corona virus btn
corona virus btn
Loading

লকডাউন পরিস্থিতিতে মিনি রক্তদান শিবিরের উদ্যোগ নিচ্ছে সিপিএম

লকডাউন পরিস্থিতিতে মিনি রক্তদান শিবিরের উদ্যোগ নিচ্ছে সিপিএম

এছাড়া নিকটবর্তী অঞ্চল থেকে ব্লাড ব্যাঙ্ক ও হাসপাতালে সীমিত ক্ষেত্রে রক্তদাতা পাঠানোর উদ্যোগ ও গ্রহন করা হচ্ছে।

  • Share this:

#কলকাতা: লকডাউন পরিস্থিতিতে কার্যত বন্ধ সবকিছুই। এমন পরিস্থিতিতে প্রয়োজনীয় রক্তের জোগান দিতে উদ্যোগ নিল সিপিএমের কলকাতা জেলা কমিটি। ইতিমধ্যেই দলের কর্মী সমর্থকদের রক্ত দান করার প্রস্ততি নেওয়ারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে দলের পক্ষ থেকে। গত শুক্রবার অনলাইনে দলের সম্পাদকমণ্ডলীর সভা হয়। এই সভাতেই 'মিনি রক্তদান শিবিরে'র প্রস্তুতির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

একই সঙ্গে প্রয়োজনে হাসপাতালে রক্তদাতা পাঠানোর উদ্যোগ নিতেও বলা হয়েছে। দলের তরফে প্রতি ওয়ার্ডে রক্ত দাতাদের বিস্তারিত বিবরণ জোগাড় করতে বলা হয়েছে। দলের তরফে বলা হয়েছে, "রক্তদান কর্মসূচি চালিয়ে যাবার উদ্দ্যেশ্যে আগাম প্রস্তুতি নিয়ে অঞ্চলের সম্ভাব্য রক্তদাতার নাম ,ফোন নম্বর , ব্লাড গ্রুপ  লিপিবদ্ধ করে রাখতে হবে।রক্তের সংকটে সরকার অনতিবিলম্বে ছোট আকারে রক্তদান কর্মসূচী অনুমোদন করতে বাধ্য হতে পারে। এছাড়া নিকটবর্তী অঞ্চল থেকে ব্লাড ব্যাঙ্ক ও হাসপাতালে সীমিত ক্ষেত্রে রক্তদাতা পাঠানোর উদ্যোগ ও গ্রহন করা হচ্ছে।"

সিপিএমের কলকাতা জেলা কমিটির সম্পাদক, কল্লোল মজুমদার জানান, "রক্তের প্রয়োজন মেটাতে উদ্যোগ নিতে বলা হয়েছে। অনুমতি পেলেই প্রায় ৩০ জন রক্ত দাতাকে নিয়ে  ছোট আকারে রক্তদান শিবিরের আয়োজন করা হবে। তবে সেন্ট্রাল ও সরকারি ব্লাড ব্যাঙ্ককেই অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। এছাড়াও হাসপাতালে রক্তদাতা পাঠানোরও ব্যবস্থা থাকছে। প্রয়োজন হলেই নিকটবর্তী রক্তদাতা সেখানে পৌছতে পারবে। কলকাতা জেলায় কেন্দ্রীয়ভাবে আস্থা নামে একটি হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে তৈরি করা হয়েছে। তেমনই প্রতি ওয়ার্ডে এই রকম ভাবে হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে রক্ত দাতাদের বিস্তারিত তথ্য থাকবে। মানুষের পাশে থাকার জন্য সব সময় প্রস্তুত থাকতে হবে।"

দলীয় নেতৃত্বের দাবি, লকডাউন পরিস্থিতিতে স্যানেটাইজার বানিয়ে বিলি করা হয়েছে। খাদ্য বন্টন করা চলছে বিভিন্ন জায়গায়। পরিযায়ী শ্রমিকদের বাড়ি ফেরানোর মতো বেশ কয়েকটি কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে দল ও গণ সংগঠনগুলির পক্ষ থেকে। ব্লাডব্যাংকে গিয়েও দলের কর্মী সমর্থকেরা রক্ত দিয়েছেন। এবার রক্তদান কর্মসূচীও মানুষের মধ্যে ভালো সাড়া ফেলবে

First published: April 25, 2020, 10:26 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर