corona virus btn
corona virus btn
Loading

বিয়ের আগেই শর্ত দিয়েছিলেন শ্বশুরবাড়িতে, মেয়েদের সম্মান রক্ষার দাবিতে সাইকেল নিয়ে পথে পথে সোহিনী

বিয়ের আগেই শর্ত দিয়েছিলেন শ্বশুরবাড়িতে, মেয়েদের সম্মান রক্ষার দাবিতে সাইকেল নিয়ে পথে পথে সোহিনী

সাইকেল প্রেমকে সম্বল করেই ঘুরছেন মহিলার সম্মানরক্ষার লড়াই

  • Share this:

#কলকাতা: সাইকেল ওমেন ছাড়া আর কি বলা যেতে পারে!সামান্য একটা সাইকেল, মাথায় হেলমেট নিয়ে ব্যারাকপুর থেকে শুধু সুন্দরবনের একদম শেষ প্রান্ত, গোটাটাই সাইকেল চালিয়ে। সাইকেলের সামনে একটা ছোট্ট প্ল্যাকার্ড।তাতে হাতে লেখা ছোট্ট কথা,'মায়েরা চায় শান্তি আর মেয়েরা চায় সম্মান।' আর এই ছোট্ট কথাটাই এক বিশাল বার্তা বহন করে আজকের সমাজে। বছর পঁচিশের শ্যামলা বর্ণের,দোহারা গরনের সোহিনী দেব রায় এর জীবনীশক্তি অসীম। আদতে উত্তর ২৪ পরগনার ব্যারাকপুরের বাসিন্দা। দেড় বছর আগে বিয়ে হয়েছে বর্ধমানের জীবন বীমা অফিসার স্বয়ম দের সঙ্গে। ছোট থেকেই সাইকেল ছিল মারাত্মক নেশা। টিউশনি পড়তে যাওয়ায় যাওয়ার সময় সাইকেলেই ছিল মূল ভরসা। আর সেই থেকেই গড়ে ওঠে সাইকেল প্রেম। বিয়ের পরেও তাতে ছেদ পড়েনি। বিয়ের মূল শর্তই ছিল, সাইকেল চালানো ছাড়তে পারবে না।

আর সেই সাইকেল প্রেমকে সম্বল করেই কয়েকদিন আগে ব্যারাকপুরে বাপের বাড়ি থেকে ভোর ছটায় সাইকেল নিয়ে বেরিয়ে পড়ল সোহিনী। ভ্যালেন্টাইন্স ডেতে বরের দেওয়া একটি হেলমেট ছিল সম্বল। আর সেই নিয়েই বিটি রোড ধরে সোজা চলতে থাকল সোহিনী র সাইকেল।ডায়মন্ড হারবার রোড হয়ে কাকদ্বীপ সেখান থেকে লট নম্বর এইট হয়ে হারউড পয়েন্ট, গঙ্গাসাগর,নামখানা,ফ্রেজারগঞ্জ,বকখালি,মৌসুনি দ্বীপ, পাথরপ্রতিমা,এমনকি ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তের সুদূর গোবর্ধনপুর, কোথায় পৌঁছায়নি এই  সাইকেল! সাগর থেকে সুন্দরবন সর্বত্রই অবাক বিস্ময় সোহিনী এবং তার সাইকেল প্রত্যেকের দৃষ্টি কেড়ে নিয়েছিল। গ্রামের মহিলারা বিশ্বাসই করতে পারছিল না, একা একজন মহিলা এই রকম ভাবে সাইকেল চালিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে!গ্রামের মুরুব্বি থেকে রাজনৈতিক নেতাকর্মীরা বাঁকা চোখে কটূক্তি ছুঁড়েছিল,কি উদ্দেশ্য? সপ্রতিভ সোহিনীর একটাই কথা ছিল, সমাজে মেয়েদের সম্মান রক্ষা করা এবং পরিবারে শান্তি বজায় রাখা তার মূল কাজ। সেই বার্তা নিয়েই তাঁর এই সাইকেল সফর। একা মেয়েকে কোথাও কোন বেগ পেতে হয়নি। গ্রামের মহিলারাই তাকে থাকার ব্যবস্থা করে দেয়, প্রত্যন্ত গ্রামের মেয়েরা তাকে রান্না করে খাওয়ায়।

নিউট্রিশন বা পুষ্টিবিদ্যায় এম এস সি পাশ করে বি এড করেন সোহিনী। কিন্তু সাইকেল যে তার ধ্যান জ্ঞান। তার প্রথম ও শেষ প্রেম সেই সাইকেল নিয়েই চষে ফেলতে চায় আশপাশটা।সমাজের নানা ভালো খারাপ দিকগুলোকে আরো বহু মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে দেওয়ার জন্যই তার এই সাইকেল সফর।ব্যারাকপুর থেকে সুন্দরবন প্রায় ৬০০ কিলোমিটার,৫ দিন ধরে সাইকেল চালিয়ে সোহিনী র আগামী লক্ষ্য, জঙ্গলমহল।পুরুলিয়া,বাঁকুড়া, মেদিনীপুরে মেয়েদের সম্মান রক্ষা করার বার্তা পৌঁছে দিতে চান সোহিনী।

ABHIJIT CHANDA

First published: March 3, 2020, 4:59 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर