাচন কমিশনের তা অন্তত প্রথম দিনের দফায় দফায় বৈঠকেই স্পষ্ট।

সোমরাজ বন্দ্যোপাধ্যায়

Published by:Siddhartha Sarkar
First published: