• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • লক ডাউনঃ রাস্তায় থাকা পুলিশ কর্মীদের খাবার পৌঁছে দিতে শহরের পথে 'মোবাইল ক্যান্টিন'

লক ডাউনঃ রাস্তায় থাকা পুলিশ কর্মীদের খাবার পৌঁছে দিতে শহরের পথে 'মোবাইল ক্যান্টিন'

মেনুতে ছিল পাউরুটি, পকোড়া, ফিস ফ্রাই, কেক এবং চা।

মেনুতে ছিল পাউরুটি, পকোড়া, ফিস ফ্রাই, কেক এবং চা।

মেনুতে ছিল পাউরুটি, পকোড়া, ফিস ফ্রাই, কেক এবং চা।

  • Share this:

#কলকাতাঃ কলকাতায় লক ডাউনকে সফল করতে দিনরাত পরিশ্রম করেছে কলকাতা পুলিশ। গলি থেকে রাজপথ, জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কেউ যাতে রাস্তায় বের হতে না পারে তা নিশ্চিত করার চেষ্টা করেছে পুলিশ। কিন্তু সেই লক ডাউনে ডিউটি করতে গিয়ে পুলিশকর্মীদের সবথেকে সমস্যায় পড়তে হয়েছে খাবার নিয়ে। দোকান বাজার খোলা থাকলেও খাবারের দোকান অমিল। ফলে কার্যত না খেয়েই ডিউটি করতে হয়েছে তাঁদের।

জানা গিয়েছে, বিষয়টি জানার পরে পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা উদ্যোগী হয়েছিলেন পুলিশকর্মীদের খাবারের বন্দোবস্ত করতে। আর সেই জন্য কলকাতার রাস্তায় ডিউটি করা পুলিশকর্মীদের জন্য রাস্তায় নামল 'মোবাইল ক্যান্টিন'। পুলিশ কমিশনার নিজে হাতে শুক্রবার এই মোবাইল ক্যান্টিন চালু করেন। শনিবার থেকে শহরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ রাস্তায় বা মোড়ে গিয়ে পুলিশকর্মীদের খাবার বিক্রি করবে  মোবাইল ক্যান্টিন।

এদিন দুপুরে ধর্মতলায় প্রথম খাবার বিক্রি করা শুরু হয় এই মোবাইল ক্যান্টিন থেকে। ধর্মতলা চত্বরে ডিউটি করা পুলিশকর্মীরা সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে সেই ক্যান্টিন থেকে খাবার কিনে খান। এদিনের মেনুতে ছিল পাউরুটি, পকোড়া, ফিস ফ্রাই, কেক এবং চা। লাইন দিয়ে সেই খাবার কিনে খান পুলিশকর্মীরা। সব রকমের খাবার মিলিয়ে যে প্যাকেট তৈরি করা হয়েছে তার দাম ২৫ টাকা এবং চায়ের দাম আলাদা। লালবাজার সূত্রে জানা গিয়েছে, এভাবেই প্রত্যেকদিন শহরের বিভিন্ন জায়গায় পুলিশ কর্মীদের খাবার পৌঁছে দেবে মোবাইল ক্যান্টিন। পরবর্তীতে খাবারের মেনুতে পরিবর্তন আনার কথা ভাবা হচ্ছে এই মোবাইল ক্যান্টিনের ক্ষেত্রে। সেক্ষেত্রে ভাত বা রুটি জাতীয় খাবার এই মোবাইল ক্যান্টিনে যাতে পাওয়া যায় সেই আবেদন রেখেছেন পুলিশকর্মীরা।

সাউথ ট্রাফিক গার্ডের এক সার্জেন্টের কথায়, "লকডাউনের জন্য খাবারের দোকান বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আমাদের খুবই সমস্যা হচ্ছিল। সেই বিষয়টি বুঝতে পেরে আমাদের জন্য এরকম মোবাইল ক্যান্টিন চালু করায় খুবই সুবিধা হল। তবে মেনুতে একটু অন্য কিছু রাখলে ভাল হয়। পুলিশ কমিশনার সাহেবকে অসংখ্য ধন্যবাদ আমাদের কষ্ট ভাবার জন্য।"

SUJOY PAL

Published by:Shubhagata Dey
First published: