CM Mamata Banerjee: বিধায়কদের নম্র হওয়ার পরামর্শ, বিজেপিকে ভর্ৎসনা, প্রথম বক্তব্যে ঝড় তুললেন মুখ্যমন্ত্রী

বিধানসভায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

ভোট শেষ, মসনদে বসেছেন জনাদেশে। তবু মমতা নির্বাচন কমিশনের ভূমিকাকে কটাক্ষ করতে ছাড়লেন না। দেখা যাক আজ মমতা যা যা বললেন তার সারাংশ-

  • Share this:

    #কলকাতা: সোমবার  মন্ত্রীসভার শপথ, প্রথম ক্যাবিনেট মিটিং। তার আগে অধ্যক্ষ মনোনয়নের দিনেই বিধানসভায় প্রথম বক্তব্য রাখলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আজ শনিবার অধ্যক্ষ মনোনয়নের দিনে বিধানসভা বয়কট করেছিল বিজেপি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রথম বক্তব্য়ে কোভিড রুখতে কেন্দ্রের ব্যর্থতাকে নিশানা করলেন। চাঁচাছোলা ভাষায় বিজেপিকে ভর্ৎসনা করলেন। পাশাপাশি বিনম্র হতে বলে আগামী দিনের পাথেয় বুঝিয়ে দিলেন নবনির্বাচিত বিধায়কদের। করোনা পরিস্থিতি নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ার নির্দেশ দিলেন উপস্থিত বিধায়কদের। ভোট শেষ, মসনদে বসেছেন জনাদেশে। তবু মমতা নির্বাচন কমিশনের ভূমিকাকে কটাক্ষ করতে ছাড়লেন না। বাংলা বিজয়ে তৃপ্ত মমতার উবাচ, বাংলার মানুষ প্রমাণ করেছেন "তাঁদের মেরুদণ্ড আছে। বাংলার মেরুদণ্ড আছে। তাঁরা বলছেন, চিত্ত যেথা ভয়শূন্য,উচ্চ যেথা শির।"

     দেখা যাক আজ মমতা যা যা বললেন তার সারাংশ-

    বিষয় বাংলা-বিজয়

    মাননীয় অধ্যক্ষ ও নবনির্বাচিত বিধায়ক ও প্রশাসকদের অভিনন্দন। স্পিকারকে অভিনন্দন। পার্থ চট্টোপাধ্যায় ঠিক বলেছেন স্পিকারের হ্যাটট্রিক হল। এটা একটা ঐতিহাসিক।  আমি মনে করি বিধানসভার ঐতিহ্য,ইতিহাস আছে। বিশেষ করে ঐতিহাসিক কাজ হয়ে অনেক বিল পাশ হয়েছে। আমি মনে করি যত বিধানসভা আছে তার চেয়ে এটা কম নয়। অবিশ্বাস্য ঘটনা। মানুষের সাহায্য না পেলে এটা হতে পারে না। বাংলার মা বোনেরা এই শক্তি। তারা ইতিহাস করেছে।আমাদের সরকার মা বোনেদের উন্নতি তে আরও কাজ করবে। যুব সমাজকে অভিনন্দন। বাংলা বাংলার থাকবে কিনা সেটা বেছে নিয়েছে।

    বিজেপির প্রচার থেকে ফ্রি ভ্যাকসিনের দাবি 

     নির্বাচনী সংস্কার হওয়া উচিত। চিরকুটে বদলি করে দিচ্ছে। বাংলার মেরুদণ্ড শক্তিশালী। বাংলার মেরুদন্ড কখনও মাথা নীচু করে না। এখনও মনে করি চক্রান্ত। কত টাকার হোটেল, বিমান ভাড়া, কত টাকা খরচ করেছে। এর চেয়ে ভালো হত ভ্যাকসিন যদি দেওয়া হত। কেন্দ্রের কাছে ৩৫ হাজার কোটি কিছুই নয়। তবুও সকলের জন্যে ভ্যাকসিনের ব্যবস্থা করেনি।  আমরা নিজের পয়সায় ভ্যাকসিন নিতে চেয়েছিলাম। আজ অবধি পাইনি। অক্সিজেন নিয়ে চলে যাচ্ছে। কী অপরাধ করেছে বাংলা!২৪ ঘন্টা শপথ নেওয়ার মধ্যে কেন্দ্রীয় দল পাঠিয়েছে। বাংলার মানুষের জয় মেনে নিতে পারছে না।  সব প্রশাসক বদল করেছে। বিজেপি অফিস থেকে যা বলেছে তাই করেছে।

    রাজ্যে নির্বাচনী হিংসা 

    আমি হিংসার পক্ষে নয়। আমি শান্তির পক্ষে। ৯৯% ফেক ভিডিও ছড়াচ্ছেন।  আমাকে এক সংঘের নেতা এস এম এস করে মহিলা অত্যাচার হয়েছে বলেন। সেই মেয়ে তো আমার বাংলার। আমি খবর নিয়ে দেখলাম এমন ঘটনা ঘটেনি। একটা মেয়েকে অসম্মান কেন করলেন? জনগণের জয় তারা সহ্য করতে পারছে না

    বিধায়কদের টিপস

    বিধায়কদের বলব, এলাকায় যেন কোনও অশান্তি না হয়। কেউ দাঙ্গা করতে চাইলে এফ আই আর করবেন।  আরও বিনম্র হতে হবে। জনগণের কাছে পৌঁছতে হবে। করোনা রোগীদের সাহায্য করুন।  আমাদের এবারে ভালো কাজ করতে হবে। মানুষের সাথে যোগাযোগ রাখা। কোভিডে সাহায্য করা। যাতে অশান্তি না হয় সেদিকে নজর রাখবেন। কোনও দাঙ্গাবাজ দের রেহাই নয়। কোভিড আমাদের সবচেয়ে বড় প্রায়োরিটি।

    কমিশনকে ভর্ৎসনা

    নির্বাচন কমিশনের দয়ায় যারা জিতে এসেছিল তারা বয়কট করেছে। শপথ গ্রহণও বয়কট করেছে। নির্বাচন কমিশন সাহায্য না করলে ৩০ টি আসনও পেত না। ওদের লজ্জা নেই, জনগণ ওদের বয়কট করেছে।

    নবাগতগদের অভিনন্দন

    তারকাদের অভিনন্দন। সবাই মন দিয়ে বিধানসভা করবে। কোনও সমস্যা থাকলে আগে বলে দেবেন। গুরুত্বপূর্ণ বিল থাকলে আগে থেকে বলে দেবেন। এটা আজ কনফিডেন্স মোশন হয়ে গেল।

    Published by:Arka Deb
    First published: