নবান্ন অভিযানে পুলিশের লাঠিচার্জে আহত যুবকের মৃত্যু

নবান্ন অভিযানে পুলিশের লাঠিচার্জে আহত যুবকের মৃত্যু
নবান্ন অভিযানে পুলিশের লাঠিচার্জে আহত যুবকের মৃত্যু

১১ ফেব্রুয়ারি নবান্ন অভিযান করেন বাম সংগঠনগুলি। সেই দিন নবান্ন অভিযানে পুলিশের লাঠিচার্জে গুরুতর আহত হন তিনি। আজ সোমবার সকাল ৭টায় এক নার্সিং হোমে মৃত্যু হল তাঁর।

  • Share this:

    #কলকাতা: নবান্ন অভিযানে গুরুতর আহত হয়েছিলেন DYFI কর্মী সমর্থক মইদুল ইসলাম মিদ্যা। আজ সোমবার সকাল ৭টায় এক নার্সিং হোমে মৃত্যু হল তাঁর। ওই যুবনেতার বয়স হয়েছিল ৩১ বছর। ১১ ফেব্রুয়ারি নবান্ন অভিযান করেন বাম সংগঠনগুলি। সেই দিন নবান্ন অভিযানে পুলিশের লাঠিচার্জে গুরুতর আহত হন তিনি। তিনি বাঁকুড়ার কোতলপুরের বাসিন্দা।

    চিকিৎসক ফুয়াদ হালিম মইদুলের চিকিৎসা করছিলেন। ১৩ ফেব্রুয়ারি তাঁর কিডনি বিকল হয়ে পড়ে বলে জানানো হয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ থেকে। পুলিশের প্রচণ্ড মারেই তাঁর পেটে ও পিঠের বিভিন্ন অংশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। মাংসপেশীতেও গুরুতর চোট লাগে।

    মাংসপেশী ফেটে গিয়ে প্রোটিন বের হতে থাকে। যার ফলে কিডনির উপরে গিয়ে চাপ ফেলে এবং তার পরেই কিডনি বিকল হয়ে পড়ে তাঁর। সোডিয়াম ও পটাশিয়ামের মাত্রাও অনিয়ন্ত্রিত পর্যায়ে পৌঁছে যায়। সঙ্গে তাঁর ফুসফুসেও জল জমতে শুরু করে। রবিবার তাঁর অবস্থার অবনতি হতে থাকে আরও। ১৫ ফেব্রুয়ারি সকাল ৭টা নাগাদ শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন ৩১ বছরের মইদুল। এই ঘটনায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছে বাম শিবির।


    বাম নেতা সুজন চক্রবর্তী বলছেন, এটা আসলে খুন। পুলিশ ও সরকার মিলে খুন করা হয়েছে। কংগ্রেস শিবিরেও ঘটনা চরম নিন্দিত হচ্ছে। হাসপাতাল সূত্রেই জানা যাচ্ছে, পুলিশের মারের জেরেই মৃত্যু হয়েছে তাঁর। এর জন্য রাজ্য জুড়ে আন্দোলনের ডাক দিয়েছে ডিওয়াইএফআই।

    Published by:Swaralipi Dasgupta
    First published:

    লেটেস্ট খবর