করোনার জের বন্ধ হল সুড়ঙ্গ তৈরির কাজ, ফের কবে শুরু হবে তা নিয়ে চরম অনিশ্চয়তা 

করোনার জের বন্ধ হল সুড়ঙ্গ তৈরির কাজ, ফের কবে শুরু হবে তা নিয়ে চরম অনিশ্চয়তা 

আপাতত বন্ধ হাওড়া ময়দান থেকে গঙ্গার নীচে দিয়ে লাইন পাতার কাজও।

  • Share this:

#কলকাতা: ফের থমকাল সুড়ঙ্গ তৈরির কাজ। এবার করোনা সংক্রমণের জেরে বন্ধ হয়ে গেল সুড়ঙ্গ খননের কাজ। বউবাজার থেকে শিয়ালদহ অবধি টানেল তৈরির কাজ কবে শুরু হবে তা নিয়ে চরম অনিশ্চয়তা। থমকে গেল মহাকরণ মেট্রো স্টেশন তৈরির কাজও। আপাতত বন্ধ হাওড়া ময়দান থেকে গঙ্গার নীচে দিয়ে লাইন পাতার কাজও। কে এম আর সি এল সূত্রে জানানো হয়েছে, কেন্দ্রীয় সরকারের স্বাস্থ্য বিধি সংক্রান্ত যাবতীয় গাইডলাইন মেনেই এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে।

সুড়ঙ্গ, স্টেশন তৈরি ও লাইন পাতার কাজ করছিলেন যে সমস্ত শ্রমিক তাদের অনেকেই এসপ্ল্যানেড ও হাওড়া ময়দানের বিভিন্ন ক্যাম্প থেকে নিজেদের বাড়ি ফিরে গেছেন। যে কয়েকজন শ্রমিক এখনও অবধি রয়ে গেছেন তাদের বলা হয়েছে দুরত্ব বজায় রেখেই থাকতে। এমনকি তাদের বাড়ি পাঠানোর ব্যবস্থা করছে ঠিকাদারি সংস্থার প্রতিনিধিরা। বউবাজারে সুড়ঙ্গ তৈরির সময় যে সমস্ত বিশেষজ্ঞরা কলকাতায় এসেছিলেন, তাদের অনেকেই দেশে ফিরে গেছেন। ভারতের বিশেষজ্ঞরা ফিরে গেছেন নিজেদের রাজ্যে। শুধুমাত্র কয়েকজন আধিকারিক বউবাজার সহ বেশ কিছু জায়গার রিপোর্ট প্রতিদিন সংগ্রহ করে রাখছেন। অপারেশনাল বিষয় যাবতীয় বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

গত বছর ৩১ আগস্ট মেট্রো সুড়ঙ্গ তৈরি করতে গিয়ে সমস্যা হয়। তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ে একের পর এক বাড়ি। একাধিক বাড়িতে ফাটল দেখা যায়। বহুদিন আদালতের স্থগিতাদেশ বজায় থাকে সুড়ঙ্গ খননের জন্য। চলতি বছরে অবশেষে অনুমতি পেয়ে শুরু হয় সেই সুড়ঙ্গ খননের কাজ। যে সুড়ঙ্গ কাটতে গিয়ে সমস্যা হয় তা আটকে আছে বউবাজারের স্যাকরা পাড়াতে। আর যে সুড়ঙ্গ এখন কাটা হচ্ছে, তাও সেই বউবাজারের স্যাকরা পাড়াতে এসে আটকে গেল। আপাতত টানেল বোরিং মেশিন বন্ধ রেখে দেওয়া হয়েছে। এই মেশিনেও কাজ করতে গিয়ে চৈতন সেন লেন, হিদারাম ব্যানার্জি লেনের বেশ কিছু বাড়িতে ফাটল ধরে। অবশেষে স্যাকরা পাড়া পৌছেও সাবধানে কাজ এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা মেট্রো কর্মীরা করছিলেন। শিয়ালদহ স্টেশন ঢোকার আগে সেই কাজ থমকে যাওয়ায় ফের প্রকল্পের কাজে ঢিলেমি আসল বলে মনে করা হচ্ছে। আগামী বছরের এপ্রিল মাসের মধ্যে সুড়ঙ্গ পুরোপুরি তৈরি হয়ে যাবে বলে মনে করা হয়েছিল। এই পরিস্থিতিতে সেই কাজ আরও অনেকটা পিছিয়ে গেল বলে মত আধিকারিকদের।

অন্যদিকে গঙ্গার নীচ দিয়ে সুড়ঙ্গ তৈরির কাজ শেষ হয়ে গেলেও সেখানে এখন চলছে লাইন পাতার কাজ। আপাতত সেই কাজও বন্ধ করে দেওয়া হল। মহাকরণে স্টেশন তৈরির কাজ শুরু হয়ে গিয়েছিল। সেই কাজও আপাতত বন্ধ করে দেওয়া হল। সব মিলিয়ে ২০২১ সালে যে সময়ে এই প্রকল্প চালু করে দেওয়া হবে বলে মনে করা হয়েছিল তা কিছুটা হলেও গতি হারাল। আধিকারিকরা বলছেন, আগে স্বাস্থ্য সুরক্ষা, তারপর বাকি সব কিছু।

ABIR GHOSHAL

First published: March 25, 2020, 11:43 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर