• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • DILIP GHOSH CLAIMS THAT BENGAL HAS SURPASSED KASHMIR IN TERMS OF VIOLENCE DMG

Dilip Ghosh: হিংসায় কাশ্মীরকেও ছাপিয়ে গিয়েছে বাংলা, অভিযোগ দিলীপের! জবাব দিল তৃণমূল

দিলীপ ঘোষ৷

  • Share this:

    #কলকাতা: বাংলায় ভোট পরবর্তী হিংসা কাশ্মীরের অশান্তিকেও ছাপিয়ে গিয়েছে! এমনই অভিযোগ করলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ৷ এ দিন বিজেপি-র রাজ্য কমিটির বৈঠকে বক্তব্য রাখতে গিয়ে এই মন্তব্য করেন তিনি৷ তাঁর দাবি, শুধু কাশ্মীর কেন ভারতবর্ষের কোনও রাজ্যে বাংলার মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়নি৷ বাংলার সঙ্গে দিলীপ ঘোষ যেভাবে ফের একবার কাশ্মীরের তুলনা টানলেন, তাতে নতুন করে রাজনৈতিক বিতর্ক শুরু হয়েছে৷

    বিজেপি রাজ্য সভাপতির মতে, বাংলায় ভোট পরবর্তী হিংসায় যে পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে, তা 'ঐতিহাসিক'৷ এ দিন বলেন, 'বাংলায় যে হিংসা হচ্ছে, তা ঐতিহাসিক৷ এর কোনও সীমা- পরিসীমা নেই৷ ভারতবর্ষের কোনও রাজ্যে এ রকম হয়নি৷ যে কাশ্মীর চল্লিশ বছর ধরে জ্বলছে, সেখানেও এত হিংসার ঘটনা ঘটে না৷ আমাদের আশি হাজার কর্মী সমর্থক ঘরছাড়া৷ প্রায় ১১ হাজার অভিযোগ জমা পড়েছে৷ কিন্তু এখানকার পুলিশ এতটাই নির্দয় যে তারা এফআইআর পর্যন্ত নিতে চায় না৷ তাই আমরা সুপ্রিম কোর্ট, হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছি, মানবাধিকার কমিশনের মতো বিভিন্ন এজেন্সির কাছে অভিযোগ জানিয়েছি৷ হাইকোর্টের নির্দেশে পুলিশ ঘরছাড়াদের বাড়ি ফিরিয়ে দিচ্ছে ঠিকই, কিন্তু তাঁদের সাদা কাগজে লিখিয়ে নেওয়া হচ্ছে যে কিছুই হয়নি৷'

    রাজ্যপাল- রাজ্য সংঘাতেও প্রত্যাশিত ভাবেই জগদীপ ধনখড়ের পাশে দাঁড়িয়েছেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি৷ দিলীপ ঘোষ বলেন, 'রাজ্যপাল রাস্তায় বেরিয়েছেন, জেলায় গিয়েছেন, মানুষের কষ্টের কথা শুনেছেন৷ তার জন্য তাঁকে অপমানিত হতে হচ্ছে, কুকথা বলা হচ্ছে৷ মুখ্যমন্ত্রীও বাদ যাচ্ছেন না৷ তাঁকে ছাপিয়ে যাচ্ছেন তাঁর পারিষদরা৷ একটা সাংবিধানিক পদে থাকা মানুষকেও অপমানিত হতে হচ্ছে৷'

    দিলীপ ঘোষকে অবশ্য পাল্টা জবাব দিয়েছেন তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ৷ তিনি বলেন, 'নির্বাচনে মানুষের রায়ে গো হারা হারার পর বাস্তবজ্ঞানহীন কথা বলছেন দিলীপ ঘোষ৷ কেন ভোটে হারলেন তা নিয়ে বিজেপি-র বৈঠকে কোনও আলোচনা নেই৷ কেন ভোটে হারলেন, সেটা খুঁজে বের করুন, দেওয়াল লিখনটা পড়ুন৷ নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকার জন্য এখন দিল্লির নির্দেশে কাল্পনিক অভিযোগ করছেন৷'

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: