‘এই দিনগুলি নিয়ে রাজনীতি করি না’, কালো দিন স্মরণের সংহতি মঞ্চ থেকে ফের কেন্দ্রকে তোপ মমতার

‘এই দিনগুলি নিয়ে রাজনীতি করি না’, কালো দিন স্মরণের সংহতি মঞ্চ থেকে ফের কেন্দ্রকে তোপ মমতার
File Photo

‘এই দিনগুলি নিয়ে রাজনীতি করি না’, কালো দিন স্মরণের সংহতি মঞ্চ থেকে ফের কেন্দ্রকে তোপ মমতার

  • Share this:

 #কলকাতা: বাবরি মসজিদ ধ্বংসের বীভৎস ইতিহাস ভোলা যায় না। ধারাবাহিক ভাবে সেই বিভাজনের রাজনীতি এখনও চলছে। যে কোনও মূল্যে তা রুখতে হবে। সংহতি দিবসের মঞ্চ থেকে হুঙ্কার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। একইসঙ্গে কেন্দ্রীয় সরকারের হিন্দুত্ববাদী নীতিকেও নিশানা করেছেন তিনি।

১৯৯২ সালের ৬ ডিসেম্বর। শীতার্ত দেশ ফুটছিল, সাম্প্রদায়িক বিভাজনের উত্তাপে। সংহতি দিবসে সেই কালো দিনকে স্মরণ করার সঙ্গে সঙ্গে রাজ্যবাসীকে সতর্কও করে দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, ‘২৫ বছর আগের দিনটি আজও ভুলিনি ৷ এই দিনগুলি নিয়ে রাজনীতি করি না ৷ বাম সরকারের মত ঘরে ঢুকে থাকিনি ৷ রাস্তায়-রাস্তায় ঘুরে বেরিয়েছি ৷ মানুষের বিপদে আমরা পাশে থাকি ৷ রাতের পর রাত ঘুরে বেরিয়েছিলাম ৷’

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অভিযোগ, ধর্মীয় নিরপেক্ষতার বদলে হিন্দুত্ববাদী নীতিকেই আঁকড়ে ধরেই এগোচ্ছে কেন্দ্রীয় সরকার। গেরুয়া শিবিরের বিরুদ্ধে তৃণমূল সুপ্রিমোর অভিযোগ, ‘বহু ভাষার দেশ ভারতবর্ষ ৷ এক ভাষার সঙ্গে অন্য ভাষার মিল ৷ এখন একটা দলের জন্য ভাগাভাগি হচ্ছে ৷ বিভেদ-ভাগাভাগির রাজনীতি কেন? আমি হিন্দু, তা বলে অন্যের ধর্মকে ঘৃণা করব? তা কখনই হতে পারে না ৷ অসহিষ্ণুতা একটা দলের বড় অস্ত্র ৷’

নাম না করে মমতা বিঁধেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকেও। তিনি বলেন, ‘কে কী খাবেন, সেটা তাঁর নিজস্ব ব্যাপার ৷ সেটাও কি কেউ ঠিক করে দিতে পারে? সংবাদমাধ্যমকেও নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে ৷ একের পর এক সাংবাদিক খুন হচ্ছেন ৷ প্রতিবাদ করলেই খুন হতে হবে?’

রাজ্য সরকার মুসলিমদের তোষণ করছে বলে বারবারই অভিযোগ তুলছে বিজেপি। তার মোক্ষম জবাবও দিয়েছেন তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজের বক্তব্যে বলেন, ‘রাজ্যের ৩০% মুসলিমকে দেখা আমার কাজ ৷ ভুয়ো ছবি দেখিয়ে তোষণের অভিযোগ ৷ সংখ্যালঘুদের রক্ষা করা আমার কাজ ৷ আদিবাসী-তপশিলিদের দেখা আমার কাজ ৷’

উন্নয়ন নিয়েও মোদি সরকারকে চ্যালেঞ্জ ঠুকেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এককথায় বলতে গেলে সংহতি মঞ্চ থেকে ভেদাভেদের রাজনীতি রোখার বার্তাই দিলেন মুখ্যমন্ত্রী ৷

First published: 04:09:57 PM Dec 06, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर