'বায়না নেবেন না'... 'বাম'-এর ভোট 'রাম'- এ যাওয়া রুখতে টোটকা গৌতম দেবের

ঘুরে দাঁড়ানো তো দূরের কথা। গত লোকসভা নির্বাচনে একটিও আসন জিততে পারেনি বামেরা। উল্টে দলের ভোট কমে ৭ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। রাজ্যে ১৮টি আসন জয়লাভ করে দ্বিতীয় শক্তিশালী দল হয়ে উঠে এসেছে বিজেপি

ঘুরে দাঁড়ানো তো দূরের কথা। গত লোকসভা নির্বাচনে একটিও আসন জিততে পারেনি বামেরা। উল্টে দলের ভোট কমে ৭ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। রাজ্যে ১৮টি আসন জয়লাভ করে দ্বিতীয় শক্তিশালী দল হয়ে উঠে এসেছে বিজেপি

  • Share this:

#কলকাতা: ঘুরে দাঁড়ানো তো দূরের কথা। গত লোকসভা নির্বাচনে একটিও আসন জিততে পারেনি বামেরা। উল্টে দলের ভোট কমে ৭ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। রাজ্যে ১৮টি আসন জয়লাভ করে দ্বিতীয় শক্তিশালী দল হয়ে উঠে এসেছে বিজেপি। রাজনৈতিক মহলের একাংশ এটাকেই 'বামের ভোট রামে' যাওয়া হিসেবে ব্যাখ্যা করেন। আগামী বিধানসভা নির্বাচনে সেই স্রোত আটকাতে বাঁধ দিতে চাইছে আশঙ্কিত আলিমুদ্দিন স্ট্রিট।

মঙ্গলবার এই কথা কার্যত স্বীকার করে নিয়েছেন সিপিএমের বর্ষীয়ান নেতা গৌতম দেব। দলের উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার ফেসবুক লাইভে তিনি বলেন, "বামপন্থীদের মানুষ যথেষ্ট ভালোবাসা দিয়েছেন। না হলে ৩৪ বছর ক্ষমতায় থাকা যায়? আমাদের যে লোক এতবার ভোট দিয়েছেন এবার দিলেন না কেন? আমাদের কোনও ত্রুটি হলে সংশোধন করতে হবে। ত্রুটি হয়েছে কিছু। আমাদের তা স্বীকার করতে হবে। না হলে অন্যায় হবে। ৪৫ শতাংশ মানুষ বিজেপি ও তার সহযোগী দলকে ভোট দিয়েছে। আমরা তার ধারেকাছেও যেতে পারলাম না।" এর পরেই তিনি বলেন, "বায়না নেবেন না। কেউ যদি বলে বুকিং করেছি তাঁদের বলে দিন, সিপিএমকেই ফিরিয়ে আনব। সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা সিপিএম আমলে ছিল না। একটা দেশে গণতন্ত্র সুরক্ষিত আছে কিনা, সেটা প্রমাণিত হয়, সেখানে সংখ্যালঘুরা কেমন আছেন, সেই চিত্রটা দেখে। সংখ্যাগুরুরা তো সমাজের সব স্তরে আছে। সংখ্যালঘুদের পাশে থাকতে হবে।"

বাম আমলে রাজ্যে সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা প্রসঙ্গে ইন্দিরা গান্ধী নিহত হওয়ার পর শিখদের নিরপত্তায় প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসুর ভূমিকার কথাও স্মরণ করিয়ে দেন তিনি। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞ মহলের একাংশের দাবি, এই কথায় সংখ্যালঘুদের তিনি বার্তা দিলেন যে শুধুমাত্র বিজেপি নয় কংগ্রেসের থেকেও সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা বামেদের কাছে অনেক বেশি সুরক্ষিত।

আর কয়েকমাস পরেই রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন, সেই প্রস্তুতি ইতিমধ্যেই নিতে শুরু করেছে আলিমুদ্দিন স্ট্রিট। ছাত্র যুব ও কমবয়সিদের সামনে রেখেই যে দল ভোটের ময়দানে নামবে, সেই ইঙ্গিত দিয়ে বেশকিছু টোটকা দেন প্রাক্তন মন্ত্রী।

কী সেই টোটকা? শক্তিশালী বুথ কমিটি গঠন করতে হবে। সেই কমিটিতে দলের কর্মীদের পাশাপাশি এলাকায় ভাবমূর্তি উজ্জ্বল এমন মানুষকেও অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। তিনি এলাকার কোনও শিক্ষকও হতে পারেন,  দোকানদারও হতে পারেন। বুথ কমিটির সঙ্গে অঞ্চল কমিটিকে যুক্ত করতে হবে। ভালোভাবে স্ক্রুটিনি করতে হবে। এলাকায় লাল পতাকা মুড়ে দিতে হবে।

UJJAL ROY

Published by:Rukmini Mazumder
First published: