corona virus btn
corona virus btn
Loading

মৃত্যু হলো বেলঘরিয়ার প্রৌঢ়ের, রাজ্যে করোনা সংক্রমণে মৃত বেড়ে ৬

মৃত্যু হলো বেলঘরিয়ার প্রৌঢ়ের, রাজ্যে করোনা সংক্রমণে মৃত বেড়ে ৬
তবে বায়ুতে ভেসে নয়, করোনা এখনও পর্যন্ত অধিকাংশ আঘাত হেনেছে সংস্পর্শজনিত কারণেই।

৫৭ বছর বয়সি ওই প্রৌঢ়ের এ দিন সকালেই মৃত্যু হয়৷ গত ২৬ তারিখ তিনি ওই হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন৷

  • Share this:

#কলকাতা: রাজ্যে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হলো ৬৷ মারা গেলেন বেলঘরিয়ার জেনিথ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন এক প্রৌঢ়৷ ৫৭ বছর বয়সি ওই প্রৌঢ়ের এ দিন সকালেই মৃত্যু হয়৷ গত ২৬ তারিখ তিনি ওই হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন৷ দীর্ঘদিন ধরেই ওই ব্যক্তি কিডনির সমস্যায় ভুগছিলেন৷ তার সঙ্গে হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পর তাঁর নিউমোনিয়া ধরা পড়েছিল৷ তিনি বেলঘরিয়ারই বাসিন্দা৷ সরকারের নির্দিষ্ট বিধি মেনে জীবাণুমুক্ত করে দেহের সৎকার করা হবে৷

পেশায় ফাস্ট ফুড ব্যবসায়ী ওই প্রৌঢ় গত প্রায় কুড়ি বছর ধরে কিডনির সমস্যায় ভুগছিলেন৷ তাঁর ডায়ালিসিসও চলছিল৷এর পাশাপাশি ওই রোগীর ডায়াবেটিসও ছিল৷ গত ২৬ মার্চ তিনি ডায়ালিসিস করার জন্যই হাসপাতালে ভর্তি হন৷ তখনই চিকিৎসকরা খেয়াল করেন, ওই রোগী নিউমোনিয়াতে আক্রান্ত৷ এর পরেই তাঁকে আইসিইউ-তে রেখে চিকিৎসা শুরু হয়৷ রোগীর মধ্যে বেশ কিছু উপসর্গ দেখে সন্দেহ হওয়ায় তাঁর শরীরের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য নাইসেডে পাঠানো হয়৷ মঙ্গলবার দুপুরে তাঁর সেই পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসে৷

হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পর থেকে ওই ব্যক্তির শারীরিক অবস্থার ক্রমশ অবনতি হচ্ছিল৷তাঁর ফুসফুসও অকেজো হয়ে পড়েছিল৷ আগে থেকেই শরীরে কিডনির সমস্যা, ডায়াবেটিস-এর মতো সমস্যা থাকায় প্রৌঢ়ের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও কম ছিল৷ শেষ পর্যন্ত এ দিন সকাল ৯.২৫ মিনিটে ওই রোগীর মৃত্যু হয়৷

কীভাবে ওই রোগীর শরীরে সংক্রমণ ছড়িয়েছিল, তা নিয়ে এখনও ধোঁয়াশা অব্যাহত৷ কারণ তিনি নিজে সাম্প্রতিক সময়ে অন্য কোনও রাজ্য বা বিদেশে যাননি৷ তবে জানা গিয়েছে, রোগীর এক আত্মীয় ভিন রাজ্য থেকে এসেছিলেন৷তাঁর সঙ্গে ওই প্রৌঢ়ের দেখা হয়েছিল৷ তখন অবশ্য তিনি নিউমোনিয়াতে আক্রান্ত ছিলেন না৷ ফলে সন্দেহ করা হচ্ছে আত্মীয়ের থেকেই তাঁর শরীরে করোনা সংক্রমণ ছড়িয়েছে৷ মৃত প্রৌঢ়ের ওই আত্মীয় সহ তাঁর পরিবারের বাকি সদস্যদের কোয়ারেন্টাইন করে রেখে করোনা পরীক্ষা করানো হচ্ছে৷

হাসপাতালের অন্যান্য রোগী এবং চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মীদের মধ্যে যাতে সংক্রমণ না ছড়ায় তা নিশ্চিত করতে নির্দিষ্ট বিধি মেনে প্রৌঢ়ের দেহ জীবাণুমুক্ত করে সৎকারের ব্যবস্থা করা হচ্ছে৷

Published by: Debamoy Ghosh
First published: April 1, 2020, 6:06 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर