এই অমরেন্দ্র 'বাহুবলী' নন, একাধিক বির্তকে জড়িয়েছে তাঁর নাম

এই অমরেন্দ্র 'বাহুবলী' নন, একাধিক বির্তকে জড়িয়েছে তাঁর নাম
নিজস্ব চিত্র

পান তাঁর বড়ই প্রিয়। সঙ্গে পিকদানি। পিকদানি বাবু, একসময় দফতরে এই নামেই পরিচিত ছিলেন অমরেন্দ্রকুমার সিং। ওয়াকিবহাল মহলের দাবি, আপাদমস্তক বিতর্কিত ১৯৮২ সালের এই আইএএস।

  • Share this:

#কলকাতা: পান তাঁর বড়ই প্রিয়। সঙ্গে পিকদানি। পিকদানি বাবু, একসময় দফতরে এই নামেই পরিচিত ছিলেন অমরেন্দ্রকুমার সিং। ওয়াকিবহাল মহলের দাবি, আপাদমস্তক বিতর্কিত ১৯৮২ সালের এই আইএএস।

এই হলেন অমরেন্দ্র। তবে বাহুবলী নন। শাসক-বিরোধীর সাঁড়াশি চাপে এখন পুরোপুরি ভ্রান্ত বপু বহর এই মানুষটি।

১৯৮২ সালে পশ্চিমবঙ্গ থেকে আইএএস। বাম জমানায় সিভিল ডিফেন্স দফতরের সচিব। সচিব হিসেবে দায়িত্বে ছিলেন প্রাণি সম্পদ বিকাশ দফতরেও। দু'হাজার এগারো সালে উত্তরবঙ্গের ডিভিশনাল কমিশনার পদে যোগ দেন। দু'হাজার বারোর শেষ দিকে তাঁকে যৌথভাবে ল্যান্ড কমিশনার হিসেবে যৌথ দায়িত্ব দেওয়া হয়। এই সময়েই, জলপাইগুড়িতে একটি ফাইলে সই করে নোট দিয়েছিলেন ল্যান্ড কমিশনারের অনুমোদন প্রয়োজন।

কলকাতায় এসে ওই ফাইলে আবার সই করে নোট দেন ডিভিশনাল কমিশনারের আবেদনের ভিত্তিতে সই করলেন ল্যান্ড কমিশনার। মজার কথা দুই পদেই ছিলেন অমরেন্দ্র। অর্থাৎ এক ফাইলে দুবার সই। তাঁর এই বেনজির কীর্তিতে দফতরে হাস্যকর পরিস্থিতি তৈরি হয়। ২০১৪ ল্যান্ড কমিশনার হিসেবে অবসর নেন। কিন্তু সরকারের দেওয়া প্রস্তাব মেনে অবসরের সময়সীমা বাড়ানোতে সায়ও দেন। এরপর ২০১৫ সালে রাজ্য নির্বাচন কমিশনারের পদে বসেন তিনি। এখানেও তাঁর কীর্তির শেষ নেই।

সম্প্রতি রাজ্যে পঞ্চায়েত নির্বাচন পরিচালনার জন্য তিনশো ষাট কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে রাজ্য সরকার। তারপরেও নির্বাচন কমিশনার হিসেবে তিনি তুলেছেন নানা প্রশ্ন। অতি সম্প্রতি পঞ্চায়েতের প্রস্তুতিতে কমিশনের দফতরে বৈঠকে কেন চপের সঙ্গে সিঙারা দেওয়া হচ্ছে, তা নিয়েও নাক গলিয়েছেন। ফুল কাপের বদলে আধ কাপ চা দেওয়ার নির্দেশও দিয়েছিলেন।

এহেন অমরেন্দ্রর পান বরাবরই প্রিয়। বিভিন্ন দফতরে দায়িত্ব পালনের সময় পিকদানি ছিল তাঁর সর্বক্ষণের সঙ্গী। তাই আড়ালে আবডালে তাঁকে ডাকা হত পিকদানি বাবু বলেই। খুব কাছ থেকে যাঁরা দেখেছেন, তাঁদের দাবি, বড্ড খিটখিটে। কারুর সঙ্গেই তাঁর সম্পর্ক ভাল নয়। বিশেষ করে সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে একাধিকবার দুর্ব্যবহারের অভিযোগ রয়েছে। ওয়াকিবহাল মহলের দাবি, বরাবরের গোঁয়ার অমরেন্দ্রকে ডোবাল তাঁর গোঁয়ারতুমি। মনোনয়ন জমার নতুন বিজ্ঞপ্তি জারির মধ্যেও তাঁর তুঘলকী ভাবনাকে দায়ী করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

First published: 03:35:39 PM Apr 11, 2018
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर