• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • ঢাকা গুলশন হামলায় ব্যবহৃত অস্ত্র তৈরি হয়েছিল মালদহে !

ঢাকা গুলশন হামলায় ব্যবহৃত অস্ত্র তৈরি হয়েছিল মালদহে !

ঢাকা গুলশন হামলায় উঠে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য ৷ জুলাই মাসের এক তারিখ গুলশন ক্যাফে হামলায় ব্যবহৃত অস্ত্র ও রাইফেল ভারতে তৈরি হয়েছে ৷

ঢাকা গুলশন হামলায় উঠে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য ৷ জুলাই মাসের এক তারিখ গুলশন ক্যাফে হামলায় ব্যবহৃত অস্ত্র ও রাইফেল ভারতে তৈরি হয়েছে ৷

ঢাকা গুলশন হামলায় উঠে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য ৷ জুলাই মাসের এক তারিখ গুলশন ক্যাফে হামলায় ব্যবহৃত অস্ত্র ও রাইফেল ভারতে তৈরি হয়েছে ৷

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #কলকাতা: ঢাকা গুলশন হামলায় উঠে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য ৷ জুলাই মাসের এক তারিখ গুলশন ক্যাফে হামলায় ব্যবহৃত অস্ত্র ও রাইফেল তৈরি হয়েছিল ভারতে ৷ সেপ্টম্বর মাসে খাগড়াগড় বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় ছ’জঙ্গিকে জেরা করার সময় এই তথ্য সামনে এসেছে ৷ এনআইএ- জেরাতে গ্রেফতার এক জঙ্গি এই কথা স্বীকার করেছে ৷

    গত ১ জুলাই ঢাকার অভিজাত গুলশন এলাকার এক রেস্তোরাঁয় হামলা চালায় আইএস জঙ্গিরা ৷ বছরের ১৯-এর ভারতীয় মেয়ে তারিশি জৈন সহ ২০ জন পণবন্দিকে কুপিয়ে খুন করে জঙ্গিরা ৷ জঙ্গিদের সঙ্গে গুলির লড়াইয়ে মৃত্যু হয় বাংলাদেশ গোয়েন্দা পুলিশের সহকারী কমিশনার রবিউল ইসলাম ও বনানীর ওসি সালাউদ্দিনের।

    জঙ্গিরা জানিয়েছেন, ঢাকা হামলার ছক তৈরি হয়েছিল পাকিস্তানে ৷ বন্দুক নির্মাতারা মালদহে এসে মুঙ্গেরের বন্দুক প্রস্তুতকারকদের প্রশিক্ষণ দেয় তারা। এরপর সেখানে একটি বেস তৈরি করে সেখানে অ্যাসল্ট রাইফেল বানানোর কাজ চলে ৷ এরপর তা পাচার করা হয় বাংলাদেশে৷

    NIA - এর প্রাথমিক অনুমান রাইফেল ও পিস্টল গুলশন হামলার একমাস আগে পাকিস্তানে পৌঁছে যায় ৷ এনআইএ গোয়েন্দারা মনে করছেন, পাকিস্তানের ওই বন্দুক নির্মাতারা আদম খেল সম্প্রদায়ের লোকজন ৷ যারা পেশোয়ার ও কোহাট প্রদেশের গ্রামে বসবাসকারী ৷ কিন্তু অধিক পরিচিত এ কে ৪৭-এর বদলে এ কে ২২ রাইফেলের ব্যবহার নিয়ে তা নিয়ে বেশ চিন্তিত গোয়েন্দা আধিকারিকরা ।

    এনআইএ আধিকারিকরা জানিয়েছেন, ‘জঙ্গিরা ঠিক কোথা থেকে এসেছিল  তা নিয়ে এখনও ধোঁয়াশা রয়ে গিয়েছে ৷ তবে তারা যে ভাষায় কথা বলছিল তাতে অনুমান তারা খাইবারের পাকতুনখাওয়া প্রদেশের লোক। বাংলাদেশ ইতিমধ্যেই অভিযোগ করেছে, হোলি আর্টিজান বেকারিতে হামলার ঘটনায় ব্যবহৃত অস্ত্রশস্ত্রও সীমান্তের উপার থেকে এসেছে ৷ এর সঙ্গে মুঙ্গেরের যোগ থাকার কথা বলা হয়েছে ৷ এরপর ঘটনারতদন্ত শুরু করেছে বিহার পুলিশ ৷

    STF আধিকারিক জানিয়েছেন, মালদহ সহ এ রাজ্যের আরও কয়েকটি জায়গায় অস্ত্র প্রস্তুতকারীরা তাদের কাজকর্ম চালাচ্ছিল।

    First published: