‘৩৭০ হয়েছে, এবার বাংলায় NRC হোক’, প্রধানমন্ত্রী মোদি ও অমিত শাহের উল্টো সুরে হুঙ্কার দিলীপের

‘৩৭০ হয়েছে, এবার বাংলায় NRC হোক’, প্রধানমন্ত্রী মোদি ও অমিত শাহের উল্টো সুরে হুঙ্কার দিলীপের

বৃহস্পতিবার দিলীপ ঘোষের চ্যালেঞ্জ, রাজ্যে এনআরসি হবেই।

  • Share this:

#কলকাতা: প্রবল বিক্ষোভের মুখে কেন্দ্র সুর নরম করেছে। তবে এরাজ্যে এনআরসি নিয়ে উল্টো পথেই হাঁটছেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি। বৃহস্পতিবার দিলীপ ঘোষের চ্যালেঞ্জ, রাজ্যে এনআরসি হবেই।  ভোটের অঙ্কেই কী এনআরসি নিয়ে উল্টো সুর?

বাকি দেশ একদিকে, পশ্চিমববঙ্গ অন্যদিকে। এনআরসি নিয়ে রাজ্য বিজেপি সেই পরিকল্পনাই স্পষ্ট।  দ্রুত এরাজ্যে এনআরসি কার্যকর হবে। বৃহস্পতিবার ফের জল্পনা উস্কে বিজেপি রাজ্য সভাপতির দাবি, অনুপ্রবেশ রুখতেই NRC ৷ সারা দেশে NPR, বাংলায় NRC হোক ৷ বাধা শুধু মমতার ৷’

নাগরিকত্ব বিল নিয়ে বিক্ষোভের মুখে এনআরসি নিয়ে তাড়াহুড়ো করতে চায় না কেন্দ্র। গত কয়েকদিনে বারবার সেই বার্তা এসেছে ৷ গত রবিবার রামলীলা ময়দানের সভা থেকে শুরু করে বারবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলছেন, ‘এখনই এনআরসির কোনও পরিকল্পনা নেই ৷’ একই সুর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের মুখেও৷

তারপরও পশ্চিমবঙ্গ নিয়ে দিলীপের আগ্রাসী বার্তা কেন? রাজনৈতিক মহল বলছে, ভোটের অঙ্কেই দিলীপের এনআরসি বার্তা ৷ এনআরসির মাধ্যমে হিন্দুভোট একত্রিত করার কৌশল ও সংখ্যাগুরুর নিরাপত্তা ও অধিকার নিয়ে বার্তা দেওয়ার ভাবনা ৷ ২ কোটি মতুয়া ভোটার ও উদ্বাস্তু ভোট পেতেও এনআরসি ফ্যাক্টর হবে বলে মনে করছে গেরুয়া শিবির৷

রাজনৈতিক মহলের মতে, এই বাধ্যবাধকতাই এখন রাজ্য বিজেপির মাথাব্যথা। আর তাই মোদি - শাহের মতো দলীয় শীর্ষনেতৃত্ব যা বলছেন, তার উল্টো সুর রাজ্য নেতৃত্বের গলায়। কেন্দ্র যখন বলছে, এনআরসি নিয়ে আলোচনাই হয়নি, তখন রাজ্যে এনআরসির নিয়ে সুর চড়াতে হচ্ছে বিজেপি রাজ্য নেতৃত্বকে।

বৃহস্পতিবার এনপিআর নিয়েও রাজ্য প্রশাসনকে নিশানা করেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি। ‘সিএএ ও এরআরসি-র প্রতিবাদের নামে সবচেয়ে বেশি গুন্ডামি হয়েছে বাংলায়। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মদতেই তা হয়েছে।’ এনআরসি নিয়ে সুর চড়িয়ে কী রাজনৈতিক লক্ষ্যপূরণ হবে? রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, দিলীপ ঘোষদের কাজটা কঠিন করে দিয়েছেন নরেন্দ্র মোদি - অমিত শাহ’রা।

First published: 09:37:07 PM Dec 26, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर