কলকাতা

?>
corona virus btn
corona virus btn
Loading

পুজোয় এবার কল্পতরু মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, পুজো উদ্যোক্তাদের জন্য একাধিক ঘোষণা

পুজোয় এবার কল্পতরু মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, পুজো উদ্যোক্তাদের জন্য একাধিক ঘোষণা
ফাইল চিত্র ।

বৃহস্পতিবার নেতাজি ইন্ডোরে করোনা পরিস্থিতি পুজোর গাইডলাইন নিয়ে পুজো কমিটিগুলির সঙ্গে বৈঠকে বসেন মুখমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷ বৈঠকে হাজির ছিলেন পুলিশের আধিকারিকরাও৷

  • Share this:

#কলকাতা: পুজো উদ্যোক্তাদের জন্যে এবার বড় ঘোষণা। রাজ্যের রেজিস্টার্ড পুজো কমিটিদের দেওয়া হবে ৫০ হাজার টাকা। এছাড়া আরও একাধিক ছাড় এদিন ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী। অন্য সব বছরের থেকে এবছর দুর্গাপুজো হবে অন্যরকম আবহে ৷ তাই এবছর দুর্গাপুজোর নিয়মগুলোও অন্যবছরের থেকে অনেক আলাদা ৷ করোনা পরিস্থিতিতে সুষ্ঠভাবে দুর্গাপুজো সম্পন্ন করতে সচেষ্ট সরকার ৷

এমন সংক্রমণের আবহে পুজোর উদ্যোক্তাদের কথা ভেবে বড় ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর ৷ তিনি বলেন, "এবছর দুর্গাপুজোর জন্য পুজো কমিটিগুলির থেকে কোনও ট্যাক্স নেবে না পুরসভা এবং পঞ্চায়েত ৷ এমনকী পুজো কমিটিগুলিকে দমকলকেও কোনও ফি দিতে হবে না" ৷

বৃহস্পতিবার নেতাজি ইন্ডোরে করোনা পরিস্থিতি পুজোর গাইডলাইন নিয়ে পুজো কমিটিগুলির সঙ্গে বৈঠকে বসেন মুখমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷ বৈঠকে হাজির ছিলেন পুলিশের আধিকারিকরাও৷ সেই মঞ্চ থেকেই পুজোর কর ছাড়ের ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর ৷ তিনি বলেন, চলতি বছর মহামারী এবং করোনা রুখতে লকডাউনের কারণে প্রভাব পড়েছে মানুষের আয়ে ৷ সেজন্য এবছর তেমনভাবে বিজ্ঞাপনও তুলতে পাবেন না পুজো কমিটিগুলি ৷ তাই সেই কথা ভেবেই রাজ্যসরকারের তরফে এই কর ছাড়ের ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর ৷

এখানেই শেষ নয়, একইসঙ্গে পুজোর আয়োজন সুষ্ঠভাবে সম্পন্নের জন্য তিনি প্রত্যেক পুজো কমিটিকে ৫০ হাজার টাকা করে দেওয়ার কথাও ঘোষণা করেন ৷ উল্লেখ্য, চলতি বছর রাজ্যে আবাসন, পাড়া, ক্লাব মিলিয়ে ৩৭ হাজারেরও বেশি পুজো হচ্ছে। পুলিশকে সুষ্ঠ ভাবে এগুলি সম্পাদন করতে বলেছেন। অন্যদিকে রাজ্যের প্রায় ৮১ হাজার হকার পরিবারকে দেওয়া হবে ২০০০ টাকা করে৷ এর পাশাপাশি সিভিক ও গ্রীন পুলিশের মাইনে ১০০০ টাকা করে বাড়ানো হল। অঙ্গনওয়ারী কর্মীদের অবসরের পরে দেওয়া হবে ৩ লাখ টাকা।

মুখ্যমন্ত্রী এদিন জানিয়েছেন, এবারে পুজোর প্যান্ডেল হবে খোলামেলা। গ্লোবাল অ্যাডভাইসরি কমিটির পরামর্শ মেনেই এটা করা হচ্ছে। এর পাশাপাশি প্যান্ডেলে ঢোকার মুখে স্যানিটাইজার, মাস্ক, গ্লাভস রাখা হবে। পুলিশকেও এই বিষয়ে দেখতে বলা হয়েছে। এছাড়া ফিজিক্যাল ডিসটেন্স মেনে প্যান্ডেলে ঢোকা-বেরনোর রাস্তা রাখতে বলা হয়েছে। অন্যদিকে যে সব পুলিশ কর্মী পুজোয় ডিউটি করবেন তাদের স্বাস্থ্যের দিকেও খেয়াল রাখতে বলা হয়েছে। চলতি বছরে পুজোর কার্নিভাল অবশ্য হবে না।

Abir Ghosal

Published by: Elina Datta
First published: October 6, 2020, 1:35 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर