শহরের দেওয়াল জুড়ে 'খেলা হবে' কার্টুন! গোলকিপারের ভূমিকায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

শহরের দেওয়াল জুড়ে 'খেলা হবে' কার্টুন! গোলকিপারের ভূমিকায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

শহরের দেওয়াল জুড়ে 'খেলা হবে' কার্টুন

খেলা হবে দেওয়াল চিত্র কলকাতায়। সেই চিত্রাঙ্কনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে গোলকিপার হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। দক্ষিণ কলকাতায় রাজনৈতিক দেওয়ালচিত্র ঘিরে সাধারণ মানুষের মধ্যে উত্তেজনা শুরু হয়েছে।

  • Share this:

#কলকাতা: 'খেলা হবে'। আর সেই খেলায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গোলকিপার। ভাষা দিবসের অনুষ্ঠানে নিজেই ঘোষণা করেছিলেন তৃণমূল নেত্রী। সেই কথার রেশ ধরেই ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই খেলা হবে দেওয়াল চিত্র কলকাতায়। সেই চিত্রাঙ্কনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে গোলকিপার হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। দক্ষিণ কলকাতায় রাজনৈতিক দেওয়ালচিত্র ঘিরে সাধারণ মানুষের মধ্যে উত্তেজনা শুরু হয়েছে।

দক্ষিণ কলকাতার একাধিক দেওয়ালে এখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সেই বক্তব্যের কার্টুন চিত্র ভরে গিয়েছে। ভোটের ময়দানে অনেক আগে থেকেই দেওয়াল লেখায় নেমে পড়েছে রাজনৈতিক দলগুলি। সেই দেওয়ালচিত্রে এবার অন্যরকম মাত্রা। মুখ্যমন্ত্রীর কথার রেশ ধরেই শিল্পী দক্ষিণ কলকাতার পন্ডিতিয়া রোডে তুলে ধরেছেন এরকমই কার্টুন চিত্র।

যেখানে খেলোয়াড়দের চিহ্নিত করা হয়েছে রাজ্য সরকারের নানা রকম প্রকল্পে। কন্যাশ্রী থেকে সবুজসাথী নানা রকম প্রকল্প সেই জায়গায় খেলোয়াড়দের ভূমিকায়। আর সেই খেলায় গোলরক্ষকের চরিত্রে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই কার্টুন চিত্রগুলো করা হয়েছে কলকাতা পুরসভার গুরুত্বপূর্ণ প্রশাসন মণ্ডলীর সদস্য দেবাশিষ কুমারের ওয়ার্ডে। দেবাশিষ কুমার দক্ষিণ কলকাতা জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘোষণা করেছিলেন ভাষা দিবসের অনুষ্ঠানে,"একুশে একটাই খেলা হবে। আর সেখানে আমি থাকবো গোলকিপার। দেখি কে হারে... কে জেতে??""খেলা হবে" আজ এক পরিচিত শব্দ বাংলার রাজনীতিতে। শুরুটা তৃণমূল কংগ্রেসের থেকে হলেও এ রাজ্যে এখন বিজেপির নেতা-নেত্রীদের মুখেও কথায় কথায় খেলা হবে স্লোগান উঠছে। এমনকি বাম কংগ্রেসের নেতা ও কর্মীদের মুখেও খেলা হবে স্লোগানে শোনা যাচ্ছে।

শহরের দেওয়াল জুড়ে 'খেলা হবে' কার্টুন

বীরভূমের তৃণমূল কংগ্রেস নেতা ফিবছর ভোটের মুখে নতুন শব্দ প্রচার করেন। তাঁর গুড়বাতাসা থেকে শুরু করে খেলা হবে স্লোগান সবই জনপ্রিয় হয়েছে। অনুব্রত মণ্ডলই প্রথম বীরভূমের মাটিতে এবারের নির্বাচনে খেলা হবে স্লোগান দিয়েছিলেন। যদিও রাজনৈতিক মহলের দাবি এই খেলা হবে স্লোগানটা বাংলাদেশের এক আওয়ামী লিগ নেতার। সেই হিসাব অনুযায়ী খেলা হবে শুধু বাংলার নয় আন্তর্জাতিক স্লোগান । অবশ্যই রাজনৈতিক ভাবে।

খেলা হবে স্লোগানে শুরু যেখান থেকেই হোক একুশের বিধানসভা নির্বাচনের আগে তা বাংলার রাজনীতিতে এক অন্য মাত্রা পেয়েছে। শুভেন্দুর মিছিল কিংবা মদন মিত্রের মিছিল সব মিছিলেই খেলা হবে স্লোগান উঠছে। অতি সম্প্রতি বাম ছাত্র-যুবকদের নবান্ন অভিযানের মূল স্লোগান ছিল খেলা হবে। শুধু স্লোগান দিয়েই ক্ষান্ত থাকেনি বাম ছাত্র যুবরা। রাস্তায় রাস্তায় ফুটবল নিয়ে রীতিমতো খেলা করেছে তারা।

রাজনৈতিকভাবে এই স্লোগান হয়তো অন্য মাত্রা দিয়েছে। আবার রাজনৈতিক মহলের একাংশের অভিমত এই স্লোগান একটি আতঙ্কের পরিবেশও তৈরি করছে। বিপক্ষকে ভয় দেখানোর এক অন্যতম হাতিয়ার হয়েছে এই স্লোগান। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দেশপ্রিয় পার্কে বাংলা ভাষার স্মরণে এক অনুষ্ঠানে গিয়ে এই রাজনৈতিক স্লোগানকে অন্য মাত্রায় পৌঁছে দিলেন।

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published:
0