• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • টানা বৃষ্টির জেরে বিপর্যস্ত দক্ষিণবঙ্গ

টানা বৃষ্টির জেরে বিপর্যস্ত দক্ষিণবঙ্গ

ঘূর্ণাবর্তের জেরে টানা বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত বেশ কিছু জেলা।  জলমগ্ন বাঁকুড়া, বীরভূম, আসানসোলের বেশ কিছু অঞ্চল।

ঘূর্ণাবর্তের জেরে টানা বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত বেশ কিছু জেলা। জলমগ্ন বাঁকুড়া, বীরভূম, আসানসোলের বেশ কিছু অঞ্চল।

ঘূর্ণাবর্তের জেরে টানা বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত বেশ কিছু জেলা। জলমগ্ন বাঁকুড়া, বীরভূম, আসানসোলের বেশ কিছু অঞ্চল।

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #কলকাতা: ঘূর্ণাবর্তের জেরে টানা বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত বেশ কিছু জেলা।  জলমগ্ন বাঁকুড়া, বীরভূম, আসানসোলের বেশ কিছু অঞ্চল। কোথাও বাড়ির মধ্যে জল, কোথাও বা জল জমা রাস্তা ভাঙায় নাজেহাল হতে হচ্ছে মানুষকে। এরই মধ্যে বীরভূমের বিভিন্ন জলাধার থেকে জল ছাড়া হয়েছে।

    টানা বৃষ্টির জেরে বিপর্যস্ত বাঁকুড়ার বড়জোড়া এলাকা। চারদিন ধরে জলবন্দি এলাকার মানুষ। বুধবারের বৃষ্টিতে নতুন করে জল বাড়তে শুরু করেছে।  চরম দুর্ভোগের শিকার হয়ে বাঁকুড়া বড়জোড়া-দুর্লভপুর রাজ্য সড়ক  দীর্ঘক্ষণ অবরোধ করেন ক্ষুব্ধ বাসিন্দারা।  টানা বৃষ্টিতে বাঁকুড়া দুর্গাপুর ৯ নম্বর রাজ্য সড়কের দেজুড়ি-র কাছে ভেঙে যায় অস্থায়ী কালভার্ট। ফলে রাস্তা এখন নদীর সমান।

    মঙ্গলবার রাত থেকে শুরু হওয়া বৃষ্টি চলে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত। বীরভূমের অজয়, ব্রাহ্মণী, বাঁশলোই, দ্বারকা নদীতে জল বেড়েছে। তবে জল বিপদসীমা ছাড়ায়নি বলেই জানানো হয়েছে। জল ছাড়া হয়েছে বিভিন্ন জলাধার থেকে।  ৬০ নম্বর জাতীয় সড়কের দুবরাজপুর ও খয়রাশোলের গড়গড়া ঘাটে শাল নদীর জল ব্রিজের উপর দিয়ে বইছে। ফলে ৬০ নম্বর জাতীয় সড়কে যান চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। চন্দ্রপুরে লাউজোড় থেকে কুন্দিরা গ্রাম যাওয়ার রাস্তা ও গামারকুণ্ডু এলাকায় কুশকর্ণী নদীর জল ব্রিজের উপর দিয়ে বইছে। ফলে ওই গ্রামগুলির সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।

    জলাধার            জল ছাড়ার পরিমাণ তিলপাড়া জলাধার          ৩ হাজার ৬৩৩ কিউসেক বক্রেশ্বর জলাধার          ৩ হাজার ৭৯৭ কিউসেক কুলতোড় জলাধার          ৩ হাজার ৩৩৪ কিউসেক বৈধরা জলাধার          ২ হাজার ৫৮ কিউসেক দ্বারকা জলাধার          ২ হাজার ৭৩৭ কিউসেক হিংলো জলাধার         ৭৩৬ কিউসেক

    বিভিন্ন জলাধার জল ছাড়লেও এখনই জেলায় বন্যা পরিস্থিতি হওয়ার আশঙ্কা নেই। টানা বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত বোলপুরের ৫ নম্বর ওয়ার্ড। এই ওয়ার্ডের ইন্দিরা পল্লিতে বেশ কয়েকটি কাঁচা বাড়ি ভেঙে পড়েছে।

    আসানসোল শিল্পাঞ্চলেও ভারী বষ্টির ফলে জলমগ্ন একাধিক এলাকা। আসানসোল পৌরসভার রানিগঞ্জের দুটি ওয়ার্ড জলমগ্ন । আসানসোল রেলপাড় এলাকায় গাড়ুই নদীতে জল বেড়ে যাওয়ায় একাধিক বাড়ি জলমগ্ন। কুলটি-র নিয়ামতপুর প্রিয়া কলোনিতেও জলছবিটা প্রায় একইরকম। কুলটির বরাকরে ভারী বৃষ্টির ফলে নালাডাঙার কাছে ধসে ভেঙে পড়েছে ঢালাই রাস্তা। এর ফলে বেগুনিয়া গ্রামের সঙ্গে বরাকরের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। পাশাপাশি জামুড়িয়াতে ২০ একরেরও বেশি চাষের জমি জলমগ্ন।

    First published: