• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • DILIP GHOSH BJP STATE PRESIDENT REACTS ON RAJIB BANDYOPADHYAY COMMENT SANJ

Dilip Ghosh : তবে কি প্রয়োজন ফুরলো? এবার 'বেসুরো' রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়কে কটাক্ষ দিলীপ ঘোষের

দিলীপের কটাক্ষ Photo : File Photo

বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীকে (Suvendu Adhikari) রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের (Rajib Bandyopadhyay) দেওয়া পরামর্শ নিয়ে প্রশ্নে কার্যত কটাক্ষ করলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh)।

  • Share this:

    #কলকাতা : ‘কিছু কিছু লোক আছেন যারা ঠিক করতে পারছেন না কোথায় যাবেন, কী করবেন? উনি তো দলের কোনও পদাধিকারী নন।’ এই ভাষাতেই এবার রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়কে (Rajib Bandyopadhyay) বিঁধলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh)। বৃহস্পতিবার সকালে দিলীপবাবু প্রাতঃভ্রমণে বেরিয়ে নিউটাউনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের মুখে নাম না করে রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় (Rajib Bandyopadhyay) প্রসঙ্গে এমনই মন্তব্য করেন।

    বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীকে (Suvendu Adhikari) রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের দেওয়া পরামর্শ নিয়ে প্রশ্নে কার্যত কটাক্ষ করলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh)। ইকোপার্কে প্রাতঃভ্রমণে গিয়ে দিলীপবাবু বলেন, উনি দলের কোনও পদে নেই। তবে কি রাজীবকে বিজেপিতে ধরে রাখার চেষ্টায় ইতি টানলেন দিলীপরা। উঠছে সেই প্রশ্নও। এদিকে রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূলের ঘরে ফেরা নিয়ে গুঞ্জন তাঁর গতকালের মন্তব্যের পরে আরও খানিকটা জোরালো হয়েছে। আর তাতেই যেন আরও ইন্ধন যোগালেন দিলীপ ঘোষ। রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের একের পর এক ফেসবুক পোস্ট এবং মন্তব্য নিয়ে মাথাচাড়া দিয়েছে জল্পনা। যদিও বিজেপি রাজ্য সভাপতির এদিনের মন্তব্যে স্পষ্ট, বিষয়টিকে মোটেও ভাল চোখে দেখছেন না তাঁরা। রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের অবস্থান স্পষ্ট করা উচিত বলেই দাবি দিলীপ ঘোষের।

    বুধবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার রদবদলের কিছুক্ষণ আগে শুভেন্দু অধিকারীকে নাম না করে কড়া ভাষায় সমালোচনা করেন রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। ফেসবুকে তিনি লেখেন, ‘বিরোধী নেতাকে বলব…. যার নেতৃত্বে ও যাকে মুখ্যমন্ত্রী দেখতে চেয়ে বাংলার মানুষ ২১৩টি আসনে তাঁর প্রার্থীদের ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছেন সেই মুখ্যমন্ত্রীকে অযথা আক্রমণ নাকরে সাধারণ মানুষের দুর্দশা মুক্তির জন্য পেট্রল, ডিজেল ও রান্নার গ্যাসের মূল্যহ্রাস করাই এখন একমাত্র লক্ষ্য হওয়া উচিত।’

    প্রসঙ্গত, গত ৮ জুন একই রকম পোস্ট করেছিলেন রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানেও রাজ্য সরকারের সমালোচনা না করে দলীয় নেতৃত্বকে আত্মসমীক্ষার পরামর্শ দিয়েছিলেন একদা ডোমজুরের তৃণমূল বিধায়ক তথা মন্ত্রী যিনি বিজেপির টিকিটে পরাজিত হয়েছেন ওই একই কেন্দ্র থেকে। মুকুল রায় তৃণমূলে ফেরার পর থেকেই রাজীবের তৎপরতা বাড়ে। বার বার তৃণমূল নেতাদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করতে দেখা যায় তাঁকে। এমনকী তিনি সামাজিক মাধ্যমে মুখ খোলেন দলীয় নীতির বা পদক্ষেপের বিরোধিতা করে। কখনও কুণাল ঘোষ, কখনও পার্থ চট্টোপাধ্যায়, কখনও মুকুল রায়ের বাড়িতে নানা অছিলায় হাজির হন রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। যদিও তারপরে কিছুটা অন্য ইঙ্গিত মেলে। বিজেপির কর্মসমিতির বৈঠকে তাঁর আসার জল্পনা শোনা গেলেও শেষ মেশ সেই বৈঠকেও গরহাজির ছিলেন রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। যদিও বিজেপির দেখা যায়নি তাঁকে।

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published: