• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • আদালতের নির্দেশে সারদা সিবিআই তদন্ত বন্ধের জল্পনা

আদালতের নির্দেশে সারদা সিবিআই তদন্ত বন্ধের জল্পনা

সারদা ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস মামলায় তদন্তের অধিকার হারাতে পারে সিবিআই এমন আশঙ্কা তৈরি হয়েছিল বুধবার ৷ কিন্তু এদিনও আদালতের শুনানি শেষে বহাল রইল সেই আশঙ্কা ৷

সারদা ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস মামলায় তদন্তের অধিকার হারাতে পারে সিবিআই এমন আশঙ্কা তৈরি হয়েছিল বুধবার ৷ কিন্তু এদিনও আদালতের শুনানি শেষে বহাল রইল সেই আশঙ্কা ৷

সারদা ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস মামলায় তদন্তের অধিকার হারাতে পারে সিবিআই এমন আশঙ্কা তৈরি হয়েছিল বুধবার ৷ কিন্তু এদিনও আদালতের শুনানি শেষে বহাল রইল সেই আশঙ্কা ৷

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #কলকাতা : অভিযুক্তের আইনজীবীর আপিলে নয়া মোড় নিল সারদা মামলা ৷ সারদা ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস মামলায় তদন্তের অধিকার হারাতে পারে সিবিআই এমন আশঙ্কা তৈরি হয়েছিল বুধবার ৷ কিন্তু এদিনও আদালতের শুনানি শেষে বহাল রইল সেই আশঙ্কা ৷

    সারদা মামলায় অভিযুক্তের আইনজীবীর তোলা আবেদনের জবাব দেওয়ার জন্য বৃহস্পতিবার আদালতের কাছে কিছুটা সময় চেয়ে নেই সিবিআই ৷ সেই আবেদন মেনে মামলার তদন্তকারী সিবিআইকে ১৬ অগাস্ট পর্যন্ত নগর দায়রা আদালত ৷ এই মামলার জেরে সারদা কেলেঙ্কারির তদন্ত নিয়ে নতুন করে তৈরি হয়েছে জটিলতা ৷

    বুধবার সারদা ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস মামলার শুনানি চলাকালীন সিবিআইয়ের কেস ডায়েরি জমা না দেওয়া নিয়ে প্রশ্ন ওঠে ৷ দু’বছরের বেশি সময় ধরে তদন্ত চালালেও গতকাল পর্যন্ত সিবিআই কোনও কেস ডায়েরি জমা দেয়নি সিবিআই ৷ সেই পয়েন্টটি নিয়ে প্রশ্ন তোলেন সারদা মামলায় গ্রেফতার হওয়া অভিযুক্ত দেবযানী মুখোপাধ্যায়ের আইনজীবী ৷

    তাঁর বক্তব্য ছিল, সারদা মামলায় নিয়ম বহির্ভূত ভাবে গো-জোয়ারি তদন্ত করছে সিবিআই । এই দাবির স্বপক্ষে তিনি যুক্তি দেখান, পশ্চিমবঙ্গ ফৌজদারি কার্যবিধি (সংশোধিত) আইনে কোনও তদন্ত দু’বছরের বেশি চলতেই পারে না। এই আইনের ১৬৭ নম্বরের ৫ (সি) ধারায় একথা স্পষ্ট করা হয়েছে। ২০১৬ সালের ৩০ জুলাইয়ের মধ্যে সিবিআইয়ের তদন্ত শেষ করার কথা। কিন্তু তা না হওয়ায় এরপর আইনানুযায়ী আর সিবিআইকে তদন্ত চালানোর অনুমতি দেওয়া যায় না বলে দাবি করেন আইনজীবী অনির্বাণ গুহঠাকুরতা ৷

    এই প্রশ্নের স্বপক্ষে সিবিআইয়ের উত্তর ছিল, ‘সারদা মামলায় এই আইন প্রযোজ্য নয়। যে সব অপরাধে ২ বছরের কম শাস্তি হয়, তার ক্ষেত্রেই এই আইন কার্যকর হয়। সারদা মামলা এর থেকে আলাদা।’

    কিন্তু দু’পক্ষের বক্তব্য শোনার পর বিচারক অরবিন্দ মিশ্র জানিয়ে দেন, অভিযুক্তদের বক্তব্যে আইনি সারবত্তা রয়েছে। এনিয়ে সিবিআইয়ে বক্তব্য জানতে চান তিনি। সিবিআই নতুন করে বক্তব্য না জানানোয় বিচারক মিশ্র সিবিআইকে বৃহস্পতিবার কেস ডায়েরি জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়ে সেদিনের মতো শুনানি শেষ করেন।

    আদালতের নির্দেশ মতো বৃহস্পতিবার কাঁটায় কাঁটায় সকাল সাড়ে ১০ টার মধ্যে মামলার কেস ডায়েরি জমা দেয় সিবিআই । কিন্তু এদিন শুনানি শুরু হতেই দেবযানীর আইনজীবীর দেখানো পথেই আদালতের কাছে সিবিআইয়ের সারদা তদন্ত বন্ধ করার আবেদন জানায় কুনাল ঘোষের আইনজীবী ৷ এই আবেদনের উত্তর দেওয়ার জন্য আদালতের কাছে কিছু সময় চায় সিবিআই ৷ তাদের এই আবেদনের ভিত্তিতে ১৬ অগাস্ট পর্যন্ত সিবিআইকে সময় মঞ্জুর করলেন বিচারক অরবিন্দ মিশ্র ৷ ১৭ অগাস্ট সিবিআইয়ের জবাব শোনার পরই তদন্ত বন্ধ নিয়ে নির্দেশ দেবে নগর দায়রা আদালত ৷

    সারদা মামলায় ২০১৪ সালের ৩০ অগস্ট গ্রেফতার করা হয় সুদীপ্ত সেন, দেবযানী মুখোপাধ্যায়, কুনাল ঘোষদের। প্রায় ২ বছর পর দেবযানীর আইনজীবী অনির্বাণ গুহঠাকুরতা বুধবার আদালতে সিবিআইয়ের তদন্তের বৈধতা নিয়েই প্রশ্ন তোলেন।

    আইনজীবীদের এই আবেদনে সিবিআই তদন্ত বন্ধ হয়ে যাওয়ার জল্পনা এখন তুঙ্গে। সারদা তদন্ত নিয়ে সিবিআইয়ের বিরুদ্ধে দীর্ঘসূত্রিতার অভিযোগ নতুন নয়। তবে ১৭ অগাস্ট সিবিআইয়ের জবাবের উপরই নির্ভর করছে মামলার ভবিষ্যৎ ৷

    First published: