• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • DILIP GHOSH MADAN MITRA TWO HEAVYWEIGHT OPPONENT LEADERS FOUND IN A JOVIAL MOOD IN ASSEMBLY SANJ

Dilip Ghosh Madan Mitra : রাজনীতিতে 'তু তু ম্যায় ম্যায়', বিধানসভায় 'সৌজন্য', মুখোমুখি দিলীপ ঘোষ-মদন মিত্র

দিলীপ মদন সৌজন্য

যুযুধান দুই হেভিওয়েট নেতা, বিজেপির দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh) এবং তৃণমূলের মদন মিত্রকে (Madan Mitra) মঙ্গলবার পাওয়া গেল অন্য মেজাজে। বিধানসভা চত্বরে (Assembly) মুখোমুখি হয়ে সৌজন্য বিনিময় করতেও ভুললেন না কেউ (Dilip Ghosh Madan Mitra)।

  • Share this:

    #কলকাতা : রাজীনীতির মঞ্চে একজন যদি হন বুনো ওল, তো অন্যজন বাঘা তেঁতুল। একজন রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh)। অপরজন কামারহাটির তৃণমূল বিধায়ক মদন মিত্র (Madan Mitra)। সংবাদ শিরোনামে দুজনকেই একে অন্যকে খোঁচা ও পাল্টা খোঁচা দিতে দেখা যায় দিবারাত্র। দলীয় তোপ দাগতে পিছিয়ে থাকেন না কেউই। কখনও একজন অপরজনকে বলছেন 'জোকার', তো কখনও আবার 'দুর্নীতি-যোগের' কামান দাগছেন বিপরীত মেরু। এহেন যুযুধান দুই হেভিওয়েট নেতা, বিজেপির দিলীপ ঘোষ এবং তৃণমূলের মদন মিত্রকে (Dilip Ghosh Madan Mitra) মঙ্গলবার পাওয়া গেল অন্য মেজাজে। বিধানসভা চত্বরে (Assembly) মুখোমুখি হয়ে সৌজন্য বিনিময় করতেও ভুললেন না কেউ।

    বিধানসভার অলিন্দে মদন মিত্র ও দিলীপ ঘোষকে এদিন বেশ হালকা মুডেই দেখা গেল। সৌজন্য রক্ষায় কম ছিল না কোনও তরফই। বরং একে অন্যের দিকে তাকিয়ে হালকা মেজাজে কথা বলতে দেখা গেল দুই শিবিরের দুই ডাকসাইটে নেতাকে। সঙ্গে ছিলেন আরও বেশ কয়েকজন বিধায়ক ও প্রথম সারির নেতা।

    মঙ্গলবার ছিল বিধানসভার বাজেট অধিবেশনের দ্বিতীয় দিন। এদিন রাজ্যপালের ভাষণ, ভুয়ো ভ্যাকসিন কাণ্ড–সহ নানা বিষয়ে আলোচনার সময়ে উত্তপ্ত হয়ে উঠে অধিবেশন কক্ষ। বিজেপি এবং তৃণমূল কংগ্রেস বিধায়কদের তরজায় তপ্ত হয়ে ওঠে। তৃণমূল কংগ্রেস বিধায়করা বক্তব্য রাখতে উঠলেই কক্ষ ছেড়ে বেরিয়ে যান বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। তৃণমূল কংগ্রেস বিধায়করা বলতে থাকেন, সত্যের মুখোমুখি হতে পারবে না বলেই পালিয়ে যাচ্ছে।

    রাজ্যপালের ভাষণের উপর আলোচনা করতে গিয়ে এদিন সভায় নাটাবাড়ির বিজেপি বিধায়ক মিহির গোস্বামীর সঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেস বিধায়কদের তুমুল বচসা শুরু হয়। বিজেপি বিধায়ক মিহির গোস্বামীকে ঘিরে তৃণমূল কংগ্রেস বিধায়করা দলবদল নিয়ে আক্রমণ করেন। তখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম করে মিহির বলেন, ‘‌তিনিই তো কংগ্রেস থেকে দল বদলে তৃণমূল কংগ্রেসে গিয়েছেন।’‌ তাতে আরও বাক–বিতণ্ডা শুরু হয়।

    অন্যদিকে, পাল্টা ভ্যাকসিন নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে আক্রমণ শানান তৃণমূল কংগ্রেস বিধায়ক স্নেহাশিস চক্রবর্তী। তাঁর প্রশ্ন, ‘‌কেন্দ্রীয় সরকার বিজেপির রাজ্য সরকারগুলিকে ৩ কোটি করে ভ্যাকসিন দিয়েছে। আমাদের রাজ্যে পৌনে দু’কোটি মাত্র ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে। এটা বাংলাকে বঞ্চনা করার কৌশল।’‌ আলোচনা চলাকালীন বারবার বিরোধী দলনেতা বেরিয়ে যান অধিবেশন কক্ষ ছেড়ে। তা দেখে তাঁর উপর ক্ষুব্ধ হন স্পিকার।

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published: